মেইন ম্যেনু

কৃত্রিম যৌন সুখের সন্ধানে যে দেশের নারীরা

রোমান্স এবং শিল্প-সংস্কৃতির দেশ হিসেবে ফ্রান্সের বেশ সুনাম রয়েছে। তবে শারীরিক সুখ উপভোগের ক্ষেত্রে পিছিয়ে আছে ফ্রান্সের নাগরিকরা। সাম্প্রতিক এক জরিপের ফলাফলে দেখা যাচ্ছে, ফ্রান্সের নারীরা কৃত্রিম উপায়ে যৌনসুখ উপভোগে শীর্ষে অবস্থান করছেন।

ফ্রান্স, যুক্তরাষ্ট্র, স্পেন, যুক্তরাজ্য, ইতালি, কানাডা, নেদারল্যান্ড, জার্মানির আট হাজার নারীর ওপর জরিপটি চালানো হয়। জরিপে দেখা যাচ্ছে, ফ্রান্সের বেশিরভাগ নারী তাদের সঙ্গীর সঙ্গে সর্বোচ্চ যৌন সুখ উপভোগ করতে পারেন না।

বিশেষজ্ঞরা বলেন, এটা সংস্কৃতিক কারণে হতে পারে। ফ্রান্সের বিবাহিত দম্পতিরা এখনো পুরোনো পদ্ধতিতে যৌন সম্পর্কে বেশি অভ্যস্ত। যার কারণে ফ্রান্সের নারীরা সবসময় সর্বোচ্চ যৌন সুখটি উপভোগ করার সুযোগই পান না।

জরিপটি চালানো হয় আন্তর্জাতিক অর্গাজম দিবস উপলক্ষে। জরিপে দেখা যায়, ৪৯ শতাংশ ফরাসি নারী সঙ্গীর সঙ্গে সর্বোচ্চ যৌন সুখ না পাওয়ার কথা অকপটে স্বীকার করেছেন। যুক্তরাজ্যে এই সংখ্যা ৪১ শতাংশ।

ব্রিটেনের এক চতুর্থাংশ নারী কৃত্রিম উপায়ে যৌন সুখ পাওয়ার চেষ্টা করেন। আর ফরাসি নারীদের ক্ষেত্রে আরও ছয় ভাগ বেশি অর্থাৎ ৩১ শতাংশ।

বিশেষজ্ঞরা বলেন, মানসিক বা শারীরিক চাপ এবং অবসন্নতার কারণেই যৌন সম্পর্কের ক্ষেত্রে এ ব্যাপারটি ঘটতে পারে।

ইনস্টিটিউট অব ফ্রান্স পাবলিক ওপিনিয়নের কর্মকর্তা ফ্রাঙ্ক কারোস বলেন, এটি যৌন সম্পর্কের সঠিক শর্ত হতে পারে না।

জরিপে দেখা যায়, ৮০ শতাংশ নারী হস্তমৈথুনকে প্রাধ্যন্য দিয়ে থাকে।

তবে সবচেয়ে ভারসাম্যপূর্ণ যৌন সুখ পায় ডেনমার্কের নারীরা। তাদের ৫৮ শতাংশ সপ্তাহে অন্তত একদিন সর্বোচ্চ উপভোগ করে থাকেন।






মন্তব্য চালু নেই