মেইন ম্যেনু

এবার সাকিব-তামিম মুখোমুখি

পাকিস্তান সুপার লিগ শুরু হয়েছে গত শুক্রবার থেকে। দুবাইয়ে চলমান এই টুর্নামেন্টে খেলছেন বাংলাদেশের দুই শীর্ষ সারির ক্রিকেটার সাকিব আল হাসান ও তামিম ইকবাল। মুশফিকুর রহিম থাকলেও গত তিন ম্যাচে সেরা একাদশে জায়গা পাননি। ফলে গত তিন দিনে সাকিব-তামিমের খেলা দেখেই তুষ্ট থাকতে হয়েছে ভক্ত-সমর্থকদের। এবার ভিন্ন স্বাদের লড়াই দেখার জন্য উন্মুখ সবাই। লড়াইটা হবে সাকিব বনাম তামিমের।

করাচি কিংসের হয়ে খেলছেন সাকিব আল হাসান। এই দলে রয়েছেন মুশফিকুর রহিমও। অন্যদিকে তামিম ইকবাল খেলছেন পেশোয়ার জালমির হয়ে। দুটি দল তিনটি করে ম্যাচ খেলেছে। বুধবার পর্যন্ত কোন খেলা নেই দল দুটির। তবে নিজেদের চতুর্থ ম্যাচে বৃহস্পতিবার বিকেল পাঁচটায় শারজায় মুখোমুখি হবে করাচি কিংস ও পেশোয়ার জালমি। একাদশে অনুমিতভাবেই থাকবেন তামিম ও সাকিব, এটাতে কোন সন্দেহ নেই। ফলে ভিন্ন দুটি দলের হয়ে সাকিব-তামিম প্রতিপক্ষ হয়ে কেমন লড়াই করেন, তাই যেন দেখার বিষয়। দুজন একে অপরে বাংলাদেশের জাতীয় দলের সতীর্থ। তার চেয়ে বড় কথা, দুজন বন্ধুও।

তিন ম্যাচে সাকিবের চেয়ে তামিম পারফরম্যান্সে এগিয়ে। তিন ম্যাচে তামিমের দল পেশোয়ার জয় পেয়েছে দুটিতে, হেরেছে একটিতে। প্রথম দুটি ম্যাচেই ফিফটি করেছেন তামিম। প্রথম ম্যাচে ৫১, পরের ম্যাচে অপরাজিত ৫৫ রানের সুবাদে হয়েছিলেন ম্যাচ সেরা। তবে তৃতীয় ম্যাচে রোববার কোয়েটা গ্লাডিয়েটর্সের কাছে হেরে যায় তামিমের পেশোয়ার। এই ম্যাচে ১৯ বলে মাত্র ১৪ রান করেন তামিম।

অন্যদিকে সাকিবের করাচি কিংস তিন ম্যাচের মধ্যে জিতেছে মাত্র একটিতে। সেটি প্রথম ম্যাচেই সাকিবের ৫১ রান ও এক উইকেট নেয়ার সুবাদে। যে ম্যাচে সেরা খেলোয়াড় নির্বাচিত হয়েছিলেন সাকিবই। তবে পরের দুটি ম্যাচেই সাকিবরা হেরেছে। দ্বিতীয় ম্যাচে কোয়েটা গ্লাডিয়েটর্সের কাছে করাচি হারে ৮ উইকেটে। এই ম্যাচে সাকিব ১৩ বলে করেন ১৭ রান। চার ওভারে ৪৩ রান নিয়ে পান একটি উইকেট। সর্বশেষ তৃতীয় ম্যাচে ইসলামাবাদের কাছে মাত্র দুই রানে হেরে যায় করাচি। যে ম্যাচে সাকিব দুই ওভারে ১১ রান দিয়ে পাননি কোন উইকেটের দেখা। ব্যাট হাতে ২২ বলে করেছেন ২০ রান।

এবার বৃহস্পতিবারের অপেক্ষায়। বন্ধু যখন শত্রু, এমন আবহের ম্যাচে কেমন করেন সাকিব-তামিম, তাই দেখার বিষয়।



« (পূর্বের সংবাদ)



মন্তব্য চালু নেই