মেইন ম্যেনু

কলারোয়া নিউজ

কলারোয়া সীমান্তে ১০ নারী-পুরুষ ও শিশু আটক

সাতক্ষীরার কলারোয়া সীমান্তে বিজিবি সদস্যরা অভিযান চালিয়ে ১০ নারী-পুরুষ ও শিশুকে আটক করেছে। এরা অবৈধভাবে ভারতে যাওয়ার চেষ্টা করছিলো। রোববার বিকেল ৪ টার দিকে কলারোয়ার সীমান্তবর্তী উত্তর ভাদিযালি গ্রাম থেকে এদের আটক করা হয়।

মাদরা বিওপি’র সুবেদার আব্দুর রব সাংবাদিকদের জানান, রোববার বিকেলে উত্তর ভাদিযালি গ্রামে সন্দেহজনকভাবে ১০ নারী-পুরুষ ও শিশুকে ঘোরাফেরা করতে দেখে তাঁর নেতৃত্বে পরিচালিত বিজিবি’র একটি টহলদল। এদের চ্যালেঞ্জ করলে এরা অবৈধভাবে ভারতে যাওয়ার কথা স্বীকার করে। এসময় তাদের আটক করা হয়।

এরা হলো: যশোরের শার্শা উপজেলার কায়বা গ্রামের ইশার আলির ছেলে জিয়ারুল ইসলাম(৫২), তছরুল ইসলাম(২৫), জিয়ারুল ইসলামের স্ত্রী মনোয়ারা বেগম(৪৫), পাটকেলঘাটা থানার কুমিরা গ্রামের শুভাষ পালের ছেলে সঞ্জয় পাল(২৯), কলারোয়ার হুলহূলিয়া গ্রামের মহসীন আলির ছেলে ইয়াছিন আলি(২৪), যশোরের মনিরামপুরের ইসমাইল হোসেনের ছেলে আল মামুন(২৩), হালিম গাজীর মেয়ে হাওয়া (২৯) ও ফাতেমা(২০), গোপালগঞ্জের মৌলভীপাড়ার রফিক গাজীর স্ত্রী মেঘলা বিবি (২৩) এবং রফিক গাজীর ছেলে সাইম ইসলাম(৭)।

কলারোয়ায় গ্রেফতার এক

সাতক্ষীরার কলারোয়ায় ওয়ারেন্ট’র এক আসামিকে গ্রেফতার হয়েছে থানা পুলিশ। কলারোয়ার থানার এএসআই কামরুজ্জামান জিয়া সঙ্গীয় ফোর্স নিয়ে অভিযান চালিয়ে শনিবার রাতে পলাশ হল মোড় থেকে তাকে গ্রেফতার করেন। গ্রেফতারকৃত ব্যক্তি হলো-উপজেলা শ্রীপ্রতিপুর গ্রামের মোকাছেদ আলীর ছেলে চঞ্চল (৩০)। তার বিরুদ্ধে সাতক্ষীরা আদালতের ওয়ারেন্ট রয়েছে বলে থানা সূত্র জানায়।

কলারোয়ায় ইয়াবা-ফেনসিডিলসহ আটক ৪

সাতক্ষীরার কলারোয়ায় ১০ পিস ইয়াবা ট্যাবলেট ও ২৫ পিস ফেনসিডিলসহ ৪ ব্যক্তিকে আটক করেছে থানা পুলিশ। গোপন সংবাদের ভিত্তিতে থানার এসআই কেএম মোয়াজ্জেম হোসেন ও এএসআই কামরুজ্জামান জিয়া সঙ্গীয় ফোর্স নিয়ে শনিবার রাত সাড়ে ১১টার দিকে পৌর সদরের কলাগাছি মোড় থেকে এদেরকে আটক করেন। আটকৃতরা হলো-উপজেলা রামভদ্রপুর গ্রামের কাশেম গাজীর ছেলে হাসান গাজী (৪০), তুলসীডাঙ্গা গ্রামের মৃত জিতেন দাসের ছেলে কালু দাস (৫০), সাতক্ষীরা সদরের বাঁশদহ গ্রামের কাজিপাড়া এলাকার মৃত নূরুল হকের ছেলে মনিরুল ইসলাম (২১) ও যশোরের ঝিকরগাছা উপজেলার গদখালির টাওরাপাড়া এলাকার নজরুল মোড়লের ছেলে নাজমুল মোড়ল (২৬)। আটককৃত ব্যক্তিরা দীর্ঘ দিন ধরে বিভিন্ন স্থানে ফেনসিডিল ও ইয়াবা ট্যাবলেট বিক্রয় করে আসছিলো বলে থানা পুলিশের কাছে অভিযোগ রয়েছে। এঘটনায় কলারোয়া থানায় একটি মামলা হয়েছে বলে জানান থানার অফিসার ইনচার্জ শেখ আবু সালেহ মোহাম্মদ মাসুদ করিম।






মন্তব্য চালু নেই