মেইন ম্যেনু

কালীগঞ্জের হাটচাদনী ঝুঁকিপূর্ণ, ঘটতে পারে বড় ধরনের দুর্ঘটনা

এসএম হাবিব, কালীগঞ্জ (ঝিনাইদহ) প্রতিনিধি : ঝিনাইদহের কালীগঞ্জ পৌরসভার পুরাতন হাট চাদনী জনাকীর্ণ ও ঝুঁকিপূর্ণ অবস্থায় রয়েছে। যে কোন সময় ভেঙ্গে পড়ে বড় ধরনের দুর্ঘটনা ঘটতে পারে বলে সেখানকার ব্যবসায়ীদের অভিযোগ। এর আগে ৮ বছর আগে চাদনীর ছাদ ভেঙ্গে অজয় সাহা নামের এক ব্যবসায়ী নিহত হন। সেই সময় থেকে ব্যবসায়ীরা এটি সংস্কার বা ভেঙ্গে নতুন করে বহুতল মার্কেট এর দাবি তোলেন। জরুরী ভিত্তিতে এটি সংস্কার অথবা বহুতল ভবন করার দাবি তাদের।

স্থানীয় ব্যবসায়ীরা জানান, কালীগঞ্জ পৌরশহরের মধুগঞ্জ বাজারে আশির দশকে এই একতলা বিশিষ্ট চাদনি হাটটি নির্মাণ করা হয়। এখানে ১৫৩টি খোলা (খোপ) দোকান আছে। এক একটি দোকানে ৪ জন করে ব্যবসায়ী ব্যবসা করে। কেউ বা চাল, কেউবা মুদি, কেউবা কাঁচা তরকারি, কেউ বা মাছ-মুরগি, মাংসের দোকান দিয়ে। কিন্তু ২০০৭ সালের দিক থেকে হাট চাদনির ছাদ খসে খসে পড়ে থাকতে দেখা যায়। সে সময় একজন ব্যবসায়ী ছাদটি ভেঙ্গে মারাও যায়। এর পর ব্যবসায়ীরা বাঁচতে মাথার ওপর বাঁশ দিয়ে চাটাই তৈরি করে মাচা তৈরি করে। তারা পৌরসভার মেয়র, স্থানীয় সংসদ সদস্য ও স্থানীয় প্রশাসনের কাছে ধর্না দিতে থাকে। ব্যবসায়ীরা অভিযোগ করেন, কয়েক বছর আগে পৌর কর্তৃপক্ষ ব্যবসায়ীদের জানায় তারা জনপ্রতি ১ লাখ টাকা করে দিলে এটি বহুতল মার্কেট করা হবে। এর পর থেকে আর কোন কার্যক্রম দেখা যায়নি। ব্যবসায়ীরা বলেন তারা জীবন হাতে নিয়ে পেটের তাগিদে ব্যবসা করছেন।

হাটচাদনী ঝুঁকিপূর্ণ, ঘটতে পারে বড় ধরনের দুর্ঘটনা। কালীগঞ্জ হাটচাদনী সমিতির সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর হোসেন মনি জানান, আমরা যারা এই চাদনীতে ব্যবসা করি তারা সকলেই জীবনের ঝুঁকি নিয়ে ব্যবসা করি। প্রায় প্রতিদিনই ছাদ ধসে ধসে পড়ছে। মাছ ও মুরগী বাজারে যে টিনের ছাউনি আছে সেটাও ফুটো হয়ে গেছে। যে কোন সময় এই চাদনীটি ভেঙে বড় ধরনের ক্ষয়-ক্ষতি হতে পারে। আমরা এটি সংস্কার ও বহুতল মার্কেট করার জন্য পৌরসভা ও প্রশাসনের কাছে দাবি করে আসছি।

তিনি জানান, এই বাজারে প্রায় ৮১৫ জন ব্যবসায়ী ব্যবসা করে। কালীগঞ্জ পুরাতন চাদনী মার্কেটটি অগ্রাধিকার ভিত্তিতে ভেঙে নতুন করে বহুতল মার্কেট করার দাবি জানান তিনি।

কালীগঞ্জ পৌরসভার মেয়র মকছেদ আলী বিশ্বাস জানান, পুরাতন হাট চাদনিটি সত্যিই জনাকীর্ণ ও ঝুঁকিপূর্ণ। যে কোন সময় বড় ধরনের ক্ষয়-ক্ষতি হতে পারে যদি এটি ভেঙে পড়ে। আমি ক্ষমতায় আসার পর এটি বড় ও বহুতল মার্কেট করার জন্য বিভিন্ন দফতরে যোগাযোগ করেছি। এ বিষয়ে স্থানীয় সংসদ সদস্য আনোয়ারুল আজীম আনার আন্তরিক ও সার্বিক সহযোগিতা করছেন। তিনি আরো জানান, এ বিষয়ে নিয়ে চাদনীর ব্যবসায়ী নেতাদের সাথেও আলোচনা হয়েছে। আমরা বড় ধরনের সরকারি বরাদ্দ পেলেই এটি নির্মাণের উদ্যোগ নেব।






মন্তব্য চালু নেই