মেইন ম্যেনু

ঐশীকে বিয়ে করতে চাই : সাড়া জাগানো মতামত

জব্বার আল নাঈম : ‘আমি ঐশীকে বিয়ে করতে চাই’ এই শিরোনামে ফেসবুকে স্ট্যাটাস দেওয়ার পর পক্ষ-বিপক্ষ বক্তব্য শুনিয়ে অনেকের ইনবক্স, কমেন্টস এবং ফোন পাচ্ছি।

ঐশী এ সমাজের ক্ষত বা কীট নয়। ঐশী হলো ক্ষতের একটা মাধ্যম। ঐশীর সুষ্ঠু পরিচর্যা করলে সে সুস্থ-স্বাভাবিক জীবনে ফিরে আসবে।

বেশির ভাগ মানুষ ঐশীর ফাঁসির রায়ে খুশি হয়ে আনন্দ প্রকাশ করেছে। বুদ্ধিজীবী এবং প্রাজ্ঞজনরা আলাদা আলাদা মত দাঁড় করাচ্ছেন- ঐশীর রায় কার্যকরের মাধ্যমে সমাজে একটা দৃষ্টান্ত তৈরি হবে। সমাজ হয়ে যাবে পবিত্র।

শুনেছি ঐশীর মামলার রায়ে তার দাদি এবং চাচা অসন্তুষ্ট। ঐশীর ফাঁসি হোক তারা তা চান না। তাদের অসন্তুষ্টির মানে রায়ের বিরুদ্ধে আপিল। আপিলে ঐশীর জামিনের (অ) সম্ভাবনা আছে। কোনো সম্ভাবনাকে আমরা উড়িয়ে দিতে পারি না। এ সমাজ এবং সমাজের মানুষ তখন ঐশীকে স্নেহ-ভালোবাসা দেবে না। বন্ধুরা তাকে খুনি হিসেবে জানবে। দূরে সরিয়ে দেবে। পরিচিত-অপরিচিত সবাই ধিক্কার জানাবে। রাষ্ট্রকে জানাতে চাই, প্রত্যেকটি মানুষের যে অধিকার আছে, তার কতটুকু আপনারা পালন করছেন? এ খুনের পেছনে প্রত্যক্ষ-পরোক্ষ কারো ইন্ধন থাকতে পারে। ঐশীর ইয়াবা সেবনকারী বন্ধুদের সাজা জাতি জেনেছে।

দ্বিতীয় জবানবন্দিতে ঐশী বলেছে,‘আমি বাবা-মাকে খুন করিনি। সেটা আমি করতে পারি না। আমার বন্ধু জনি ও জনির এক পরিচিত তাদের খুন করেছে। আমি শুধু কফির সঙ্গে ঘুমের ওষুধ মিশিয়েছিলাম।’ তাহলে খুন করল কারা? তা তদন্তে এখনো জানা যায়নি। এই জনি এবং জনির বন্ধুর পরিবার খুব প্রভাবশালী পরিবারের কেউ? এই বন্ধুরাই কেন ঐশীর পিতা-মাতাকে হত্যা করবে? কারণ হতে পারে, নেশা করতে বাধা দেওয়া অথবা ঠিকমতো অর্থের জোগান না দেওয়া। বন্ধুরা ঐশীর কাছ থেকে বিভিন্নভাবে অর্থনৈতিক সুযোগ-সুবিধা নিয়েছিল নিশ্চয়। বন্ধুদের বিচারে কেন আপেক্ষিকতা? এই মুহূর্তে ঐশীর পক্ষে কেউ নেই বলে? পুলিশের বিশেষ শাখার (এসবি) পরিদর্শক নিহত মাহফুজুর রহমান সরকারি আমলা বলে দ্রুত রায়? দেশে অনেক শীর্ষ অপরাধী গোষ্ঠী আছে, যাদের অপরাধের মাত্রা সীমানা অতিক্রম করেছে অনেক আগে। তারা আইনের ফাঁক-ফোকর দিয়ে রাজনৈতিক আশ্রয়-প্রশ্রয়ে পার পেয়ে যাচ্ছে। তাদের ধরে আইনের আশ্রয়ে সুষ্ঠু বিচার করলে অপরাধপ্রবণতা অনেক গুণ কমে যাবে। মাদকদ্রব্যের লাইসেন্স যারা দেয়, তারাও কম অপরাধী না। অপরাধের মূল উপড়ে দিলে ছোট-বড় অপরাধ অনেক কমে যাবে, তা যেমন সত্য, তেমনি সত্য আইন-আদালতে সুষম বিচারব্যবস্থার ভিত তৈরি করা।

ঐশীর সুইসাইড নোট সংবাদপত্রের মাধ্যমে আমাদের জানা সম্ভব হয়েছে। সেখানে ঐশীর পিতা-মাতাকে দোষমুক্ত বলা যাবে না। একজন পুলিশ অফিসার হয়ে টিনএজ সন্তানদের দিকে বেখেয়ালি হলে সমাজে এমন অধঃপতন নেমে আসাটা অস্বাভাবিক নয়। সন্তানদের যেমন শাসন করার দরকার পড়ে, তেমনি আদর-ভালোবাসাও লাগে। সন্তান কোথায় কখন কী করে, তার খোঁজখবর রাখতে হয়। খবর রাখতে হয়, সঙ্গী-সাথি কারা? জনি এবং জনির বন্ধুর রায়ে জাতি অসন্তুষ্ট। আমি চাই ঐশীর জামিনে হোক। ঐশী মুক্তি পাক। কাঁটা দিয়ে কাঁটা তুলতে হবে। ঐশীকে দিয়ে অসুস্থ সমাজের ট্রিটমেন্ট করতে হবে। সে হবে গোটা বিশ্বের মডেল। মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণে নিয়ে সে কাজ করবে। ভুল পথে পরিচালিত ছেলেমেয়েদের সঠিক পথে ফেরানোর জন্য কাজ করে ভেঙেপড়া সমাজে পানি ঢালবে পুনরায় বেঁচে ওঠার জন্য। জাগিয়ে তুলবে আমাদের বোধ-বিবেক।

মেরি কালভার্ট নামের ৬৩ বছরের এক নারী তার যৌনজীবনের অভিজ্ঞতার কথা বর্ণনা দিয়েছেন দ্য গার্ডিয়ান পত্রিকার কাছে। মেরি কালভার্ট জীবনে ৩ হাজার পুরুষের সঙ্গে ইনকামের জন্য ঘুমানোর অভিজ্ঞতা বলেছেন। তিনি বলেছেন, ‘পুরুষরা তাদের যৌন চাহিদা পূরণের জন্য আমাকে ব্যবহার করেছে। আর আমি ব্যবহার হয়েছি আমার অর্থনৈতিক চাহিদা পূরণের জন্য। তবে তাদের (পুরুষ) আচরণ ছিল হিংস্র। বাদাম বা কোনো ফল জাতীয় খাবার শেষে তার খোসা ডাস্টবিনে যেমন ছুড়ে মারি, পুরুষরাও প্রয়োজন শেষে আমাকে ছুড়ে মারত।’ এভাবে প্রতিবছর গড়ে ২০০ পুরুষের সঙ্গে মেরি কালভার্টের শারীরিক সম্পর্ক গড়ে ওঠে। একজন পুরুষ পতিতার মামলার কারণে মেরির পরবর্তী জীবনে অনেক কষ্ট নেমে আসে। মামলায় মেরির সাজা হয়। ম্যারি বন্ডে সই দিয়ে মুক্তি পান। শর্ত ছিল- তিনি সমাজ উন্নয়নের জন্য পিছিয়ে পড়া এবং পথভ্রষ্ট পতিতাদের সৎ পথে নিয়ে আসার জন্য বাকি জীবন কাজ করবেন। মেরি তার কথা রেখেছেন। ভুল করেও পূর্বের পেশায় ফিরে যাননি। একটা সুযোগ মেরির জীবনের সঙ্গে আমেরিকার অনেক নারীর ভাগ্য বদলে গেছে।

মেরি কালভার্ট যেমন অপরাধী, তেমনি অপরাধী ঐশী। অপরাধ ছোট হোক, বড় হোক, তা অপরাধ। ঐশী সেই অপরাধের সাজা পাবে। দায় থেকে তাকে সম্পূর্ণরূপে মুক্তি দেওয়া যাবে না। কিন্তু একটা সিস্টেমের মধ্যে রেখে মেরি কালভার্টের মতো ভূমিকায় নিয়ে আসার জন্য পিতা-মাতা হত্যাকারী ফাঁসির আসামি ঐশীকে আমি বিয়ে করতে চাই। সূত্র : রাইজিংবিডি

লেখক : কবি ও সাংবাদিক






মন্তব্য চালু নেই