মেইন ম্যেনু

এক রাতে কোটি কোটির মদ বিক্রি! সরকারি উদ্যোগে রেকর্ড গড়ল তারাপীঠ

উৎসবের নাম কৌশিকী অমাবস্যা। আর তাতেই যে পরিমাণ মদ বিক্রি হল তারাপীঠে তা সত্যিই রেকর্ড গড়ল।

সবথেকে বেশি বিক্রি হয়েছে দেশি মদ। গতবার যেখানে ৪২ হাজার ৪৮৮ বোতল দেশি মদ বিক্রি হয়েছিল, এবার সেখানে ৪টি দোকান থেকে বিক্রি হয়েছে ৭১ হাজার ০১৯ বোতল। যার মূল্য ৩৯ লক্ষ টাকার কিছু বেশি। ৮টি দোকান থেকে বিলিতি মদ বিক্রি হয়েছে ২ কোটি ৬৩ লক্ষ টাকার। আর বিয়ার বিক্রি হয়েছে ২৩ লক্ষ ৬৬ হাজার টাকার। তারাপীঠের এক মদ ব্যবসায়ী মেঘনাথ সাহা বলেন, ‘‘প্রশাসন এবার মদ বিক্রির উপরে ঢালাও ছাড়পত্র দেওয়ায় বিক্রি বেড়েছে। সেই সঙ্গে মানুষের মৃত্যু রোধ করা গিয়েছে। কারণ, এবার তারাপীঠের যাত্রীরা অবৈধ মদ হাতের কাছে পাননি।’’

রামপুরহাট মহকুমাশাসক সুপ্রিয় দাস বলেন, ‘‘অবৈধ মদ বিক্রি রুখতে আমরা আগেই সরকারি অনুমোদনপ্রাপ্ত মদের দোকানগুলিকে সারারাত খোলা রাখার ছাড়পত্র দিয়েছিলাম। মানুষ সহজে দোকান থেকে মদ পেলে অবৈধ মদের দিকে ঝুঁকবে না। এটাই ছিল আমাদের ভাবনা। আমরা সেক্ষেত্রে সফল হয়েছি।’’

সবথেকে বেশি বিক্রি হয়েছে দেশি মদ। গতবার যেখানে ৪২ হাজার ৪৮৮ বোতল দেশি মদ বিক্রি হয়েছিল, এবার সেখানে ৪টি দোকান থেকে বিক্রি হয়েছে ৭১ হাজার ০১৯ বোতল। যার মূল্য ৩৯ লক্ষ টাকার কিছু বেশি। ৮টি দোকান থেকে বিলিতি মদ বিক্রি হয়েছে ২ কোটি ৬৩ লক্ষ টাকার। আর বিয়ার বিক্রি হয়েছে ২৩ লক্ষ ৬৬ হাজার টাকার। তারাপীঠের এক মদ ব্যবসায়ী মেঘনাথ সাহা বলেন, ‘‘প্রশাসন এবার মদ বিক্রির উপরে ঢালাও ছাড়পত্র দেওয়ায় বিক্রি বেড়েছে। সেই সঙ্গে মানুষের মৃত্যু রোধ করা গিয়েছে। কারণ, এবার তারাপীঠের যাত্রীরা অবৈধ মদ হাতের কাছে পাননি।’’

রামপুরহাট মহকুমাশাসক সুপ্রিয় দাস বলেন, ‘‘অবৈধ মদ বিক্রি রুখতে আমরা আগেই সরকারি অনুমোদনপ্রাপ্ত মদের দোকানগুলিকে সারারাত খোলা রাখার ছাড়পত্র দিয়েছিলাম। মানুষ সহজে দোকান থেকে মদ পেলে অবৈধ মদের দিকে ঝুঁকবে না। এটাই ছিল আমাদের ভাবনা। আমরা সেক্ষেত্রে সফল হয়েছি।’’






মন্তব্য চালু নেই