মেইন ম্যেনু

এই ছবিই যত নষ্টের গোড়া, আসল ঘটনা জানতে ক্লিক করুন!

একটা সময় ছিল, যখন সবাই বলতেন ভারতের অফস্পিনার হরভজন সিংহ পুলিশের চাকরি করেন। তিনি পঞ্জাব পুলিশের ডিএসপি ছলেন। ঘটনা হল, হরভজন কি সত্যিই ডিএসপি ছিলেন? আসল ঘটনাটি হলো হরভাজন কোনোদিনই পুলিশের চাকরি করেননি।

তবে হরভাজনের পুলিশের চাকরি নিয়ে জনমনে বিভ্রান্তি রয়েছে। আজ থেকে প্রায় চোদ্দো বছর আগের কথা। ২০০২ সালে হরভজন সিংহকে ডিএসপি-র চাকরি নেয়ার প্রস্তাব দিয়েছিলেন পঞ্জাবের তৎকালীন মুখ্যমন্ত্রী প্রকাশ সিংহ বাদল। কিন্তু সেই সময় মুখ্যমন্ত্রীর প্রস্তাব গ্রহণ করেননি হরভাজন। তখন হরভজন সিংহ ভারতীয় ক্রিকেট দলের অন্যতম সেরা অস্ত্র। ক্রিকেটের প্রতি পুরোদস্তুর নিবেদিত প্রাণ তিনি। সেই জন্যই ডিএসপি-র চাকরি সেই সময় নেননি হরভজন।

এর পরে সময় চলতে শুরু করে। ২০১২ সালে গ্রেড—এ থেকে গ্রেড—বিতে নেমে যান হরভাজন। সেই সময় পঞ্জাব সরকারের কাছে হরভজন জানতে চান, ডিএসপির চাকরি কি এখনো পেতে পারেন তিনি? এতদিন কি আর পড়ে থাকে সেই চাকরি! হরভজনের আবেদন বাতিল করে দেয়া হয় সে সময়। পরের বছরই হরভজন সিংহর একটি ছবি ভাইরাল হয়ে যায় সোশ্যাল নেটওয়ার্কিং সাইটে। ছবিতে পুলিশের পোশাকে ভাজ্জিকে দেখা যায়।

আর সেই ছবির নিচে দুটি টুইট করেন হরভজন। ‘অ্যাট ইওর সার্ভিস’ এবং ‘ফার্স্ট ডে অ্যাট অফিস’। হরভাজনের এই টুইট দুইটি জনমনে বিভ্রান্তি তৈরি হয়। গোটা দেশ ধরে নেয় হরভজন ডিএসপি। কিন্তু বাস্তব ঘটনা অন্য। একটি পঞ্জাবি ছবিতে হরভজন পুলিশের ভূমিকায় অভিনয় করেন। আর সেই জন্যই পুলিশের পোশাক পরতে হয় ভারতের এই অফস্পিনারকে। আর এই ছবিই একনিমেষে হরভজনকে বানিয়ে দেয় ডিএসপি। আসলে তো তিনি ক্রিকেটার, ডিএসপি নন।-এবেলা






মন্তব্য চালু নেই