মেইন ম্যেনু

কমলো চলচ্চিত্র তারকাদের আয়

চলচ্চিত্র তারকাদেরকে বাড়তি ভাতা দেওয়া বন্ধ করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে পরিচালক ও প্রযোজক সমিতি। এই সিদ্ধান্তে একমত পোষণ করেছে শিল্পী সমিতিও। আজ বিএফডিসিতে পরিচালক-প্রযোজক ও শিল্পী সমিতির সদস্যদের উপস্থিতিতে এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। শোনা যাচ্ছে একই সঙ্গে শিল্পীদের পারিশ্রমিকও কমানো হবে।

ধ্বংসপ্রায় চলচ্চিত্র শিল্পকে বাঁচাতে দীর্ঘদিন ধরেই চলচ্চিত্র সংশ্লিষ্টরা নানা উদ্যোগ নিয়ে অাসছিলেন। সিনেমা ব্যবসার এই মন্দা সময়ে প্রযোজকরা বাড়তি ব্যয় কমানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে।বিশেষ করে শিল্পীদের চা সিগারেট, যাতায়াত ভাড়াসহ নানা খাতে আর কোনো বাড়তি অর্থ ব্যয় করবে না প্রযোজকরা-এমনই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে মিটিঙে। এই সিদ্ধান্তের ফলে প্রযোজকরা লাভবান হলেও কমে গেলো চলচ্চিত্র তারকাদের আয়।যদিও চলচ্চিত্রের স্বার্থে শিল্পীরাও মেনে নিয়েছেন এই প্রস্তাব।

উক্ত বৈঠকে সহকারি পরিচালক ও প্রোডাকশন বয়দেরও পারিশ্রমিক ও সুযোগ-সুবিধার বিষয়গুলোও নির্ধারণ করা হয়। সেই সঙ্গে নির্ধারণ করা হয় শিল্পীদের শ্রমঘন্টাও।

নায়ক-নায়িকা থেকে সাধারণ শিল্পীরা ৮ ঘন্টার বেশি কাজ করবেন না। এমনকি যথাসময়ে শুটিং স্পটে হাজির হতে না পারলে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ারও বিধান থাকছে নতুন নীতিমালায়।

খুব শীঘ্রই আনুষ্ঠানিকভাবে গৃহীত নীতিমালায় স্বাক্ষর করবেন চলচ্চিত্র তারকা, সাধারণ শিল্পীসহ প্রযোজক-পরিচালকরা।

এ প্রসঙ্গে পরিচালক সমিতির মহাসচিব মুশফিকুর রহমান গুলজার বলেন, ‘চলচ্চিত্রের বাজেট কমানোর লক্ষ্যে আমরা চুক্তিভিত্তিক শিল্পীদের কনভেন্স বিল না দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছি। এখন থেকে আর কনভেন্স বিল বলে কিছু থাকবে না।’

একই প্রসঙ্গে শিল্পী সমিতির সাধারণ সম্পাদক অমিত হাসান বলেন, ‘শিল্পীদের পারিশ্রমিক কমানোর ব্যাপারে কোনো কথা হয় নি। কলটাইম ও কনভেন্স কমানোর ক্ষেত্রে একটা প্রস্তাবনা দেওয়া হয়েছে সেটার কোনোকিছুই এখনো চূড়ান্ত হয় নি।’

মুশফিকুর রহমান গুলজার প্রিয়.কমকে জানিয়েছেন আজকের তিন সমিতির উপস্থিতিতে গৃহীত সিদ্ধান্তগুলো ২০১৬ সালের ১লা জানুয়ারি থেকে কার্যকর করা হবে।






মন্তব্য চালু নেই