মেইন ম্যেনু

কপাল পুড়ছে ইউরোপের ৮০ হাজার বাংলাদেশীর

ইউরোপের বিভিন্ন দেশে অবৈধভাবে বসবাস করা প্রায় ৮০ হাজার বাংলাদেশীকে ফেরত পাঠানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে ইউরোপীয় ইউনিয়ন। এ বিষয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন বলেছেন, ‘যাদের ফেরত পাঠানোর কথা বলা হচ্ছে তারা প্রকৃত বাংলাদেশী কি-না তা জানতে ইউরোপীয় ইউনিয়নের কাছে তালিকা চাওয়া হয়েছে।’

ইউরোপের দেশগুলোতে ঠিক কতজন বাংলাদেশী আছেন তার কোনো সঠিক পরিসংখ্যান না থাকলেও প্রায় আড়াই লাখ বাংলাদেশী সেখানে অবস্থান করছেন বলে দাবি করেছে ইউরোপীয় ইউনিয়ন। যার মধ্যে প্রায় ৮০ হাজার অবৈধভাবে বসবাস করছেন।

সোমবার বিকালে ইউরোপীয় ইউনিয়নের ডেপুটি সেক্রেটারী জেনারেল ক্রিসচিয়ান ল্যাফলর নেতৃত্বে একটি প্রতিনিধিদল স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী সঙ্গে দেখা করে তাদের ফেরত পাঠানোর প্রক্রিয়া শুরু করা বিষয়টি অবগত করেন। ক্রিসচিয়ান ল্যাফলর বলেন, আমরা অভিবাসন সম্পর্কে গুরুত্বপূর্ণ আলোচনা করেছি। তাছাড়া আরো অনেক বিষয় আলোচনা হয়েছে। সেখানে বৈধ বাংলাদেশী অভিবাসীদের অবদান, তাছাড়া অনিয়মিত অভিবাসনের চ্যালেঞ্জ নিয়েও কথা হয়েছে। আমরা বাংলাদেশ ও ইইউয়ের মধ্যে খুবই সহযোগিতামূলকভাবে কিভাবে এই সমস্যার সমাধান টানা যায় সেই আলোচনা করেছি।

পরে দ্বিপাক্ষিক বৈঠকের বিষয়গুলো নিয়ে সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন। তিনি বলেন, তাদের প্রস্তাব ছিলো, এগুলির একটি প্রসেস থাকে, আইডেন্টিফিকেশন, কিভাবে ফেরত পাঠাবো সেই পথ এবং অবশেষে ফেরত পাঠানো। আমরা বলেছি যে আগে আমাদের আইডেন্টিফিকেশন করতে হবে। ৮০ হাজার সবাই বাংলাদেশী কিনা। তাদের লিস্ট পাঠান। তারপর আপনাদের সঙ্গে একত্র হয়ে আমরা বিষয়টা দেখবো।

বাংলাদেশে প্রায় ৫ লাখ রোহিঙ্গা এবং ২ লাখ পাকিস্তানী অবৈধভাবে বসবাস করছে। তাদেরকে নিজ দেশে ফেরত পাঠানোর বিষয়ে ইউরোপীয় ইউনিয়নের সহযোগীতা চান স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী।






মন্তব্য চালু নেই