মেইন ম্যেনু

এই প্রথম হোয়াটসঅ্যাপে এমন ঘটলো!

হোয়াটসঅ্যাপের ছাড়া জীবনই অচল বর্তমানে। এবার আদালতের রায়দানেও কাজে এল মুঠোফোনের এই জনপ্রিয় অ্যাপ। WhatsApp-এ মাঠের ছবি দেখে আসানসোলে সাংসদ মেলায় ছাড়পত্র দিল কলকাতা হাইকোর্ট। খোশ গল্প থেকে নিভৃত আলাপ। জোক শেয়ার করা থেকে অফিসের দরকারি কাজ। Whatsapp ছাড়া জাস্ট ভাবা যায় না। এবার আদালতেও মান্যতা পেল মুঠোফোনের এই জনপ্রিয় অ্যাপই।

আসানসোলের রেল মাঠে সাংসদ মেলা হলে ভিড়ের জেরে পরিস্থিতি খারাপের দিকে যেতে পারে। মেলার অনুমতি না দেওয়ার পিছনে এটাই ছিল পুরনিগমের সবচেয়ে বড় যুক্তি। আজ বিচারপতি বিশ্বনাথ সমাদ্দার জানতে চান, মেলার মাঠের আয়তন কত? আয়োজক সংস্থার আইনজীবী জানান, ১৭১ বর্গমিটার।

এরপরই পুর নিগমের আইনজীবী লক্ষ্মী গুপ্তকে বিচারপতি বলেন, WhatsApp-এ ছবি পাঠাতে বলুন। তিনি মাঠটা দেখতে চান। আইনজীবী যোগাযোগ করেন। WhatsApp-মারফত ফোনে চলে আসে মেলার মাঠের ছবি ও মাঠের আয়তন সংক্রান্ত যাবতীয় তথ্য। আইনজীবী লক্ষ্মী গুপ্ত বিচারপতিকে WhatsApp-এ আসা সেই তথ্য ও ছবি দেখান।

বিচারপতি বিশ্বনাথ সমাদ্দারের নির্দেশে WhatsApp-এ আসা তথ্য ও ছবির প্রিন্ট আউট নিয়ে মামলায় জড়িত সব পক্ষকে দেওয়া হয়। এরপর বিচারপতি বলেন, এতদিন পর্যন্ত উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সই ছাড়া আদালতে কিছু গ্রাহ্য হতো না। তথ্যপ্রযুক্তি আইন আসার পর WhatsApp থেকে পাওয়া নথিও আদালতে গ্রাহ্য হবে। WhatsApp-এ মাঠের ছবি দেখার পরই দ্রুত রায় দেয় কলকাতা হাইকোর্টের ডিভিশন বেঞ্চ।

শুক্রবার থেকেই সাংসদ মেলা শুরু করতে হবে বলে আসানসোলের মেয়রকে নির্দেশ দেয় আদালত। মেলা নিয়ে হাইকোর্টের রায় শোনার পর উচ্ছ্বাসে ফেটে পড়লেন বিজেপি সমর্থকেরা। মেলার মাঠেই শুরু হয়ে যায় আবির খেলা।-জিনিউজ






মন্তব্য চালু নেই