মেইন ম্যেনু

একটি কয়েনের মূল্য ৪০ কোটি টাকা!

দেএকটি এক ডলারের কয়েন কত দরে কিনবেন আপনি? উত্তরটা এখনই বলবেন না। কারণ, এটি যেমন তেমন কয়েন নয়। আগে জেনে নিন এটির বিশেষত্ব। আজকের বিশ্ববাণিজ্যের নিয়ামক মার্কিন ডলারের পূর্বসূরি এ কয়েন যুক্তরাষ্ট্রের সৃষ্টির সঙ্গে জড়িয়ে রয়েছে। প্রথম ব্যাচের গুটিকয়েক দুষ্প্রাপ্য কয়েনের একটি এটি। রুপার তৈরি এ ঐতিহাসিক কয়েনটি ১৭৯৪ সালের। বিশ্বব্যাপী এর মাত্র ১৫০টি এখনও টিকে আছে। এর মধ্যেও যে তিনটি খুব ভালোভাবে সংরক্ষণ করা আছে, তার একটি এ কয়েন। এখন কয়েনটির মূল্য কত হতে পারে- ধারণা করতে পেরেছেন কি?

আপনাকে একটু সহযোগিতা করা যাক। ২০১৩ সালে এক নিলামে এ ধরনের একটি কয়েন এক কোটি ডলার বা বাংলাদেশি মুদ্রায় প্রায় ৮০ কোটি টাকায় বিক্রি হয়েছিল। এটিই এখন পর্যন্ত রেকর্ডমূল্য। এর আগে ১৯৯৯ সালে একই ধরনের আরেকটির দাম উঠেছিল ৪১ লাখ ডলার বা প্রায় সাড়ে ৩২ কোটি টাকা।

নিউইয়র্কের স্টাকস বোয়ার্স নামে নিলামকারী প্রতিষ্ঠানে কয়েনটি আগামী ৩০ সেপ্টেম্বর বিক্রির জন্য তোলা হবে। এরই মধ্যে ওয়েবসাইটে প্রাক-নিলামে দর উঠেছে ২০ লাখ ডলার বা ১৬ কোটি টাকা!

নিলাম-সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের আশা তারা এটির দাম পাবেন ৫ মিলিয়ন ডলার বা ৪০ কোটি টাকা। তা না হলেও অন্তত ৩০ থেকে ৫০ লাখ ডলারে বিক্রি হবেই। ডালাসের একটি পরিবার ঐতিহাসিক এ মুদ্রার মালিক। সিএনএন মানি।






মন্তব্য চালু নেই