মেইন ম্যেনু

ওয়েল্ডিং মিস্ত্রি রাজুর ছয় কৃষিযন্ত্র আবিষ্কার

জামালপুরের শরীফপুর এলাকার দরিদ্র ওয়েল্ডিং মিস্ত্রি রাজু। পেশাগত কাজের অবসরে চালিয়ে যাচ্ছেন কৃষিবান্ধব গবেষণা। ইতিমধ্যে তিনি কৃষিতে শ্রম ও জ্বালানী সাশ্রয়ী ছয়টি পরিবেশবান্ধব কৃষিযন্ত্রের মডেল আবিষ্কার করেছেন। বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউট জয়দেবপুর, গাজীপুরের কৃষি যন্ত্রপাতি উদ্ভাবন ও সম্প্রসারণ প্রকল্পের প্রকল্প পরিচালক রাজুর উদ্ভাবিত ক্ষেত নিড়ানি যন্ত্র দুটি শ্রম ও জ্বালানী সাশ্রয়ী বলে স্বীকৃতি দিয়েছেন।

নিড়ানি যন্ত্র: শুকনো ক্ষেতের ঘাস ও আগাছা অপসারণে রাজুর ক্ষেত নিড়ানি যন্ত্র দিয়ে একজন শ্রমিক অন্তত ২০ জন শ্রমিকের কাজ করতে পারবেন। অপরদিকে বোরো ক্ষেতের কাদা-মাটিতে থাকা ঘাস ও আগাছা অপসারণের জন্যও রাজু আরেকটি নিড়ানি যন্ত্র আবিষ্কার করেছেন। এ যন্ত্রটি দিয়েও একজন শ্রমিক অন্তত ২০ জন শ্রমিকের কাজ করতে পারবেন। রাজুর উদ্ভাবিত ক্ষেত নিড়ানি যন্ত্র দুটি স্বল্পমাত্রার ব্যাটারিচালিত। ওই ব্যাটারি বিদ্যুতের সাহায্যে একবার চার্জ দিয়ে আট ঘণ্টা চালানো যাবে। তাই এটি জ্বালানী সাশ্রয়ী এবং পরিবেশবান্ধব।

ঘাসকাটা যন্ত্র: ভুট্টাক্ষেত, আখক্ষেত, কাঁঠালের বাগান, খেলার মাঠসহ সারিবদ্ধ ফসলি জমির ঘাস কাটতে রাজুর উদ্ভাবিত কৃষিযন্ত্রটি শ্রম ও জ্বালানী সাশ্রয়ী এবং পরিবেশবান্ধব। এটি স্বল্পমাত্রার ব্যাটারিচালিত। এ যন্ত্রটির ব্যাটারিও বিদ্যুতের সাহায্যে একবার চার্জ দিয়ে আট ঘণ্টা চালানো যাবে।

হালমই ও আগাছা পরিষ্কার যন্ত্র: রাজু আহম্মেদ ক্ষেতে হালচাষ এবং মই দেওয়াসহ চাষ করা ক্ষেতের আগাছা পরিষ্কারের জন্যও ব্যাটারিচালিত কৃষিযন্ত্রের মডেল আবিষ্কার করেছেন। এসব কৃষিযন্ত্র শ্রম ও জ্বালানী সাশ্রয়ী এবং পরিবেশবান্ধব। রাজু জানান, তাঁর উদ্ভাবিত ছয়টি যন্ত্রের কোনোটিতেই বিকট শব্দ হবে না এবং কালো ধোঁয়া নির্গত হওয়ার সুযোগ নেই।

ইঁদুর নিধন ও কীটপতঙ্গ দমন যন্ত্র: কৃষিজমি থেকে ইঁদুর নিধনের জন্য একটি বিশেষ কৌশলী ফাঁদ তৈরি করেছেন এবং ক্ষেতে বিষ প্রযোগের জন্য ব্যাটারিচালিত যন্ত্র তৈরি করেছেন। রাজু জানান, তিনি আর্থিকভাবে অসচ্ছল হওয়ায় তাঁর উদ্ভাবিত যন্ত্রগুলি কৃষিতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখতে পারছে না। তবে সরকারি অথবা বেসরকারি পৃষ্ঠপোষকতা পেলে তাঁর উদ্ভাবিত কৃষি যন্ত্রগুলি অত্যাধুনিক মডেলে উন্নীত করে ব্যাপক ভিত্তিতে বাজারজাতকরণ সম্ভব হবে। এতে নতুন উদ্ভাবিত কৃষি যন্ত্রপাতির উন্নয়নসহ কৃষিতে শ্রম সাশ্রয় এবং কৃষি নির্ভর অর্থনীতির চাকা আরো সচল হবে।






মন্তব্য চালু নেই