মেইন ম্যেনু

কুয়াশায় সর্বোচ্চ গতি ৫০: মানা হচ্ছে না নির্দেশ

কুয়াশার মধ্যে সড়ক, মহাসড়কে গাড়ি চালানোর সময় যানবাহনের সর্বোচ্চ গতিসীমা ঘণ্টায় ৫০ কিলোমিটার বেঁধে দিলেও কুমিল্লার বিভিন্ন সড়ক-মহাসড়কে এর প্রয়োগ তেমনটি দেখা যায়নি।

শুক্রবার ভোরে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে দেখা গেছে ঘন কুয়াশাতেও যানবাহন দ্রুতগতিতে চলাচল করছে। বিশেষ করে পণ্যবাহী ট্রাক।

কুয়াশার মধ্যে সড়ক, মহাসড়কে গাড়ি চালানোর সময় মঙ্গলবার সচিবালয়ে জাতীয় সড়ক নিরাপত্তা কাউন্সিলের সভায় সিদ্ধান্ত নেয়া হয় যে ঘন কুয়াশাতে যানবাহনের সর্বোচ্চ গতিসীমা ঘণ্টায় ৫০ কিলোমিটার মধ্যে থাকতে হবে।

সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের ওই দিনই সভা শেষে সভা শেষে সাংবাদিকদের কাছে এ সিদ্ধান্তের কথা জানান।

মন্ত্রী বলেন, ‘যানবাহনের গতি সর্বোচ্চ ৪০ থেকে ৫০ কিলোমিটারের মধ্যে রাখতে হবে এবং চলন্ত গাড়িগুলোকে অবশ্যই ফগলাইট জ্বালিয়ে রাখতে হবে। প্রয়োজন হলে ঘন কুয়াশার সময় যানবাহন চলাচল বন্ধ রাখা হবে।’

তবে এ আইনটি সম্পর্কে অবগত নয় অনেক চালক। যাত্রীদের তাড়াহুড়ার কারণেই যানবাহন দ্রুতগতে চালাতে হচ্ছে বলে দাবি করেন অনেক চালক। আবার কেউ কেউ বলছেন বেধে দেয়া সময়সীমার মধ্যে গন্তব্যে পৌঁছাতে ব্যর্থ হলে করা হয় জরিমানা। এসব কারণেও যানবাহন দ্রুতগতিতে চালাতে হচ্ছে।

সম্প্রতি কুয়াশার কারণে বেশ কিছু দুর্ঘটনায় প্রাণহানি হয়েছে। আহতও হয়েছেন অনেকে। গত শনিবার বঙ্গবন্ধু সেতুতে কুয়াশার কারণে পরপর কয়েকটি দুর্ঘটনা ঘটে। এসব দুর্ঘটনায় ভূমিমন্ত্রীর ছেলেসহ অন্তত ৭ জন নিহত হন।






মন্তব্য চালু নেই