মেইন ম্যেনু

এবার বিয়ের অনুষ্ঠানে নিরাপত্তার জন্য ‘বিয়ে পুলিশ’ বাহিনী গঠন

শুধুমাত্র বিয়ের অনুষ্ঠানে নিরাপত্তা নিশ্চিত করার জন্যে দক্ষিণ রাশিয়ায় বিশেষ একটি পুলিশ বাহিনী গঠন করা হয়েছে।

এই ‘বিয়ে পুলিশ বাহিনী’র সদস্য সংখ্যা ৪০।

উত্তর ককেশাসের আডেগা অঞ্চলে টহল দেবে পুলিশের এই বিশেষ ইউনিট।

বর ও কনের গাড়ি বহর ট্রাফিক আইন মেনে চলছে কীনা এবং গাড়ির জানালা দিয়ে কেউ গুলি এলোপাথাড়ি ছুঁড়ছে কীনা এসব বিষয়ের ওপর নজর রাখবে তারা।

তাস সংবাদ সংস্থার বরাত দিয়ে এই খবরটি দিয়েছে বিবিসি মনিটরিং।

এই অঞ্চলে বিয়ের অনুষ্ঠানে বর ও কনের পক্ষ হয়ে যারা আসেন তাদের একটু উচ্ছৃঙ্খল হয়ে পড়ার ‘সুনাম’ আছে।

আনন্দ প্রকাশ করতে গিয়ে তাদের অনেকেই বন্দুক থেকে এলোপাথাড়ি গুলি ছুঁড়তে থাকেন।

এছাড়াও তারা হর্ন বাজিয়ে চিৎকার করে হৈ হল্লা করে থাকেন।

তোয়াক্কা করে না ট্রাফিক আইনেরও।

‘বিয়ে পুলিশের’ কারণে বিয়ের অনুষ্ঠানে বেপরোয়া আনন্দ উল্লাসের অবসান ঘটবে বলে আশা প্রকাশ করছেন আডেগার স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আলেকজান্ডার রেচিস্কি।

এরকম পুলিশ বাহিনী গঠন রাশিয়াতে এটাই প্রথম।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী জানিয়েছেন, সাধারণত যেখানে বিয়ের অনুষ্ঠান হয় এবং যেসব রাস্তা দিয়ে গাড়ির বহর যাওয়া আসা করে সেখানেই এই বাহিনীর সদস্যদের মোতায়েন করা হবে।

সদ্য বিবাহিতদের অনেকেই এই উদ্যোগকে স্বাগত জানিয়েছেন।

তারা বলছেন, এটা একটা ভালো কাজ হয়েছে কারণ বিয়ের অনুষ্ঠান থেকে যেসব গুলি ছোঁড়া হয় তাতে হতাহত হওয়ার ঘটনাও ঘটেছে।

সবশেষ এরকম একটি গুলির ঘটনা ঘটেছে ১৫ই অগাস্ট যেদিন বিয়ের একটি রেজিস্ট্রেশন অফিসের বাইরে একজন লোক তার পিস্তল দিয়ে গুলি ছুঁড়ে।

তাকে ৫০,০০০ রুবল জরিমানা করা হয়েছে।

জব্দ করা হয়েছে তার অস্ত্রটিও।






মন্তব্য চালু নেই