মেইন ম্যেনু

এই গুপ্তচর মহিলার জন্যে আইএসকে যেভাবে নাস্তানাবুদ হতে হলো!

এক মহিলার জন্যে আইএসকে এবং তাদের নেটওয়ার্ককে চরম দাম দিতে হয়েছিল। যদিও ওই মহিলা ছিলেন এক গুপ্তচর। আর ওই মহিলার ফাঁস করা তথ্য ও ছবিকে অস্ত্র করে অভিযান চলেছে আইএসের গোপন আস্তানায়। আর যে অভিযানে মারাও পড়ে একের পর এক জঙ্গিনেতা থেকে শুরু করে আত্মঘাতী বাহিনীর সদস্যরা। এমনকি, ওই মহিলার গুপ্তচর বৃত্তিতে একরম নাস্তানাবুদ হতে হয়েছিল আইএসের শীর্ষ নেতাদেরও।

এখানেই শেষ নয়, গুপ্তচর ওই মহিলা এক জঙ্গিকে বিয়ে পর্যন্ত করেন। পরবর্তীকালে তাকেও বিষ প্রয়োগ করে হত্যা করেছিলেন দুঃসাহসিক এই মহিলা গুপ্তচর। শেষে অবশ্য আইএসের হাত থেকে রেহাই মেলেনি ওই মহিলার। তার চরবৃত্তি সম্পর্কে জেনে যাওয়া মাত্রই অত্যন্ত গোপনে ওই মহিলাকে হত্যা করে এক আইএস জঙ্গি। সম্প্রতি এমনই এক চাঞ্চল্যকর তথ্য প্রকাশ করেছে আইএস-ই। তাদের রাশিয়ান ভাষার একটি অনলাইন ম্যাগাজিনে ওই গুপ্তচর মহিলা সম্পর্কে বিস্তারিত জানানো হয়েছে।

‘এলভিরা কারাএভা-এজেন্ট অব দ্য রাশিয়ান স্পেশাল সার্ভিস’ শীর্ষক এক নিবন্ধে আইএস দাবি করেছে, ওই গুপ্তচর মহিলা আইএসের প্রচুর গোপন তথ্য ফাঁস দেয়। আর তার জেরে একটা সময়ে বেশ বেকায়দায় পড়তে হয়েছিল এই জঙ্গি সংগঠনকে। জঙ্গি সংগঠনের বহু সদস্যকে বেঘোরে প্রাণও দিতে হয়েছে। ওলটপালট হয়ে গিয়েছিল পুরো জঙ্গি নেটওয়ার্কটাই।

টানা চার বছর রাশিয়ার হয়ে ককেসাসে চরবৃত্তির দায়িত্বে ছিলেন কারাএভা। তবে তার সঠিক পরিচয় সম্পর্কে রাশিয়া কিছু জানায়নি। আইএস যাকে কারাএভা বলে তাদের ম্যাগাজিনে পরিচয় দিয়েছে, তিনি আদৌ রাশিয়ার গুপ্তচর সংস্থার কর্মী কি না, সেই বিষয়টিও স্পষ্ট করা হয়নি রাশিয়ার পক্ষ থেকে।

স্থানীয় সংবাদমাধ্যমে প্রকাশিত খবর মোতাবেক, কারাএভা আইএস জঙ্গিদের গোপন ডেরার ছবি, জঙ্গিদের হাঁড়ির খবর, বেশ কয়েকজন শীর্ষনেতার ছবি অতি সন্তর্পণে সংগ্রহ করে ফাঁস করে দিতেন। তার সেই ফাঁস করার তথ্যের উপর ভর করে জঙ্গিদের বিরুদ্ধে ব্যাপক অভিযান হয়েছে। পালিয়ে বাঁচার সুযোগ পায়নি বহু জঙ্গি। একের এক সেনাদের বিধ্বংসী অভিযানে বিপর্যস্ত হয়ে আইএসের গোটা জঙ্গি নেটওয়ার্ক। এক সময় কারাএভাকে সন্দেহ করতে থাকে আইএস।

ওই ম্যাগাজিন জানাচ্ছে, জঙ্গি সংগঠনের একটি বিশেষ দলের মুখোমুখিও হতে হয় কারাএভাকে। তাকে জেরা করা হয়। কিন্তু তুখোড় বুদ্ধিমত্তার সঙ্গে আইএসের কাছে নিজের ‘গোবেচারা’ ভাবমুর্তিও তৈরি করে ফেলতেন কারাএভা। জঙ্গিদের কাছে তার বিশ্বাসযোগ্যতাও তৈরি হয়ে যায়। ফের চরবৃত্তির কাজ পুরোদমে শুরু করে দেন কারাএভা। এর মাঝে তিনি বিয়ে করে ফেলেন আবু মুসলিম নামের এক জঙ্গিকে।

আইএসের দাবি, ওই জেহাদির দেহে ধীরে ধীরে বিষ প্রয়োগ করে মেরেও ফেলেছিলেন কারাএভা। শেষে রাশিয়ার গুপ্তচর সংস্থার সঙ্গে অডিও রেকর্ডিং-এ কথা বলতে গিয়ে হাতেনাতে ধরা পড়ে যান কারাএভা। তার পরই তিনি মানসিকভাবে ভেঙে পড়েন। এবং নিজের চরবৃত্তির কথা আইএসের কাছে অকপটে স্বীকার করে নেন।






মন্তব্য চালু নেই