মেইন ম্যেনু

শিলা বৃষ্টি, কাল বৈশাখীর ছোবল থেকে রক্ষা পেলে

কলারোয়া উপজেলায় এবারের মৌসূমে বাম্পার ফলন হওয়ার সম্ভবনা

একরামুল কবীর, ষ্টাফ করেসপন্ডেন্ট, সাতক্ষীরা: শিলাবৃষ্টি ও কালবৈশাখীর ছোবল থেকে রক্ষা পেলে এবারের মৌষুমে কলারোয়া উপজেলায় বোরো ধানের বম্পার ফলন হওয়ার সম্ভবনা রয়েছে।

কলারোয়া উপজেলা কৃর্ষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর থেকে জানানো হয়, এবারের মৌষূমে কলারোয়া উপজেলায় ১২ হাজার ৬শ’৫০ হেক্টর জমিতে বোরো ধান চাষের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছিল। কিন্তুু জলবদ্ধতা,ধানের বাজার মূল্য কম, সার কীটনাশকসহ বিভিন্ন উপকরণের মূল্য বৃর্দ্ধির কারনে সেই লক্ষ্যমাত্রা অর্জন হয়নি। ধানের চাষ হয়েছে ১২ হাজার ৩শ’৫০ হেক্টর জমিতে। যা লক্ষমাত্রার চেয়ে ৩শ’ হেক্টর কম।

এবারের মৌসূমে কলারোয়া উপজেলায় ধানের উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে ৭ লক্ষ ৪ হাজার ১শ’ মেট্রিক টন। কলারোয়া উপজেলার বিভিন্ন এলাকা ঘুরে দেখা গেছে দিগন্ত জোড়া মাঠ ছেয়ে গেছে সবুজ ধানে। ধানের এখন দুধ,ফুল,দানা বা থোড় বা কাই থোড় অবস্থা।

এ অবস্থায় যদি ধান শিলা বৃষ্টি বা কাল বৈশাখীর কবলে পড়ে তাহলে কোথাও কোথাও ধান সম্পূর্ণ বা অর্ধেক পরিমান নষ্ট হয়ে যেতে পারে।

ইতিমধ্যে গত পহেলা এপ্রিল কাল বৈশাখী ঝড়ের কবলে পড়ে কলারোয়া উপজেলার গোপিনাথপুর, মুরারীকাটি, কাজীরহাট, সোনাবাড়িয়াসহ বিভিন্ন স্থানে ধান লন্ড ভন্ড হয়ে গেছে। ঐ এলাকার কিছু কিছু জমির ধান একেবারে মাটির সাথে মিশে গেছে। এ অবস্থায় কৃষি কর্মকর্তার পরামর্শ হলো ধানের রং সোনালী আঁকার ধারন করলেই কেটে ফেলতে হবে।

সকল বাধা বিপত্তি উপেক্ষা করে বাম্পার ফলন পেয়ে তাদের ভাগ্য বদলাবেন এই আশায় বুক বেধেছেন কলারোয়ার হাজারো কৃষক।






মন্তব্য চালু নেই