মেইন ম্যেনু

এসআই মাসুদের বিচার চেয়ে আইজিপিকে গভর্নরের চিঠি

বাংলাদেশ ব্যাংক কর্মকর্তা গোলাম রাব্বীকে নির্যাতনকারী মোহাম্মদপুর থানার উপপরিদর্শক (এসআই) মাসুদ শিকদারের বিচার চেয়ে পুলিশের মহাপরিদর্শক (আইজিপি) একেএম শহীদুল হককে চিঠি দিয়েছেন বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর ড. আতিউর রহমান। গভর্নর আজ বুধবার আইজিপিকে এ চিঠিটি দিয়েছেন বলে বাংলাদেশ ব্যাংক সূত্রে জানা গেছে।

মাসুদ শিকদারকে ঘটনা জানাজানির পর তাৎক্ষণিক সরিয়ে নেয়ায় (ক্লোজড) পুলিশ বিভাগকে ধন্যবাদ প্রদান করে গভর্নর তার চিঠিতে অনুরোধ করেছেন, শুধু ব্যাংক কর্মকর্তা কেন, কোনো সাধারণ মানুষও যেন রাব্বির মতো নির্যাতনের শিকার না হয়। এজন্য দ্রুত তদন্ত করে এসআই মাসুদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির ব্যবস্থা নিতে অনুরোধ করা হচ্ছে।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগের সাবেক ছাত্র গোলাম রাব্বী এক সময় টেলিভিশনের উপস্থাপকও ছিলেন। তাই তার ওপর নির্যাতনকারী এসআই মাসুদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবিতে আন্দোলন করে যাচ্ছে ঢাবির শিক্ষার্থী ও সাংবাদিকরা।

অবশ্য মোহাম্মদপুর থানার এসআই মাসুদ শিকদারকে ঢাকা মহানগর পুলিশ (ডিএমপি) থেকে প্রত্যাহার করে নেয়া হয়েছে। বর্তমানে তার বিরুদ্ধে তদন্ত চলছে। অপরাধ প্রমাণিত হলে যথাযথ ব্যবস্থা নেয়া হবে বলেও পুলিশের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে।

উল্লেখ্য, শনিবার রাতে মোহাম্মদপুরের তাজমহল রোডে রাব্বীর গতিরোধ করে পুলিশ। তার কাছে মাদকদ্রব্য আছে দাবি করে তল্লাশির নামে গাড়িতে উঠায়। এসআই মাসুদ শিকদার তাকে আটক করে থানায় না নিয়ে প্রায় আড়াই ঘণ্টা গাড়িতে রেখে নির্যাতন করেন এবং টাকা আদায়ের চেষ্টা চালান। তার কাছে ৫ লাখ টাকা চাঁদা দাবি করেছিলেন মাসুদ শিকদার। চাঁদা না দিলে ক্রসফায়ারের হুমকি দেন ওই পুলিশ কর্মকর্তা।

পরে রোববার সকালে এ বিষয়ে মোহাম্মদপুর থানায় লিখিত অভিযোগ করেন রাব্বী। এরপর সোমবার এসআই মাসুদকে প্রত্যাহার করা হয়। মাসুদ শিকদারের বাড়ি ময়মনসিংহের ফুলবাড়িয়া উপজেলায়। একবছর আগে তিনি মোহাম্মদপুর থানায় যোগদান করেন। কনস্টেবল হিসেবে পুলিশে যোগদান করা মাসুদ ডিপার্টমেন্টালি প্রমোশন পেয়ে এসআই হন। ধানমণ্ডি ও কলাবাগান থানাতেও তিনি এসআই হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন।






মন্তব্য চালু নেই