মেইন ম্যেনু

কিছু বদ অভ্যাসেরও রয়েছে ভালো দিক

মানুষ মাত্রই আলাদা ধরণ, ভিন্ন মনন। তবে পারফেক্ট মানুষ খুঁজে পাওয়া কঠিন। আপনি নিজেও হয়তো এ বিষয়ে এক মত হবেন। কেননা ভালো অভ্যাস বা আচরণের পাশাপাশি প্রত্যেকেরই কিছু না কিছু বদ অভ্যাস রয়েছে। সে সব কারণে প্রিয়জনের কাছেও অপ্রিয় হতে পারেন আপনি।

তবে মজার বিষয় কি জানেন, কিছু বদ অভ্যাসেরও রয়েছে ভালো কিছু দিক। যা আপনাকে রাখতে পারে সুস্থ্য৷ তাই সেসব বদঅভ্যাস অল্প বিস্তর থাকলে ক্ষতি নেই৷ তবে মনে রাখবেন কোনো কিছুই অতিরিক্ত ভালো নয়৷

কফির প্রতি আসক্তি

অনেকেই কফিতে আসক্ত। তাদের দিনের শুরুতে এক কফি না হলে দিনের শুরু হতে চায় না। আবার দিনের ক্লান্তি দূর করে কাজে মনোযোগ ফিরিয়ে আনতে কফির কাপের দৃষ্টি থাকে না কার? এটাকে বদভ্যাস মনে করলেও দুই এক কাপ কফি আপনার মানসিক শক্তি বাড়ায় এ কথা সত্যি। তার পাশাপাশি কমিয়ে আনতে পারে টাইপ টু ডায়াবেটিসের ঝুঁকিও। তবে বিকেলের পর কফি পান না করাই ভালো। কারণ এতে আমাদের ঘুমের ব্যঘাত হতে পারে।

ঘুমকাতুরে

ঘুমকে বেশি ভালোবাসেন অনেকেই৷ এমন অনেকেই আছেন যারা একটু ফুসরত পেলেই ঘুমিয়ে নিতে পছন্দ করেন৷ ঘুমে আসলে খারাপ কিছুই নেই। দিনে অন্তত ৭-৯ ঘন্টা ঘুমানোটা স্বাস্থ্য ভালো রাখার জন্য জরুরী একথা আমরা সবাই জানি। তবে এর ব্যতিক্রমও আছে, অনেকে এর থেকে কম ঘুমিয়েও ঠিক থাকেন। এক একজনের শারীরিক চাহিদা অনুযায়ী তার শরীরে ঘুমের প্রয়োজন রয়েছে৷ আর সেই অনুযায়ী আপনি যদি ঘুমিয়ে নিতে পারেন তাহলে আপনারই শারীরিক লাভ।

আস্তে ধীরে কাজ করা

একটা কাজ করার আগে ভালো করে ভেবে চিন্তেই কাজ করা উচিত৷ তাতে কাজটি অনেক সুষ্ঠভাবে করা যায়। একসঙ্গে অনেকগুলো কাজ করতে গেলে তাতে চাপও পড়ে আর কাজে ভুলও বেশি হয়। সেই কারণে কাজের ধরণ বুঝে একটু সময় নিয়ে কাজ করাই ভালো।

চকলেটে আসক্তি

অতিরিক্ত চকলেট যে কারোও পক্ষেই ভালো নয় তা সবাই জানে। কিন্তু চকলেটের লোভ সামলাতে পারেন না অনেকেই! মন খারাপ থাকলে এক টুকরো চকলেট খুশি করে দেয় অনেককেই৷ কিন্তু প্রচুর চিনি দেওয়া চকলেটের বদলে ডার্ক চকলেট খাওয়া শুরু করুন। চকলেটের চাহিদাও মিটবে, স্বাস্থ্যেরও উপকার হবে। এতে আপনার হৃৎপিণ্ড ভালো থাকবে, স্মৃতি ভালো হবে এমনকি ওজনও কমবে। তাই চকলেট খেতে আর কোনও মানা নেই৷

একা থাকা মানে অসামাজিক নন

অনেকেই আছেন যারা একা থাকতে পারেন না৷ সবসময় বন্ধুদের সঙ্গ খোঁজেন৷ আবার এমন অনেকে আছেন যারা একাই থাকতে পছন্দ করেন বেশি৷ ফলে তাদের অনেকেই ভাবেন অসামাজিক৷ কিন্তু মনোবিদরা বলেন অনেকের মধ্যে থাকতে থাকতে আমরা হরিয়ে ফেলছি নিজেদেরই৷ আমরা ভুলে যাচ্ছি নিজেদের বুঝতে জানতে৷ তার থেকে নিজেদের একটু গুটিয়ে মাঝে মধ্যে নিজেদের শখের পিছনে একান্তভাবে সময় দেওয়াও প্রয়োজন৷ নিজেকে ভালোবাসাও প্রয়োজন৷






মন্তব্য চালু নেই