মেইন ম্যেনু

কল্যাণপুরে নিহতরা জঙ্গি কিনা সন্দেহ আছে : হান্নান শাহ

রাজধানীর কল্যাণপুরের জঙ্গি নিহতের ঘটনায় নিরীহ মানুষ ছিল কিনা তা নিয়ে সন্দেহ প্রকাশ করেছেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্রিগেডিয়ার জেনারেল (অব.) আ স ম হান্নান শাহ। মঙ্গলবার দুপুরে রাজধানীর ফটোজার্নালিস্ট অ্যাসোসিয়েশন ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টি (ন্যাপ-ভাসানী) আয়োজিত এক আলোচনা সভায় তিনি এ কথা বলেন।

হান্নান শাহ বলেন, গুলশানে জঙ্গি হামলায় কতজন জঙ্গি ছিল তার সঠিক তথ্য আমরা এখনো জানতে পারিনি। পুলিশ যখনই বন্দুকযুদ্ধের কথা বলে তখনই মানুষ সন্দেহ করে, তারা (বন্দুকযুদ্ধে নিহত) কি অপরাধী ছিল, না নিরাপদ ছিল। তাই কল্যাণপুরে যাদের জঙ্গির নামে হত্যা করা হয়েছে তারা সঠিক অপরাধী কিনা তা নিয়ে মানুষ শঙ্কায় আছে।

তিনি বলেন, বিচারবহির্ভূত হত্যা কার নির্দেশে হয় তা আপনারাও জানেন, আমিও জানি। একদিন বিচারবহির্ভূত হত্যার জন্য বিচারের কাঠগড়ায় দাঁড়াতে হবে। এ সরকারের নির্দেশে বহু ঘটনা ঘটেছে। যখন দেশে আইনের শাসন প্রতিষ্ঠিত হবে এবং জাতীয়তাবাদী শক্তি ক্ষমতায় আসবে, তখন প্রত্যেকটি হত্যাকাণ্ডের বিচার হবে।

বিএনপির এ নেতা বলেন, তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু বলেছেন, সংসদ সদস্যরা কাবিখার টাকা চুরি করেছেন। এতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, উনি (ইনু) ভালো মানুষ। আর সবাইকে চোর বানিয়েছেন। কিন্তু প্রধানমন্ত্রী তো বলছেন না, তার দলে চোর নেই।

প্রধানমন্ত্রীকে উদ্দেশ করে হান্নান শাহ বলেন, আপনি আপনার বাবা শেখ মুজিবুর রহমানের কথা মনে করেন। আপনার বাবা বলেছিলেন, সবাই পায় তেলের খনি আর আমি পেয়েছি চোরের খনি। ইনুর কথা পরোক্ষভাবে আপনি সমর্থন করেছেন। আপনার দলের সবাই খেয়েছেন। খাওয়া আপনাদের পুরনো অভ্যাস। আর দোষ দেন বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানের।

তিনি আরো বলেন, আইনে আছে অর্থপাচার মামলায় কাউকে সাজা দিতে হলে অর্থ এদেশ থেকে যেতে হবে। কিন্তু টাকা তো এদেশ থেকে যায়নি। ঘটনা ঘটেছে সিঙ্গাপুরে। মামলা করলে তারা করতে পারে। এদেশের সরকার মামলা করতে পারে না।

ন্যাপ-ভাসানীর ৫৯তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে আয়োজিত আলোচনা সভায় ন্যাপ-ভাসানীর চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট মো. আজহারুল ইসলামের সভাপতিত্বে লেবার পার্টির চেয়ারম্যান ডা. মোস্তাফিজুর রহমান ইরান, জাগপার সাধারণ সম্পাদক খন্দকার লুৎফর রহমান, মুসলিম লীগের মহাসচিব অ্যাডভোকেট শেখ জুলফিকার আলী, ইসলামিক পার্টির মহাসচিব এম এ কাশেম, ন্যাপ-ভাসানীর ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব গোলাম মোস্তফা আকন, সাম্যবাদী দলের সাধারণ সম্পাদক কমরেড সাঈদ আহমেদ প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।






মন্তব্য চালু নেই