মেইন ম্যেনু

কেউ আপনাকে ছোট করছে? পরিস্থিতি সামলান এ ভাবে

কিছু দিন হল অফিসে ঢুকেই মুড অফ হয়ে যাচ্ছে তৃষা। তাকে যেনতেন প্রকারেণ ছোট করার চেষ্টা করছে প্রিয়ঙ্কা। তৃষা বুঝতে পারছে প্রিয়ঙ্কা তাকে হিংসে করে, নিজেকে নিয়ে হীনমন্যতায়ও ভোগে। সেটাই পরিণত হয়েছে ঘৃণায়। কিন্তু কিছুতেই প্রিয়ঙ্কার চিন্ত মাথা থেকে দূর করতে পারছে না। জেনে নিন এমনটা হলে কী ভাব পরিণত আচরণে মোকাবিলা করবেন এদের।

স্বাভাবিক আচরণ: এদের প্রতি খুব স্বাভাবিক আচরণ করুন। দেখা হলে হাসুন, কথা বলুন। এমন প্রতিক্রিয়া দেখাবেন না যাতে এরা মনে করেন আপনার ওপর কোনও প্রভাব পড়ছে।

কনফিউজ করে দিন: আপুনার প্রতিক্রিয়া দেখে এরা মজা পান। তাই এমন আচরণ করুন, হাসুন, নির্লিপ্ত থাকুন যে এরা কনফিউজড হয়ে যান।

হাসি: যতই এরা ঘৃণা করুন না কেন আপনি কখনই হাসা বন্ধ করবেন না। এদের দেখে হাসুন। আপনি গোমড়া মুখে থাকলে এরা খুশি হবেন।

এড়িয়ে চলুন: যদি এদের মুখোমুখি হতে না হয় বা কোনও কাজ এক সঙ্গে করতে না হয় তাহলে যতটা সম্ভব এড়িয়ে চলুন এদের।

সমালোচনা এড়িয়ে চলুন: সমালোচনা আমাদের মধ্যে নেগেটিভ ইমোশন তৈরি করে। তাই সমালোচনায় কান দেবেন না।

শুনুন: কখনও কখনও সমালোচনার মধ্যে এমন কথাও থাকে যা শুনলে আপনার নিজেরই সুবিধা। তাই মাঝে মাঝে মন দিয়ে শুনুন কী বলছেন এরা।

সময়: কোনও ঘৃণ্য কথা শোনার সঙ্গে সঙ্গে জবাব দেওয়ার প্রয়োজন নেই। নিজেরে ১০ মিনিট সময় দিন। ভেবে নিন কী বলবেন তারপর উত্তর দিন।

নিশ্চিন্তে থাকুন: সব সময় প্রতিক্রিয়া দেখানোর বা জবাব দেওয়ার প্রয়োজন নেই। নিশ্চিন্তে ঘুমোন। প্রতিক্রিয়া না পেলে এরা এমনই থেমে যাবে।

পরিবর্তন: অনেক সময় সমলাচনার কিছু পজিটিভ দিকও থাকে। ভেবে দেখুন নিজেকে উন্নত করতে কিছু পরিবর্তন করা যায় কিনা। যদি তেমন কিছু না পান, তাহলে যেমন রয়েছেন, তেমনই থাকুন।

দৃষ্টি আকর্ষণ: যারা আপনাকে ঘৃণা করবে তারা আফনার দৃষ্টি আকর্ষণেরও চেষ্টা করবে। এদের দেখে হাসুন, কথা বলুন কিন্তু বেশি পাত্তা দেবেন

অভিনয়: এমন অভিনয়, হাব, ভাব করুন যেন আপনি বুঝতেই পারছেন না যে আপনাকে কেউ ঘৃণা করছে।

মধ্য মেধা: সকলের কাছে নিজেকে পছন্দসই করে তোলা মধ্য মেধার পরিচয়। কেউ না কেউ আপনাকে ঘৃণা করবেই। জয়প্রিয়তা পাওয়ার চেষ্টা মোটেও ভাল বিষয় নয়।

বেশি ভাবা: অনেকেই এ সব নিয়ে ভাবতেই থাকেন। আপনি যত বেশি ভাববেন তত এদেরকে বেশি গুরুত্ব দেওয়া হবে। তাই বেশি ভাববেন না।

ঝেড়ে ফেলুন: একটা বিষয় যতটা না গুরুতর তার চেয়ে বেশি আমরা সেটাকে গুরুত্ব দিয়ে বাড়াতে থাকি। তাই যত তাড়াতাড়ি সম্ভব ঝেড়ে।আনন্দবাজার






মন্তব্য চালু নেই