মেইন ম্যেনু

কলারোয়া প্রেসক্লাবের সভাপতির প্রতিবাদ

অতিসম্প্রতি একটি আঞ্চলিক পত্রিকার অনলাইন সংস্করণে ‘কলারোয়া আ.লীগের সভাপতি ও তার দুই ভাইয়ের চাঁদাবাজি, মানুষ অসহায়’ শীরোনামে প্রকাশিত সংবাদের একটি অংশের প্রতিবাদ জানিয়েছেন কলারোয়া প্রেসক্লাবের সভাপতি।

প্রকাশিত ঐ সংবাদে ‘নাম উল্লেখ না করে’ কলারোয়া প্রেসক্লাবের সভাপতি হিসেবে যে সব তথ্য ও কথা লেখা হয়েছে তা সম্পূর্ণ মিথ্যা, বানোয়াট ও ভিত্তিহীন। পরিস্কার উদ্দেশ্য প্রণোদিত হয়ে সমাজে হেয় প্রতিপন্ন ও সম্মানহানি করার লক্ষ্যে ওই সকল আজগুবি ও মনগড়া লেখা সংবাদে উল্লেখ করা হয়েছে। ঈর্ষান্বিত হয়ে একটি কুচক্রিমহল সু-পরিকল্পিত ভাবে হীনমানষিকতা চরিত্রার্থ করে আমাকে জড়িয়ে ঐ সংবাদ প্রকাশ করিয়েছে।

এমনকি সংবাদের ওই অংশে ‘হিন্দু ধর্মাবলম্বী’ হওয়ার সুযোগকে কাজে লাগিয়ে স্পষ্টভাবে ‘সাম্প্রদায়ীকতা’কে উসকানি দেয়া হয়েছে।

সংবাদে উল্লেখিত প্রতিবেদক নিজেও প্রকাশিত সংবাদের প্রতিবাদ দিয়েছেন। তিনি একই অনলাইন সংস্করণে প্রকাশিত তার প্রতিবাদ লিপিতে জানান, ‘প্রচারিত ঐ সংবাদ আমার নাম ব্যবহার করে আমার ডেডলাইনে কে বা কারা সংবাদটি পাঠিয়েছে তা আমার জানা নেই। এ ব্যাপারে প্রতারক অনুসন্ধানে আইনগত পদক্ষেপ নেওয়া হচ্ছে।’

এ থেকে সুপষ্ট হয় যে, প্রকাশিত ঐ সংবাদ মিথ্যা, ভিত্তিহীন, বানোয়াট ও মনগড়া। একটি কুচক্রীমহল আমাকে নিয়ে ষড়যন্ত্রের অংশে হিসেবে সুপরিকল্পিতভাবে ন্যাক্কারজনক মিথ্যাচার করেছে।
কেননা আমাকে জড়িয়ে ঐ সংবাদে আমার বক্তব্য নেওয়া হয়নি কিংবা প্রকাশিতও হয়নি, যা সাংবাদিকতার নীতিমালা ও রীতির সম্পূর্ণ পরিপন্থি।

পরবর্তীতে মিথ্যাচারের সীমা লংঘন করা হলে দেশের প্রচলিত আইনের প্রতি সম্মান জানিয়ে আইনানুগ ব্যবস্থা নিতে আমাকে বাধ্য হতে হবে বলে আমি মনে করি।

আমি পুনরায় বিভ্রান্তিমূলক ঐ সংবাদের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়ে মানবিকতার দৃষ্টিভঙ্গি ইতিবাচক হওয়ার আহ্বান জানাচ্ছি।

সভাপতি
কলারোয়া প্রেসক্লাব, সাতক্ষীরা।

প্রেসবিজ্ঞপ্তি।






মন্তব্য চালু নেই