মেইন ম্যেনু

কলারোয়ায় ৩ দিনের উন্নয়ন মেলার সমাপ্তি

কামরুল হাসান, কলারোয়া : সাতক্ষীরার কলারোয়ায় ‘উন্নয়নের গণতন্ত্র, শেখ হাসিনার মূলমন্ত্র’ স্লোগান সামনে রেখে উৎসবমুখর পরিবেশে তিন দিনের উন্নয়ন মেলা আলোচনা সভা ও পুরস্কার বিতরনী অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে সম্পন্ন হয়েছে। বুধবার বেলা সাড়ে ৩টায় উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা উত্তম কুমার রায়ের সভাপতিত্বে মেলা প্রাঙ্গণে অনুষ্ঠিত সমাপনী অনুষ্ঠানে বক্তব্য দেন ও উপস্থিত ছিলেন উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার গোলাম মোস্তফা, তরুণ ইউপি চেয়ারম্যান ও উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি শেখ ইমরান হোসেন, সোনালী ব্যাংকের কলারোয়া শাখা ব্যস্থাপক মনোতোষ কুমার, মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা আবদুল হামিদ, কৃষি কর্মকর্তা মহাসীন আলী, প্রাণি সম্পদ কর্মকর্তা ডা.এসএম আতিকুজ্জামান, নির্বাচন কর্মকর্তা মাসুদুর রহমান, প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা সুলতানা জাহান, সমবায় কর্মকর্তা নওশের আলী, যুব উন্নয়ন কর্মকর্তা সঞ্জীব কুমার, শিক্ষা কর্মকর্তা আকবর হোসেন, কলারোয়া প্রেসক্লাবের সভাপতি শিক্ষক দীপক শেঠ, সাধারণ সম্পাদক শেখ জুলফিকারুজ্জামান জিল্লু, সাবেক সাধারণ সম্পাদক প্রধান শিক্ষক রাশেদুল হাসান কামরুল, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক প্রভাষক আরিফ মাহমুদ, কোষাধ্যক্ষ সহ.অধ্যাপক কে,এম আনিছুর রহমান, দপ্তর সম্পাদক এমএ সাজেদ, মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা নুরুন নাহার আক্তার ময়না, একটি বাড়ি একটি খামার প্রকল্প’র কলারোয়া শাখা ব্যবস্থাপক আনারুল ইসলাম, উপজেলা একাডেমিক সুপার ভাইজার তাপস কুমার দাস, সহকারী প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার আলমগীর হোসেন, প্রধান শিক্ষক হরিসাধন ঘোষ, ফজলুল করিম, মাস্টার শামছুর রহমান লাল্টুসহ প্রশাসনের বিভিন্ন দপ্তরের কর্মকর্তা, শিক্ষক, জনপ্রতিনিধি, এনজিও প্রতিনিধি ও সুধিজন। আলোচনা শেষে চিত্রাংকন প্রতিযোগিতা, রচনা প্রতিযোগিতা, সাধারণ কুইজে বিজয়ী শিক্ষার্থীসহ মেলায় অংশ নেয়া সকল প্রতিষ্ঠানকে পুরস্কার ও বিশেষ উপহার সামগ্রী তুলে দেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার উত্তম কুমার রায়সহ অতিথিবৃন্দ। সমগ্র অনুষ্ঠঅনটি সঞ্চালন করেন উপজেলা সমাজসেবা কর্মকর্তা শেখ ফারুক হোসেন।
উল্লেখ্য, উপজেলা প্রশাসন আয়োজিত তিন দিনের ওই মেলায় সরকারি বিভিন্ন দপ্তর, প্রেসক্লাব, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ও উন্নয়ন সেবাদানকারী প্রতিষ্ঠানগুলোর স্টল স্থান পায়। সেখানে তাদের স্ব-স্ব সেবার বিষদ বিবরণ ও কর্মপরিকল্পনা গুলো প্রদর্শন করা হয়। উন্নয়ন মেলায় বিভিন্ন দপ্তর ও ইউনিয়ন পরিষেদের ৩৬ টি নয়নাভিরাম স্টল দেয়া হয়।






মন্তব্য চালু নেই