মেইন ম্যেনু

কাজী জাফর আর নেই

জাতীয় পার্টির একাংশের চেয়ারম্যান ও প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী কাজী জাফর আহমদ (৭৬) মারা গেছেন (ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন)।

বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ৭টায় তিনি হঠাৎ অসুস্থ হন। পরে রাজধানীর ইউনাইটেড হাসপাতালে নেওয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

কাজী জাফর আহমদের মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করেন তার ব্যক্তিগত সহকারী গোলাম মোস্তাফা।

তিনি এরশাদ সরকারের সময়ে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী হন। বর্তমানে তিনি এরশাদের সঙ্গ ত্যাগ করে নতুন দল গঠন করেন।

কাজী জাফর ১৯৬৯-এর গণ-অভ্যুত্থানে মওলানা ভাসানীর নেতৃত্বাধীন ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টির (ন্যাপ) সদস্য হিসেবে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেন। তিনি টঙ্গী অঞ্চলের একজন প্রভাবশালী শ্রমিকনেতা ছিলেন। সে সময় বিভিন্ন আন্দোলনে শ্রমিকদের সংগঠিত করার ব্যাপারে তার ব্যাপক ভূমিকা ছিল। মুক্তিযুদ্ধে সক্রিয় অংশগ্রহণ করেন কাজী জাফর। স্বাধীনতা-পরবর্তী সময়ে ভাসানী ন্যাপের গুরুত্বপূর্ণ নেতাদের একজন ছিলেন। তিনি জিয়াউর রহমানের সময় ইউনাইটেড পিপল্‌স পার্টি নামক রাজনৈতিক দল গঠন করেন এবং জাতীয়তাবাদী ফ্রন্টে যোগদান করেন। তিনি কুমিল্লা-১২ (চৌদ্দগ্রাম) নির্বাচনী এলাকা থেকে বেশ কয়েকবার সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন।

কাজী জাফর হৃদরোগসহ বিভিন্ন শারীরিক সমস্যায় ভুগছিলেন। তিনি তিন মেয়ে, স্ত্রী, আত্মীয়স্বজন, বন্ধুবান্ধবসহ অসংখ্য গুণগ্রাহী রেখে গেছেন।

খালেদা জিয়ার শোক

কাজী জাফর আহমদের মৃত্যুতে গভীর শোক ও দুঃখ প্রকাশ করেছেন বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া।

বিএনপি চেয়ারপারসনের মিডিয়া উইংয়ের সদস্য শামসুদ্দিন দিদার এ তথ্য জানান।

তিনি জানান, জাফর আহমদের মৃত্যুতে দেশ একজন বরণ্যে রাজনীতিবিদকে হারাল। খালেদা জিয়া মরহুমের বিদেহী আত্মার মাগফিরাত কামনা করে তার শোকসন্তপ্ত পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানান।






মন্তব্য চালু নেই