মেইন ম্যেনু

এবার টলিউড সিনেমায় যৌনকর্মী

পর্নোস্টাররা যদি সিনেমায় নামেন, তাহলে তাঁরা কেন সিনেমায় নামতে পারবেন না? মূলত, বিশ্বখ্যাত পর্নোস্টার সানি লিওন বলিউডে পা রাখার পর থেকেই এই প্রশ্নটা উঁকিঝুঁকি মারছিল কলকাতার অন্যতম নিষিদ্ধপল্লী সোনাগাছিতে। এখানকার যৌনকর্মীরা হাল্কা সুরে হলেও দাবি তুলেছিলেন, গ্ল্যামার দুনিয়ায় ঢুকতে চান তাঁরাও। অবশেষে তাঁদের সেই ইচ্ছে পূরণ হতে চলেছে। এখন থেকে টলিউডের সিনেমা কিংবা ধারাবাহিকে দেখা যাবে যৌনকর্মী ও তাঁদের সন্তানদের।

কলকাতার সোনাগাছি এলাকা নিষিদ্ধপল্লী হিসেবেই পরিচিত। এখানে প্রায় ৬০ জনের মতো যৌনকর্মীর সামনে এখন সিনে দুনিয়ায় প্রবেশের হাতছানি। আর তাঁদের অভিনয়ের প্রশিক্ষণ দেবেন বাংলা সিনেজগতের একঝাঁক তারকা। প্রাথমিক পর্যায়ে যৌনকর্মী ও তাঁদের সন্তান মিলিয়ে ৬০ জনকে অভিনয়জগতে সুযোগ করে দিতে শুক্রবার সোনাগাছিতে ‘স্বাবলম্বন স্পেশাল’ নামে একটি সরকারি প্রকল্পের উদ্বোধন হয়। এই প্রকল্পে মোট ৬০ জনকে তিন মাস ধরে অভিনয়ের যাবতীয় প্রশিক্ষণ দেওয়া হবে।

পশ্চিমবঙ্গের শিশু ও নারী উন্নয়ন এবং সমাজকল্যাণ দপ্তরের মন্ত্রী শশী পাঁজা বলেন, ‘সোনাগাছিতে এমন অনেক যৌনকর্মী রয়েছেন, যারা বাধ্য হয়ে এই পথে নেমেছেন। অনেকে রয়েছেন, যাঁরা সমাজে অন্য কোনো সুযোগ পেলে এই পেশা থেকে বেরিয়ে আসবেন। তাদের জন্য বিকল্প এবং সম্মানজনক পেশার সন্ধান দিতেই এই প্রকল্প। তিন মাসের এই প্রশিক্ষণ শেষে যৌনকর্মী ও তাদের সন্তানরা টলিউডের বিভিন্ন সিনেমা এবং ধারাবাহিকে অভিনয় করার সুযোগ পাবেন।

তবে ‘স্বাবলম্বন স্পেশাল’ সরকারি প্রকল্প হলেও যৌনকর্মীদের অভিনয়ের প্রশিক্ষণের দায়িত্বে থাকবে একটি বেসরকারি সংস্থা। প্রশিক্ষণ চলাকালীন যৌনকর্মী ও তাঁদের সন্তানরা যাতে টলিউডের ছবিতে কিংবা ধারাবাহিকে অন্তত ছোটখাটো কোনো চরিত্রে অভিনয় করার সুযোগ পায়, সেই চেষ্টা করা হবে। প্রয়োজনে স্টুডিওতে নিয়ে গিয়ে হাতেকলমেও প্রশিক্ষণ দেওয়া হবে তাদের।






মন্তব্য চালু নেই