মেইন ম্যেনু

কান জানিয়ে দেবে স্মার্টফোন ব্যবহারকারীর পরিচয়

স্মার্টফোন ব্যবহারকারীর পরিচয় জানার জন্য বেশ কয়েকটি পদ্ধতি আবিস্কৃত হয়েছে। এর মধ্যে সবচে বেশি ব্যবহৃত হয় ফিঙ্গারপ্রিন্ট স্ক্যানার। কিছু কিছু হ্যান্ডসেটে লেজারের মাধ্যমে ব্যবহারকারীকে শনাক্ত করার ব্যবস্থা রয়েছে। এর মধ্যে সবচে দ্রুত এবং নির্ভুল পদ্ধতি আবিস্কৃত হয়েছে। নেক্রোটাইজিং এন্ট্রারোকোলিটিস (এনইসি) নতুন প্রযুক্তির কথা ঘোষণা করল। নতুন এই প্রযুক্তি প্রত্যেক ব্যক্তির স্বতন্ত্র কানের আকৃতি অনুসারে স্মার্টফোনের ব্যবহারকারীকে শনাক্ত করতে পারবে।

আমাদের কানে এক ধরণের শব্দ উৎপন্ন হয় যা অত্যন্ত ব্যক্তিগত প্রক্রিয়া। সুতরাং এনইসি কানের ভেতরের আরবাডস নিয়ে চিন্তা করেছে। এনইসি সেখানে একটি মাইক্রোফোন যুক্ত করেছে। এই মাইক্রোফোনটি কানের ভেতর কি পরিমাণ শব্দ প্রবেশ করছে তা নির্ণয় করবে। যা প্রত্যেকের ক্ষেত্রে স্বতন্ত্র। সবচে মজার ব্যাপার হল পুরো পরীক্ষা সম্পন্ন হতে সময় লাগবে মাত্র ১ সেকেন্ড। এই পরীক্ষা ৯৯ শতাংশ সঠিক তথ্য দেবে।

এনইসি আশা করছে ২০১৮ সালের মধ্যে প্রযুক্তিটি বাণিজ্যিকভাবে প্রযুক্তি বাজারে আসবে। প্রতিষ্ঠানটি দেখেছে গোপনীয় কলের সময় কোন মানুষের পরিচায় জানার জন্য ডিভাইসটি কার্যকর। তবে ফিঙ্গারপ্রিন্ট স্ক্যানার বা স্মার্টফোনের বিকল্প হিসেবে এই প্রযুক্তি দাবি করছে না এনইসি। তবে এই ডিভাইসেও রয়েছে উল্লেখযোগ্য ফলাফল।






মন্তব্য চালু নেই