মেইন ম্যেনু

এবার টার্গেট পুলিশ!

দেশে একের পর এক হত্যাকা- ঘটে চলেছে। ব্লগার, লেখক, প্রকাশকরা যেমন খুনিদের শিকার হচ্ছেন, তেমনি বিদেশী নাগরিকও আছেন তালিকায়। বাদ যাচ্ছে না আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা।

ধারাবাহিক ব্লগার হত্যা নিয়ে আলোচনার মধ্যেই সম্প্রতি গাবতলীতে পুলিশের তল্লাশিকেন্দ্রে দুর্বৃত্তদের ছুরিকাঘাতে নিহত হন সহকারী উপপরিদর্শক ইব্রাহিম মোল্লা। এই হামলার ১২ দিনের মাথায় আবার পুলিশ হত্যার ঘটনা ঘটেছে।

বুধবার সকালে আশুলিয়ায় ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কের নন্দন পার্কের চেকপোস্টে দৃর্বৃত্তদের হামলায় মারা গেছেন শিল্প পুলিশের একজন সদস্য। গুরুতর আহত হয়েছেন আরো একজন।

এ ছাড়া মঙ্গলবার দিবাগত রাতে ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় পুলিশের ভ্যানে গুলি ছোড়ার ঘটনা ঘটেছে।

আশুলিয়ার বাড়ইপাড়ায় চেকপোস্টে পুলিশ কনস্টেবলকে কুপিয়ে হত্যার ঘটনা পরিকল্পিত বলে মন্তব্য করেছেন পুলিশের ভারপ্রাপ্ত মহাপরিদর্শক (আইজিপি) জাবেদ পাটোয়ারী। তিনি বলেছেন, যারা এ ঘটনা ঘটিয়েছে তারা প্রশিক্ষিত। এর আগে গাবতলীতে পুলিশের ওপর হামলার ধরন ও আজকের এই হত্যাকাণ্ডের ধরন একই।

ঢাকা জেলার সহকারী পুলিশ সুপার নাজমুল হাসান কিরণ জানান, ওই চেকপোস্টে তল্লাশির সময় দুর্বৃত্তরা পুলিশের দুই কনস্টেবল মুকুল ও নূরে আলমের ওপর অতর্কিত ছুরিকাঘাত করে একজনকে হত্যা ও আরেকজনকে আহত করে।

নাজমুল হাসান আরো জানান, দুর্বৃত্তরা মোটরসাইকেলে করে এসে দুই কনস্টেবলের ওপর হামলা চালায়। তারা দুই পুলিশ সদস্যকে এলোপাতাড়ি কুপিয়ে জখম করে। আহত অবস্থায় সাভারের এনাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়ার পর অপারেশন থিয়েটারে মুকুলের মৃত্যু হয়। নূরে আলমের অবস্থার অবনতি হওয়ায় তাকে রাজারবাগ পুলিশ লাইনস হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

তবে কারা এই হামলা চালিয়েছে সে বিষয়ে তাৎক্ষণিকভাবে কিছু জানাতে পারেননি পুলিশের এই কর্মকর্তা।

এদিকে মঙ্গলবার রাত ১১টার দিকে ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় দুর্বৃত্তদের ছোড়া গুলিতে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে পুলিশের একটি পিকআপ ভ্যান খাদে পড়ে গেলে পাঁচ পুলিশ সদস্য আহত হন। কুমিল্লা-সিলেট মহাসড়কের ঘাটুরায় ব্রাহ্মণবাড়িয়া মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের সামনে এ ঘটনা ঘটে।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর মডেল থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মো. মফিজ উদ্দিন ভূঁইয়া বলেন, একটি মাদকবাহী প্রাইভেটকারকে ধাওয়া দিলে দুর্বৃত্তরা পুলিশের প্রতি গুলি ছোড়ে। এ সময় পিকআপ ভ্যান রাস্তার পাশে খাদে পড়ে গেলে আহত হন পাঁচ পুলিশ। আহতরা সবাই ব্রাহ্মণবাড়িয়া পুলিশ লাইন্সে কর্মরত।

মফিজ উদ্দিন ভূঁইয়া জানান, ঘটনার সঙ্গে জড়িত সন্দেহে তিনজনকে আটক করেছে পুলিশ। তারা হলেন স্বপন (২০), আমির (২৫) ও শাহীন (২৮)।

এর আগে গত ২২ অক্টোবর রাতে মিরপুরের দারুসসালাম থানার গাবতলী এলাকায় সন্ত্রাসীদের ধারালো অস্ত্রের আঘাতে নিহত হন পুলিশেরে সহকারী উপপরিদর্শক (এএসআই) ইব্রাহিম মোল্লা। এ সময় পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে মাসুদ রানা নামের এক ব্যক্তিকে গ্রেপ্তার করে। তার স্বীকারোক্তি অনুযায়ী, পরের দিন বগুড়া থেকে উদ্ধার করা হয় বিপুল পরিমাণ অস্ত্র ও গোলাবারুদ।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা গোয়েন্দা পুলিশের পরিদর্শক সেলিম হোসেন বলেন, “খুনি ও তার সহযোগী ঢাকার বাইরে থেকে রাতে গাবতলীতে আসে। বিষয়টি আমরা অত্যন্ত গুরুত্বের সঙ্গে তদন্ত করছি। মূল খুনিকে শনাক্ত করা হয়েছে।”

এসব হামলার বিষয়ে জানতে চাইলে ঢাকা মহানগর পুলিশের গণমাধ্যম শাখার উপকমিশনার মুনতাসিরুল ইসলাম বলেন, পুলিশ সতর্কতার সঙ্গে দায়িত্ব পালন করছে। তবে বিচ্ছিন্ন কিছু ঘটনা ঘটেছে। পুলিশ এসব ঘটনায় অপরাধীদের গ্রেপ্তারও করেছে।ঢাকাটাইমস






মন্তব্য চালু নেই