মেইন ম্যেনু

কার কথা সত্য, শাকিলা না হেফাজতের?

জঙ্গি অর্থায়নের অভিযোগে গ্রেপ্তার ব্যারিস্টার শাকিলা ফারজানার আদালতে দেওয়া জবানবন্দিতে জানিয়েছেন বিপুল পরিমাণ টাকা হেফাজতে ইসলামের বিরুদ্ধে দায়ের করা মামলা পরিচালনার জন্য নিয়েছেন। মামলায় ব্যর্থ হয়ে তিনি ওই টাকা মনিরুজ্জামান মাসুদের অ্যাকাউন্টে ফেরত দিয়েছেন। তবে এটা যে জঙ্গি সংগঠন হামজা ব্রিগেডের ব্যাংক অ্যাকাউন্ট তা তার জানা ছিল না।

আর হেফাজত বলছে ব্যারিস্টার শাকিলা ফারজানাকে তাদের মামলা পরিচালনার কোনো দায়িত্ব দেয়া হয়নি। লেনদেন বা মামলাসংক্রান্ত কোনো বিষয়ে হেফাজতের কোনো নেতা শাকিলার সাথে দেখাও করেননি। তাদের কোনো ব্যাংক অ্যাকাউন্ট নেই। তাদের সাথে সন্ত্রাসী বা জঙ্গি গোষ্ঠীর কোনো সম্পর্কও নেই।

পর্যালোচনায় দেখা যায়, ২০১৩ সালে চট্টগ্রামের লালখান বাজার এলাকায় অবস্থিত হেফাজত নেতা মুফতি ইজহারুল ইসলাম চৌধুরীর মাদ্রাসায় ভয়াবহ বোমা বিস্ফোরণে জঙ্গি সংগঠন হামজা ব্রিগেডের বোমা বিশেষজ্ঞ নুরুন্নবী আহত হন। পরে তিনি মারা যান।

ফলে এখন প্রশ্ন দেখা দিয়েছে, কার কথা সত্য, ব্যারিস্টার শাকিলা ফারজানা নাকি হেফাজতের। তাছাড়া প্রশ্ন দেখা দিয়েছে, হেফাজতের মামলা পরিচালনার জন্য নেয়া এত পরিমাণ টাকা হেফাজতকে ফেরত না দিয়ে হামজা ব্রিগেডের মনিরুজ্জমান মাসুদের ব্যাংক অ্যাকাউন্টে জমা দিলেন কেন শাকিলা? এমনকি মামলা পরিচালনার জন্য কি ব্যারিস্টারকে কোটি টাকা ফি দিতে হয়? শুধু মামলার জন্য হেফাজত এত টাকা পেলো কোথায়?

এসব প্রশ্ন ঘুরপাক খাচ্ছে আইনজীবী ও রাজনৈতিক মহলে। এমনকি ব্যারিস্টার শাকিলা ফারজানাসহ তিন আইনজীবীকে আটকে ঈর্ষণীয় সাফল্য অর্জনকারী র‌্যাব-৭ এর দায়িত্বশীল কর্মকর্তাদের মাঝেও।

র‌্যাব-৭ এর পরিচালক লে, কর্নেল মিফতাহ উদ্দিন আহমেদ এ প্রসঙ্গে বলেন, গত রবিবার বাঁশখালীর সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট সাজ্জাদ হোসেনের আদালতে দেয়া জবানবন্দিতে শাকিলা জানিয়েছেন, হেফাজতে ইসলামের বিরুদ্ধে দায়ের করা মামলা পরিচালনা করতেন তিনি। কয়েকজন আসামির জামিনের বিষয়ে তিনি টাকা নিয়েছিলেন। আসামিদের জামিন নিতে ব্যর্থ হওয়ায় সেই টাকা মনিরুজ্জামান মাসুদের অ্যাকাউন্টে ফেরত দিয়েছেন। এছাড়া শুরু থেকে হেফাজতের মামলা পরিচালনা, হেফাজত নেতাদের সাথে যোগাযোগ, বিভিন্ন সময় তাদের কাছ থেকে অর্থ নেয়া এবং র‌্যাবের হাতে গ্রেপ্তার হওয়া প্রসঙ্গে বিস্তারিত বর্ণনাও জবানবন্দিতে দিয়েছেন তিন আইনজীবী।

কিন্তু জবানবন্দিতে নানা প্রশ্নের জন্ম দেওয়ায় গত সোমবার অপর মামলায় তিন আইনজীবীকে আদালতে রিমান্ড চাওয়া হয়। আদালত ব্যারিস্টার শাকিলার ৪৮ ঘণ্টা এবং অপর দুই আইনজীবীর ৩২ ঘণ্টা করে রিমান্ড মঞ্জুর করেন। এখন তদন্তে আসল রহস্য উদঘাটিত হওয়ার আশাবাদ ব্যক্ত করেন তিনি।

এদিকে শহীদ হামজা ব্রিগেড (এসএইচবি) নেতা মনিরুজ্জামান মাসুদের অ্যাকাউন্টে পাঠানো এক কোটি আট লাখ টাকা হেফাজতের মামলাসংক্রান্ত বিষয়ে নিয়েছিলেন। আসামিদের জামিন নিতে না পারায় সেই টাকা হামজা ব্রিগেডের মনিরুজ্জামান মাসুদের ব্যাংক অ্যাকাউন্টে ফেরত দিয়েছেন- শাকিলা এমন দাবির পরিপ্রেক্ষিতে হেফাজত নেতারা বলছেন ভিন্ন কথা।

মুঠোফোনে এ ব্যাপারে যোগাযোগ করা হলে হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশের সাংগঠনিক সম্পাদক আজিজুল হক ইসলামাবাদী বলেন, আমাদের মামলা পরিচালনা করতে ব্যারিস্টার শাকিলা ফারজানাকে কোনো টাকা দিইনি। তিনি আমাদের কোনো মামলা পরিচালনা করেন না। ব্যারিস্টার ফারজানার সাথে মামলাসংক্রান্ত বিষয়ে হেফাজতের কোনো নেতাকর্মী যোগাযোগ করেননি। এসব কথা উদ্দেশ্যপ্রণোদিত। এত বেশি চালাকি ভালো নয়। হেফাজতের কথা ফারজানা বলেছেন নাকি অন্য কেউ তাকে বলতে বাধ্য করছেন তাও বের করা উচিত।

কোনো সন্ত্রাসী কিংবা জঙ্গির সাথে হেফাজতের কোন সম্পর্ক নেই দাবি করে ইসলামাবাদী বলেন, প্রশাসনের ভেতরে কিছু কুচক্রি মহল রয়েছে যারা এসব করছে। হেফাজতে ইসলাম, হাটহাজারী মাদ্রাসা, হেফাজত আমির আল্লামা শাহ আহমদ শফী, বিএনপি নেতা ওয়াহিদুল আলম সবকিছু একসাথে করে ধুম্রজাল সৃষ্টি করা হচ্ছে। কিছুদিন আগে মাদ্রাসা আবু বকর থেকে কিছু ছাত্রকে গ্রেপ্তার করে জঙ্গি নাটক সাজানো হয়েছে। এ ঘটনায় হাটহাজারী মাদ্রাসাকে জড়াতে না পেরে এটি আরেকটি নাটক করছে। আমরা নিষেধ করছি এসব না করতে।

হেফাজত নেতার দাবি, কিছু বিদেশি এজেন্ট আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর ভেতরে কাজ করছে। যারা এদেশকে জঙ্গি রাষ্ট্রে রূপ দিতে চেষ্টা করছে।

ব্যারিস্টার শাকিলা ফারজানার আইনজীবীরাও বলেছেন শাকিলা হেফাজতের মামলা পরিচালনা করছেন এ প্রসঙ্গে ইসলামাবাদী বলেন, আইনজীবীরা বললে তো আর হবে না। আওয়ামী লীগের মস্তিষ্ক-বিকৃত কিছু নেতা এবং অতি উৎসাহী কিছু কর্মকর্তা বিএনপি নেতার মেয়েকে দিয়ে এ নাটক সাজিয়েছে। হেফাজতে ইসলাম আল্লাহর রাস্তায় কাজ করছে। টাকা দেয়া দূরে থাক, হেফাজতের কোনো ব্যাংক অ্যাকাউন্টও নেই। তাছাড়া মনিরুজ্জামান মাসুদ নামে ঢাকা কিংবা চট্টগ্রামে হেফাজতের কোনো দায়িত্বশীল ব্যক্তিও নেই।

প্রসঙ্গত, জঙ্গি সংগঠন শহীদ হামজা ব্রিগেডে অর্থের যোগান দেয়ার অভিযোগে গত ১৮ আগস্ট ব্যারিস্টার শাকিলা ফারজানাসহ তিন আইনজীবীকে ঢাকা থেকে গ্রেপ্তার করেছে র‌্যাব-৭। গত ১৯ আগস্ট তাদের সিএমএম আদালতে তোলা হয়। আদালত তাদের চার দিন করে রিমান্ড দেন। গত ২৩ আগস্ট বাঁশখালী আদালতে জবানবন্দি দেন তিন আইনজীবী।

বাঁশখালী আদালতের সহকারী পাবলিক প্রসিকিউটর (এপিপি) অ্যাডভোকেট বিকাশ রঞ্জন ধর বলেন, তিন আইনজীবী জবানবন্দিতে পরোক্ষভাবে জঙ্গি অর্থায়নের বিষয়টি স্বীকার করে নিয়েছেন। তারা জঙ্গি নেতা মনিরুজ্জামানকে টাকা দেয়ার কথা স্বীকার করেছেন। হেফাজতের মামলা পরিচালনার কথাও বলেছেন। কিন্তু মনিরুজ্জামান তো হেফাজতের নেতা নন। তিনি হামজা ব্রিগেডের শীর্ষ নেতা। গ্রেপ্তারকৃতরা টাকা দিয়েছেন জঙ্গি সংগঠন হামজা ব্রিগেডকে, আর বলেছেন এসব টাকা হেফাজতের মামলা পরিচালনার জন্য নিয়েছিলেন- এটা তো স্ববিরোধী বক্তব্য।

হেফাজতের নেতা না হয়েও এসএইচবির শীর্ষ নেতা মনিরুজ্জামান মাসুদের অ্যাকাউন্টে শাকিলার টাকা পাঠানো প্রসঙ্গে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা র‌্যাবের সহকারী পুলিশ সুপার রুহুল আমিনের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি ঢাকাটাইমসকে জানান, বিপুল পরিমাণ জঙ্গি অর্থায়নের মূল হোতার পরিচয় সম্পর্কে জবানবন্দিতে কম বেশি তথ্য দিয়েছেন তিন আইনজীবী। মনিরুজ্জামান মাসুদের অ্যাকাউন্টে কেন টাকা দেয়া হয়েছে তদন্তে সবকিছু উঠে আসবে।

জঙ্গি গোষ্ঠীর সাথে সম্পর্ক থাকার বিষয়ে হেফাজতের অস্বীকার প্রসঙ্গে তিনি বলেন, তাহলে লালখান বাজারে হেফাজত নেতা মুফতি ইজহারের মাদ্রাসায় গ্রেনেড বিস্ফোরণে শহীদ হামজা ব্রিগেডের বোমা বিশেষজ্ঞ নুরুন্নবী মারা গেল কেন।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর এক কর্মকর্তা জানান, জঙ্গি সংগঠন শহীদ হামজা ব্রিগেড গঠনে মূল পরিকল্পনায় ছিলেন আটজন। এর মধ্যে নীল গ্রুপের নেতা ছিলেন, আজিজ ওরফে তারেক, সবুজ গ্রুপে মনিরুজ্জামান মাসুদ ও সাদা গ্রুপের দায়িত্বে ছিলেন খালেদ ওরফে রাকিব। এছাড়া দাওয়া উইংয়ের নেতা ছিলেন নাছির ও মিডিয়া উইংয়ে আবদুল্লাহ দায়িত্ব পালন করতেন। বিস্ফোরক ও বোমা সরবরাহ করতেন আনোয়ার হোসেন এবং অস্ত্র সরবরাহ করতেন সাতকানিয়ার মোজাহের।

গত ৫ জানুয়ারি কাজির দেউড়িতে বিএনপির সমাবেশ থেকে মাসুদকে গ্রেপ্তার করে কোতোয়ালী থানা পুলিশ। এর দুদিন পর (৭ জানুয়ারি ২০১৫) জেল গেট থেকে এসএইচবির আরেক শীর্ষ নেতা আজিজকে মোটর সাইকেলসহ গ্রেপ্তার করে কোতোয়ালী থানা পুলিশ। পরবর্তী সময়ে আজিজের বাঁশখালীর লটমনি পাহাড়ের খামার এবং হালিশহরের বাসা থেকে বিপুল পরিমাণ অস্ত্র ও গোলাবারুদ উদ্ধার করে র‌্যাব। তারা বর্তমানে কারাগারে রয়েছেন। আজিজের মোটর সাইকেলটি এখনও (চট্ট মেট্টো-ল-১২-৭৫২৭) কোতোয়ালী থানা হেফাজতে রয়েছে।

অনুসন্ধানে জানা যায়, মুফতি হারুনের সাথে যোগাযোগ ছিল ব্যারিস্টার শাকিলা ফারজানার। হারুনের শ্বশুরবাড়িও হাটহাজারীতে। আর হেফাজতের বিরুদ্ধে দায়ের করা মামলা পরিচালনার বিষয়টি যোগাযোগ করেন মুফতি হারুন। হেফাজতের সাথে জড়িত নেজামে ইসলামী পার্টির একজন নেতাও এসব বিষয়ে জানতেন। গ্রেনেড বিস্ফোরণের মামলায় হারুন গ্রেপ্তার হয়ে কারাগারে গেলেও যোগাযোগ বন্ধ করেনি এসএইচবির সাথে। কারাগারে গিয়ে পরামর্শ করতে আলোচিত মনিরুজ্জামান মাসুদ পুলিশের কাছে ধরা দিয়েছেন বলে ধারণা করা হচ্ছে।

সূত্র আরও জানায়, জঙ্গি এ গ্রুপের সদস্যরা বিভিন্ন মেয়াদে এক কোটি ৩৮ লাখ ৭০ হাজার টাকার তহবিল সংগ্রহ করেন। এর মধ্যে সংগঠনটির শীর্ষ নেতা মনিরুজ্জামান মাসুদের অ্যাকাউন্টে এক কোটি ৮ লাখ টাকা প্রদান করেন তিন আইনজীবী। দুই দফায় ৫২ লাখ টাকা প্রদান করেন ব্যারিস্টার শাকিলা ফারজানা, ৩১ লাখ টাকা প্রদান করেন অ্যাডভোকেট মো. হাসানুজ্জামান লিটন ও ২৫ লাখ টাকা প্রদান করেন অ্যাডভোকেট মাহফুজ চৌধুরী স্বপন। এসএইচবি জঙ্গিরা এসব অর্থ অস্ত্র, বিস্ফোরক, বাসা ভাড়া, সামরিক ট্রেনিংয়ের পেছনে খরচ করতেন বলে দাবি র‌্যাব পরিচালকের।

র‌্যাব সূত্র জানায়, ২০১৩ সালের নভেম্বরে জঙ্গি এ সংগঠনটি গঠন করা হয়। নগরীর ফয়স লেকে প্রথম বৈঠক করেন জঙ্গি সংগঠনের নেতারা। সবুজ, নীল ও সাদা তিনটি বিভাগ রয়েছে এইচএসবিতে। শাকিলা ফারজানা বিএনপির কেন্দ্রীয় তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক এবং সাবেক হুইপ সৈয়দ ওয়াহিদুল আলমের মেয়ে। তিনি বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ফোরামের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক।






মন্তব্য চালু নেই