মেইন ম্যেনু

‘এ রাষ্ট্র ধর্ষকের না ধর্ষিতার?’

ইয়াজিম ইসলাম পলাশ, রাবি প্রতিনিধি: ‘এ রাষ্ট্র ধর্ষকের নাকি ধর্ষিতার? কোনো তনুর পরিবারকে ছয় ঘন্টা জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়? কেনো ঘটনার দিনের পর দিন পেরিয়ে গেলোও কোনো অগ্রগতি হয় না?’

সেনানিবাসের ভেতর ধর্ষণ ও নির্মমভাবে কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া কলেজের ইতিহাস বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী সোহাগী জাহান তনু হত্যার প্রতিবাদ এবং দোষীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবিতে ক্লাস-পরীক্ষা বর্জন করে ধর্মঘট পালনের সময় বিশ্ববিদ্যালয় (রাবি) শাখা ছাত্র ফ্রন্টের দপ্তর সম্পাদক শাকিলা খাতুন এসব কথা বলেন।

রবিবার বিশ্ববিদ্যালয় শাখা প্রগতিশীল ছাত্রজোটের ধর্মঘটের কর্মসূচি হিসেবে সকাল ৯টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান ফটকের সামনে অবস্থান ধর্মঘট এবং বেলা ১১টায় বিক্ষোভ মিছিল বের করে।

বিক্ষোভ মিছিলটি বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগারের সামনে থেকে শুরু হয়ে প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে আবারো গ্রন্থাগারের সামনে এসে সংক্ষিপ্ত সমাবেশের মাধ্যমে শেষ হয়।

সমাবেশে বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রমৈত্রীর সাধারণ সম্পাদক দিলীপ রায় বলেন, ‘আমরা কার কাছে বিচার চাইবো, যে রাষ্ট্র তনু হত্যার বিচার করতে পারে না তার কাছে? যে রাষ্ট্রে শুধু তনু নয়, শত শত নারী ধর্ষিত হয় অথচ বিচার হয় না তার কাছে? আসলে দোষীদের বিচার না হতে হতে দেশে বিচারহীনতার সংস্কৃতি তৈরি হয়েছে।’

তিনি আরো বলে, ‘দেশে একের পর এক ঘটে চলেছে ধর্ষণ ও খুন। রাষ্ট্র খুব কম ঘটনারই উল্লেখযোগ্য বিচার করতে পেরেছে। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের টিএসসি চত্বরের যৌনহয়রানীরও বিচার হয়নি এখনও। তবে প্রশ্ন উঠতেই পারে এই রাষ্ট্র কার? আমরা অবিলম্বে দোষীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি চাই।’

রাবি শাখা ছাত্র ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক তমাশ্রী দাসের সঞ্চালনায় সমাবেশে বক্তব্য দেন রাবি সংসদ ছাত্র ইউনিয়নের সাংগাঠনিক সম্পাদক মাহমুদুল হাসান আসিফ, রাবি শাখা ছাত্র ফেডারেশনের দপ্তর সম্পাদক রাশেদ রিমন, বাংলাদেশ গণশিল্পী সংস্থার সদস্য ইন্দ্রজিৎ ও বাংলা বিভাগের শিক্ষার্থী দীপ্ত।

এদিন বিশ্ববিদ্যালয়ে অধিকাংশ বিভাগেই ধর্মঘটের কারণে ক্লাস-পরীক্ষা বন্ধ ছিলো। সারাদেশে কেন্দ্রীয় প্রগতিশীল ছাত্রজোটের ডাকা ধর্মঘটের অংশ হিসেবে তারা এ কর্মসূচি পালন করে।






মন্তব্য চালু নেই