মেইন ম্যেনু

কানে তীব্র ব্যথা হলে করণীয় ৬ টি জরুরী কাজ

ব্যাকটেরিয়ার আক্রমণ, অ্যালার্জি, ঠাণ্ডা, কানে পানি ঢোকা, দুর্ঘটনায় কানে ব্যথা পাওয়া, ফাঙ্গাস, কানের ভেতরে ব্রণের সমস্যা, কানের কোনো রোগ ইত্যাদি সহ আরও নানা কারণে কানে তীব্র ব্যথা হতে পারে। কানের ব্যথা অনেক যন্ত্রণাদায়ক।

এই সময় ভুলেও কানে আঙুল কিংবা অন্য কোনো কিছু অথবা কটন বাড জাতীয় জিনিস ঢোকানো যাবে না। কানের ব্যথা কমাতে ঘরোয়া কিছু চিকিৎসা নিতে পারেন খুব সহজেই। এতে করে খুব দ্রুত কানের তীব্র ব্যথা থেকে মুক্তি পাওয়া সম্ভব। যদি এতে কাজ না হয় তবে দ্রুত ডাক্তারের শরণাপন্ন হোন।

গরম ভাপ

একটি বোতলে কিংবা হট ব্যাগে গরম পানি নিয়ে অথবা একটি সুতি পাতলা কাপড় গরম পানিতে ভিজিয়ে কানের কাছে চেপে ধরুন। গরম ভাপ কানের ভেতরে গেলে কানের ভেতরে রক্ত সঞ্চালন বৃদ্ধি পাবে। এতে করে কানের ব্যথা উপশম হবে।

রসুন ও তিলের তেল

রসুনের অ্যান্টিবায়োটিক উপাদান কানের ব্যাকটেরিয়ার আক্রমণের ব্যথা উপশমে কাজ করে। ২ টেবিল চামচ তিলের তেলে ১ চা চামচ থেঁতো করা রসুন ফুটিয়ে নিন ২/৩ মিনিট। রসুন ছেঁকে নিয়ে এই তেল ঠাণ্ডা হতে দিন। তেল ঠাণ্ডা হলে ২/১ ফোঁটা তেল কানের ভেতর দিয়ে দিন। ব্যথা কমে যাবে।

আদা

আদার অ্যান্টিইনফ্লেমেটরি উপাদান দ্রুত কানের ব্যথা উপশমে বেশ কার্যকরী। আদা ছেঁচে নিয়ে এর তাজা রস ২/৩ ফোঁটা কানের ভেতর দিয়ে দিন। ব্যথা উপশম হবে। এছাড়াও আদা থেঁতো করে তিলের তেলে ফুটিয়ে তেল কানের ভেতর দিতে পারেন, এতেও ভালো কাজ হয়।

অলিভ অয়েল

অলিভ অয়েল গরম করে নিন। কুসুম গরম থাকতে থাকতেই ৩/৪ ফোঁটা অলিভ অয়েল ড্রপার দিয়ে কানের ভেতর দিয়ে দিন। এতে কানের ইনফেকশন জনিত ব্যথা থেকে মুক্তি পাবেন খুব দ্রুত।

পেঁয়াজ

পেঁয়াজ অনেক কার্যকরী অ্যান্টিসেপ্টিক। পেঁয়াজ গ্রেট বা কুঁচি করে নিয়ে চিপে রস বের করে দিনে অন্তত ২/৩ বার ৩/৪ ফোঁটা করে আক্রান্ত কানের ভেতর দেবেন। এতে করে কানের ব্যথা দূর হবে।

লবণ

একটি প্যানে লবণ দিয়ে ভাজতে থাকুন। লবণ বাদামী বর্ণ ধারণ করলে তা চুলা থেকে নামিয়ে একটি পরিষ্কার কাপড়ে পেঁচিয়ে নিয়ে কানের এই লবণের গরম ভাপ নিন। এতে করে কানের ব্যথা তাৎক্ষণিকভাবে উপশম হবে।






মন্তব্য চালু নেই