মেইন ম্যেনু

কাদা-মাটি সরাতেই গুপ্তধন!

বিভিন্ন স্থানে গুপ্তধন পাওয়ার খবর এর আগেও জানা গেছে। একেক সময় একেক ঘটনার প্রেক্ষিতে গুপ্তধন পাওয়ার খবর দিয়েছে বিশ্ব মিডিয়া। এবারো তার ব্যত্যয় ঘটেনি। টাইমস অব ইন্ডিয়ার এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, নদীর ধারে অত্যাধুনিক হোটেল নির্মাণের জন্য কাজ চলছিল।

ভিত গড়তে খোঁড়া হচ্ছিল মাটি। হঠাত্‍ স্যাঁতস্যাঁতে ‌কিছু একটার সন্ধান। মাটি আর কাঠের তৈরি স্যাঁতস্যাঁতে গুহার মতো। মাটি আরো খোঁড়া শুরু হতেই চোখ কপালে। ওই স্যাঁতস্যাঁতে বস্তুটা কোনো গুহা নয়, আস্ত একটি জাহাজকে সংরক্ষণ করা রয়েছে। কয়েকশ’ বছর ধরে।

ভার্জিনিয়ার অ্যালেক্সজান্দ্রিয়া শহরের এ ঘটনায় চাঞ্চল্যচর ছড়িয়েছে তামাম দুনিয়ায়। বাড়ছে গুপ্তধনের আশা। জাহাজের অংশ পরীক্ষা করে প্রত্নতত্ত্ববিদরা জানিয়েছেন, ১৭৭৫ থেকে ১৭৯৮ সালের মাঝামাঝি কোনো এক সময়ে জাহাজটি ডুবে যায়। অ্যালেক্সজান্দ্রিয়ার পোটোম্যাক নদীর কাছে একটি অঞ্চলেই জাহাজটির ধ্বংসাবশেষ উদ্ধার হয়েছে।

তারা জানিয়েছেন, আপাতত হোটেল নির্মাণের কাজ বন্ধ রাখা হয়েছে ওই এলাকায়। মাস দুয়েক আগে এ এলাকাতেই মাটির তলায় ১৭৫৫ সালে তৈরি একটি ওয়্যারহাউসের খোঁজ মেলে। বিজ্ঞানীদের ধারণা, ওটিই শহরের প্রথম পাবলিক বিল্ডিং হতে পারে। সমুদ্র বা নদীর তলায় ডুবে যাওয়া প্রাচীন জাহাজের খোঁজ এর আগেও অনেকবার মিলেছে। কিন্তু মাটির নিচে ডুবে জাহাজের খোঁজ আগে পাওয়া যায়নি।

একসময় পোটোম্যাক নদী ওই অঞ্চল দিয়েই বয়ে যেত। প্রত্নতত্ত্ববিদ ড্যান বায়সির কথায়, এরকম ঘটনা খুবই কম। আগে এরকম ঘটার নজির আছে কিনা আমার জানা নেই। আমারল ১৫ বছরের অভিজ্ঞতায় এত সুন্দর সংরক্ষণ দেখিনি।

যে জায়গায় জাহাজটি পাওয়া গেছে, সেখানে আর কয়েক মাস পরই ১২০ তলার একটি অত্যাধুনিক হোটেল নির্মিত হতে যাচ্ছে। ওই অঞ্চলে খননকার্য শুরু করা হয়েছে। প্রত্নতাত্ত্বিকরা জানিয়েছেন, বেশ কিছু প্রাচীন জুতারও সন্ধান পাওয়া গেছে জাহাজের ভেতর।






মন্তব্য চালু নেই