মেইন ম্যেনু

এবার ঈদেও সড়কে মৃত্যুর মিছিল

গত ঈদের মতো এবার ঈদেও সড়কে ঝরছে একের পর এক প্রাণ। ঈদের দ্বিতীয় দিন আজ শনিবার দুপুর পর্যন্ত দেশের বিভিন্ন জেলায় সড়ক দুর্ঘটনায় কমপক্ষে ১৫ জন মারা গেছেন। এসব ঘটনায় আহত হয়েছেন অর্ধশতাধিক। এর মধ্যে গোপালগঞ্জে একই পরিবারের ছয়জনসহ সাতজন, ধামরাইয়ে তিনজন, চুয়াডাঙ্গায় দুইজন, নোয়াখালী, কুমিল্লা, মুন্সীগঞ্জ ও গাইবান্ধায় একজন করে মারা যান।

গত ঈদুল ফিতরের আগে ও পরে দেশের বিভিন্ন স্থানে সড়ক দুর্ঘটনায় শতাধিক মানুষের মৃত্যু হয়। এরপরই মহাসড়কে তিন চাকার যান চলাচল নিষিদ্ধ করে সরকার। এই নির্দেশ পুরোপুরি কার্যকর না হলেও কমে আসে সড়ক দুর্ঘটনা। তবে ঈদুল আজহার আগে থেকে অস্বাভাবিক হারে বেড়ে যায় সড়ক দুর্ঘটনা। ঈদের আগের তিনদিনে কমপক্ষে ২০ জনের প্রাণ ঝরে সড়কে।

গোপালগঞ্জ: আজ শনিবার সকালে গোপালগঞ্জ সদর থানায় মাইক্রোবাস ও ব্যাটারিচালিত ইজিবাইকের মুখোমুখি সংঘর্ষে একই পরিবারের ছয়জনসহ সাতজন মারা গেছেন। গোপালগঞ্জ-কোটালিপাড়া সড়কের শিবপুর নামক স্থানে এ দুর্ঘটনা ঘটে।

নিহতরা হলেন গোপালগঞ্জ সদর উপজেলার কাঠি ইউনিয়নের তেলীগাতি গ্রামের নাসু সিরদারের ছেলে খোকন সিকদার (৪৫), তার ছেলে সাকিব সিকদার (১৭), মা কাতেবুন্নেচ্ছা (৭০), স্ত্রী চায়না বেগম (৪০) এবং দুই মেয়ে এ্যানি (১৬) ও ইতি (৮)। এ ছাড়া ইজিবাইক চালক দেলোয়ার (৩৫) নিহত হন।

গোপালগঞ্জ সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. সেলিম রেজা জানান, কোটালীপাড়া থেকে ছেড়ে আসা ঢাকাগামী জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ মন্ত্রাণালয়ের একটি গাড়ি (ঢাকা-মেট্রো-চ-১৫-৬৯৩০) ওই স্থানে পৌঁছালে বিপরীত দিকে থেকে আসা গোপালগঞ্জ থেকে তেলীগাতিগামী ব্যাটারিচালিত ইজিবাইকের মুখোমুখি সংঘর্ষ ঘটে। এতে ঘটনাস্থলে সাকিব সিকদার নিহত ও নয়জন আহত হন। পরে খবর পেয়ে পুলিশ ও ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা ঘটনাস্থলে গিয়ে এলকাবাসীর সহায়তায় হতাহতদের উদ্ধার করে গোপালগঞ্জ সদর হাসপাতালে নিলে চারজনকে মৃত ঘোষণা করেন চিকিৎসক। পরে চিকিৎসাধীন অবস্থায় শিশুসহ আরও দুইজন মারা যায়। এরমধ্যে ছয়জন একই পরিবারের ও অপর একজন ইজিবাইকের চালক।

ধামরাই (ঢাকা): ঢাকার ধামরাইয়ে পৃথক দুটি সড়ক দুর্ঘটনায় তিনজন নিহত হয়েছেন। এছাড়া এ ঘটনায় আহত হয়েছেন আরও ২০ জন।

শনিবার সকালে ইসলামপুর এলাকায় বেপরোয়া গতির বাস একটি রিকশাকে পেছন থেকে চাপা দিলে ঘটনাস্থলেই রিকশাচালক নিহত হন। অপরদিকে, একই দিন দুপুরে জয়পুরা এলাকায় ঢাকাগামী সাদ পরিবহনের সঙ্গে ফরিদপুরগামী এনএন পরিবহনের মুখোমুখি সংর্ঘষ হয়। এতে অজ্ঞাতপরিচয় এক ব্যক্তি (৪০) ও এক কিশোরী (১৪) নিহত হন।

চুয়াডাঙ্গা: চুয়াডাঙ্গায় ট্রাক ও আলমসাধুর (শ্যালোইঞ্জিন চালিত) সংঘর্ষে এক স্কুলশিক্ষকসহ দুইজন মারা গেছেন।

আজ শনিবার সকাল ৭টার দিকে চুয়াডাঙ্গা-ঝিনাইদহ সড়কের সুবদিয়া সিপি বাংলাদেশ ফিডমিলের সামনে এই দুর্ঘটনা ঘটে।

নিহত স্কুলশিক্ষকের নাম খায়রুল আলম (৬০) এবং আলমসাধু চালকের নাম শফিউদ্দিনসহ (৩৬)। এ সময় আহত হয়েছেন নিহত স্কুলশিক্ষকের স্ত্রী আলিয়া খাতুন (৫২)। তাকে চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

এছাড়া পৃথক পৃথক ঘটনায় মুন্সীগঞ্জ, নোয়াখালী, কুমিল্লা ও গাইবান্ধায় একজন করে সড়ক দুর্ঘটনায় মারা যাওয়ার খবর পাওয়া গেছে।






মন্তব্য চালু নেই