মেইন ম্যেনু

কুড়িগ্রামের রাজারহাট উমরমজিদে আ’লীগ প্রার্থীর মধ্যে সংঘর্ষ : আহত ২০

কে,এম, গোলাম রব্বানী, কুড়িগ্রাম প্রতিনিধি: কুড়িগ্রাম জেলার রাজারহাট উপজেলার উমর মজিদ ইউনিয়নে শনিবার সন্ধ্যায় আওয়ামীলীগের চেয়ারম্যান প্রার্থী নির্বাচনকে কেন্দ্র করে দফায় দফায় সংঘর্ষে ২০জন আহত হয়েছে। এরমধ্যে জেলা আওয়ামীলীগের ধর্ম বিষয়ক সম্পাদক ও উমরমজিদ ইউনিয়ন কাউন্সিলরদের ভোটে নির্বাচিত চেয়ারম্যান প্রার্থী মোহাম্মদ আলী সরদার (৬৫) এর অবস্থা গুরুত্বর। তাকে সজ্ঞাহীন অবস্থায় কুড়িগ্রাম সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। অন্যদের রাজারহাট হাসপাতাল ও স্থানীয় স্বাস্থ্য কেন্দ্রে ভর্তি করা হয়েছে। রাজারহাট থানার অফিসার ইনচার্জ আব্দুর রশিদের নেতৃত্বে অতিরিক্ত পুলিশ এবং কুড়িগ্রাম থেকে অতিরিক্ত দাঙ্গা পুলিশ ঘটনাস্থলে মোতায়েন করা হয়েছে।

রাজারহাট উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক আবুনুর মোঃ আক্তারুজামান জানান, শনিবার বিকালে উমরমজিদ ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের বর্ধিতসভা ফরকেরহাট কেরামতিয়া উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে অনুষ্ঠিত হয়। উমরমজিদ ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি আব্দুল জব্বারের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসাবে বক্তব্য রাখেন জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক সাবেক এমপি মোঃ জাফর আলী। অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন-চাষী করিম, আব্দুস সালাম মাস্টার, আবুনুর মোঃ আক্তারুজামান, আব্দুস সোবহান মাস্টার, মোহাম্মদ আলী সরদার, জহুরুল ইসলাম তালুকদার (ময়নাল), সাজেদুর রহমান মন্ডল চাঁদ প্রমুখ।

পরে দলীয় চেয়ারম্যান প্রার্থী নির্বাচনের প্রার্থী হন জেলা আওয়ামীলীগের ধর্ম বিষয়ক সম্পাদক ও সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান মোহাম্মদ আলী সরদার ও উমরমজিদ ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জহুরুল ইসলাম তালুকদার (ময়নাল)। এ সময় তাৎক্ষণিক নির্বাচন কমিশন গঠন করে গোপন ব্যালটের মাধ্যমে ভোট গ্রহন করা হয়। ৮৩জন কাউন্সিলরের মধ্যে ৮১জন ভোটাধিকার প্রয়োগ করে। সন্ধ্যা ৬টার দিকে নির্বাচন কমিশনার জেলা আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি চাষী করিম ফলাফল ঘোষনা করে। মোহাম্মদ আলী সরদার ৫২ ভোট পেয়ে দলীয় ভাবে চেয়ারম্যান প্রার্থী নির্বাচিত হন। আর তার নিকটমত প্রতিদ্বন্দ্বি জহুরুল ইসলাম তালুকদার (ময়নাল) পায় ২৯ ভোট।

ফলাফল ঘোষনা করার পর জেলা ও উপজেলা নেতারা স্থান ত্যাগ করলে পরাজিত প্রার্থী জহুরুল ইসলাম তালুকদার (ময়নাল) ৩০/৩৫জন সঙ্গি-সাথি নিয়ে আকস্মিকভাবে হামলা করে। তাদের হাতে ছিল লাঠি, রামদাসহ দেশী ধারালো অস্ত্র। এ সময় মোহাম্মদ আলী সরদারের মাথা ফেটে যায়। আহত হয় আরো কয়েকজন নেতাকর্মী। এরপর দফায় দফায় সংঘর্ষ বাঁধে। কয়েক দফা সংঘর্ষে কমপক্ষে ২০জন আহত হয়।
কুড়িগ্রাম হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডা. নজরুল ইসলাম জানান, আহত মোহাম্মদ আলী সরদার এখন আশংকামুক্ত।

রাজারহাট থানার অফিসার ইনচার্জ আব্দুর রশিদ জানান, রাজারহাট থানা পুলিশ ও কুড়িগ্রাম থেকে আসা অতিরিক্ত দাঙ্গা পুলিশ ঘটনাস্থলে মোতায়েন করা হয়েছে। সন্ধ্যা ৭টার পর থেকে পরিস্থিতি সম্পুর্ণ পুলিশের নিয়ন্ত্রণে রয়েছে। এখন পর্যন্ত কোন পক্ষ মামলা দায়ের করেনি।






মন্তব্য চালু নেই