মেইন ম্যেনু

কেমন যাবে ২০১৬ সাল

জ্যোতিষ শাস্ত্রের একটি শাখা হচ্ছে জাগতিক জ্যোতিষ বা মান্ডেইন অ্যাস্ট্রোলজি। বিভিন্ন দেশের সামগ্রিক অবস্থা কেমন যেতে পারে তা পূর্বাভাসের জন্য বিভিন্ন পদ্ধতি রয়েছে। এখানে আমরা র‌্যাফেলস এর মান্ডেইন অ্যাস্ট্রোলজির সূত্র প্রয়োগ করেছি।

২০১৬ সালে বাংলাদেশের সার্বিক পরিস্থিতি কেমন যেতে পারে তা জেনে নিন।

এক নজরে দেখে নেওয়া যাক বছরজুড়ে কেন্দ্রস্থ রবির অবস্থান। ২২ ডিসেম্বর ২০১৫ সকাল ১০টা ৪৭ মিনিটে রবি মকর রাশিতে প্রবেশ করেছে। ২০ মার্চ সকাল ১০টা ৩০ মিনিটে রবি মেষ রাশিতে প্রবেশ করবে। ২১শে জুন সকাল ৪টা ৩৪ মিনিটে রবি কর্কট রাশিতে প্রবেশ করবে। ২২ সেপ্টেম্বর ২০টা ২১ মিনিটে রবি তুলা রাশিতে প্রবেশ করবে।

প্ল্যাসিডাস পদ্ধতিতে চারটি কেন্দ্রস্থ ঘরে গ্রহাবস্থান ও হাউজ ডিভিশন থেকে এবার চলুন জেনে নেওয়া যাক ২০১৬ সালে কেমন যেতে পারে বাংলাদেশের সার্বিক পরিস্থিতি।

২০১৬ সালের সামগ্রিক গ্রহাবস্থান দেখে আশাকরা যায় বছরটি নানাদিক থেকে বাংলাদেশের জন্য শুভাশুভ ফলাফল বয়ে আনবে।

২২ ডিসেম্বর ২০১৫ সকাল ১০টা ৪৭ মিনিটে রবি কেন্দ্রস্থান মকরে প্রবেশ করবে। এ সময় ফাস্ট হাউজ মীনে অবস্থান করছে কেতু। কেতু গোপন তৎপরতা ও ভুল বোঝাবুঝি সৃষ্টি করে। মীন রাশিতে কেতুর অবস্থান ও স্বক্ষেত্রে বৃহস্পতির দৃষ্টি ধর্মীয় উগ্রবাদীদের গোপন তৎপরতা বাড়িয়ে দিতে পারে। এ সময়ে দেশজুড়ে ধর্মীয় স্থাপনার নিরাপত্তা জোরদারের প্রয়োজন হবে। এসময় দেশের রাজনৈতিক অঙ্গনে উল্লেখযোগ্য কোনো ঘটনা ঘটতে পারে। ফার্স্ট হাউজে কেতুর প্রভাবে সরকারের সঙ্গে বিরোধীদলের ভুলবোঝাবুঝি ও দুরত্ব তৈরি হবে।

২০ মার্চ ২০১৬ সকাল ১০টা ৩০ মিনিট ১০ সেকেন্ডে রবির মেষ রাশির প্রবেশকালীন সময় ফাস্ট হাউজ মিথুন। মিথুন রাশির অধিপতি গ্রহ বুধ অবস্থান করছে দশম হাউজে। এসময় দেশের সামগ্রিক পরিস্থিতিতে শুভাশুভ মিশ্র ফলাফল লক্ষ্য করা যাবে। ২০শে মার্চ থেকে ২১শে জুন পর্যন্ত হাসপাতালে সার্জারি ও দুর্ঘটনায় আহত রোগীর সংখ্যায় আধিক্য দেখা যেতে পারে। বয়ষ্কদের আথ্রাইটিস ও থ্যালাসেমিয়া রোগে আক্রান্তদের জন্য এসময় বাড়তি সতর্কতা ও সহযোগিতার প্রয়োজন হতে পারে। অবৈধপথে বিদেশযাত্রার পথে ঝুঁকি ও ভোগান্তি দুটোই বাড়তে পারে। বিদেশযাত্রা সম্পর্কিত কাজে একশ্রেণীর অসাধু দালালের ততপরতা বেড়ে যেতে পারে। এ বিষয়ে প্রশাসনের হস্তক্ষেপ ও জনসাধারণের মধ্যে সচেতনতা তৈরির কাজ সরকারকেই করতে হবে।

বর্তমান সরকারের জন্য চলতি বছর হবে আন্তর্জাতিক পরিমণ্ডলে সাফল্য অর্জন ও নানামূখী উন্নয়ণ পরিকল্পনায় এগিয়ে যাওয়ার বছর। তবে রহস্যময় গ্রহ নেপচুনের ১০ম ঘরে উপস্থিতি থাকায় জোটের শরীকদের ও বিরোধীদলের অনেকের পক্ষেই সরকারের পরিকল্পনা বুঝে উঠা সহজ হবে না।

দেশের অভ্যন্তরে বিভিন্ন ধরনের অপরাধমূলক কর্মকাণ্ড বৃদ্ধির আশংকা রয়েছে। বিরোধীদলের আন্দোলন কর্মকাণ্ড অব্যাহত থাকবে। তবে তা খুব বেশি সফল হবে কী-না একথা বলা যায় না। সরকার ও বিরোধীদল উভয়ের জন্যই বছরটি চ্যালেঞ্জিং হবে। নৈসর্গিক শুভগ্রহ বৃহস্পতির চতুর্থ হাউজে অবস্থান করায় দেশের সার্বিক স্থিতিশীলতা রক্ষায় সরকার সর্বোচ্চ কার্যকরী ব্যবস্থা করবে। যদিও রাহুর প্রভাবে মাঝে মধ্যেই ধর্মীয় উগ্রবাদীদের উল্থান দেখা যাবে। দেশের বিভিন্ন স্থানে সংঘর্ষ ও হতাহতের ঘটনা বাড়তে পারে।

বছরের শেষ প্র্রান্তিক নাগাদ উচ্চশিক্ষার্থে বিদেশ যাওয়া শিক্ষার্থীদের সংখ্যা বাড়বে। ক্রীড়া নৈপুণ্যে বাংলাদেশের খেলোয়াড়রা আন্তর্জাতিক সম্মানে ভূষিত হতে পারেন। ক্রীড়া ও সংস্কৃতির সঙ্গে জড়িতদের জন্য বছরটি শুভ সম্ভাবনাময়।

টেলিকমিউনিকেশন, গণমাধ্যম ও যোগাযোগ ব্যবস্থায় উল্লেখযোগ্য কোনো পরিবর্তনের দেখা মিলতে পারে। প্রতিবেশী দেশের সঙ্গে এক বা একাধিক বিষয়ে চুক্তির সম্ভাবনা রয়েছে। যোগাযোগ ব্যবস্থার উন্নয়নে গুরুত্বপূর্ণ কোনো পরিকল্পনা নেওয়া হতে পারে।

লেখক : ফজলে আজিম

সদস্য : বাংলাদশে অ্যাস্ট্রোলজার্স সোসাইটি(বিএএস)






মন্তব্য চালু নেই