মেইন ম্যেনু

কেজরিওয়ালের বিরুদ্ধে অন্য অভিযোগ কালি ছোঁড়া তরুণীর

দিল্লির রাজপথে দূষণ নিয়ন্ত্রণ করতে সম্প্রতি জোড়-বেজোড় সংখ্যার গাড়ি চালানোর প্রস্তাব দেন দেশটির ওই রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়াল। কিন্তু, সেই প্রকল্পের অন্তরালে কি সক্রিয় হয়ে উঠেছে কোনও জ্বালানি-চক্র? রবিবার কেজরিওয়ালের গায়ে কালি ছুড়ে খবরের শিরোনামে চলে আসা তরুণীর দাবি তেমনই।

ভাবনা অরোরা নামে বিশ বছর বয়সী ওই তরুণীর দাবি, জোড়-বেজোড় নিয়ম দেখতে শুনতে ভাল হতে পারে, কিন্তু এর পেছনে একটি বড় সিএনজি-কেলেঙ্কারি রয়েছে। ভাবনার দাবি, তিনি এই নিয়ে স্টিং অপারেশন চালিয়েছেন। তরুণী জানান, তিনি দিল্লি মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়াল এবং পরিবহণমন্ত্রী গোপাল রাই-এর সঙ্গে দেখা করার চেষ্টা করেন। তবে, কেউই রাজি হননি।

ভাবনা আরও জানান, রাজধানীর সরকারি অনুমোদিত কেন্দ্রগুলি মোটরবাইকের নম্বরের ওপর সিএনজি শংসাপত্র তৈরি করে দিচ্ছে। তরুণী জানান, দুমাস আগে তিনি এমন দুটি কেন্দ্রে গিয়ে স্টিং অপারেশনের মাধ্যমে পুরো বিষয়টি লিপিবদ্ধ করেন।

ভাবনার দাবি, তাই যদি হতে পারে, তাহলে যে কোনও পেট্রোল বা ডিজেল চালিত গাড়ির ওপরও একইভাবে শংসাপত্র মিলতে পারে। ভাবনা আরও জানান, একটি সিলিন্ডারকে পরীক্ষা করতে অন্তত এক ঘণ্টা সময় লাগে। কিন্তু, সরকারি কেন্দ্রগুলি মাত্র ১০ মিনিটেই এই পরীক্ষা করে ফেলছে।

এর প্রতিক্রিয়ায় আপ নেতা অলকা লাম্বা জানান, ভাবনা যদি সত্যিই এই নিয়ে স্টিং করে থাকেন, তাহলে সেই ফুটেজ সংবাদমাধ্যমকে তাঁর দেওয়া উচিত। লাম্বা আরও জানান, দুর্নীতির বিরুদ্ধে ভাবনার কাজের তাঁরা প্রশংসা করেন। এই প্রসঙ্গে তিনি ভাবনার সঙ্গে দেখা করার ইচ্ছাপ্রকাশও করেন। জানান, সব তথ্যপ্রমাণ নিয়ে ভাবনা তাঁর কাছে আসতেই পারেন।

এদিকে, কেজরিওয়ালের উদ্দেশ্যে কালি ছোড়ার ঘটনায় ভাবনাকে এদিন আদালতে তোলা হলে তাকে একদিনের পুলিশ হেফাজতের নির্দেশ দিয়েছেন বিচারক।
প্রসঙ্গত, গতকাল দিল্লির ছত্রসাল স্টেডিয়ামে দিল্লি সরকারের একটি অনুষ্ঠানে মঞ্চে ভাষণরত কেজরিওয়ালকে লক্ষ্য করে কালি ছোড়েন ভাবনা। দাবি করেন, তিনি আম আদমি পার্টি সেনার পাঞ্জাব ইউনিটের প্রধান।






মন্তব্য চালু নেই