মেইন ম্যেনু

কোচের পর এবার অধিনায়কত্ব ছাড়লেন হতাশ মামুনুল

ক্রান্তিলগ্নে বাংলাদেশ ফুটবল। বিশ্বকাপ বাছাই পর্বের পর সাফ ফুটবল চ্যাম্পিয়নশিপ।টানা শোচনীয় ব্যর্থতা।প্রথম ম্যাচে আফগানিস্তানের কাছে ৪-০তে বিধ্বস্ত, শনিবার দ্বিতীয় ম্যাচে মালদ্বীপের কাছে ৩-১ গোলে হেরে প্রথম পর্ব থেকেই বিদায় বাংলাদেশের। ব্যর্থতার দায়িত্ব নিয়ে শরিবারই কোচের পদ থেকে সরে দাঁড়ান এক মাস আগে নিয়োগ পাওয়া মারুফুল হক। এবার কোচের পথেই হাঁটলেন অধিনা্য়ক মারুফুল হক। সাফ জানিয়ে দিলেন, সাফ ফুটবলের পরই অধিনায়কত্ব ছেড়ে দিচ্ছেন তিনি।

কোচ মারুফূর হক দায়িত্ব ছেড়ে দেওয়ার ঘোষণা দিয়ে বলেছিলেন, ‘এই দলটির কোন ভবিষ্যত নেই।’ আর টানা দুই ম্যাচে হেরে হতাশ মামুনুল বললেন,‘ আসলে এই দল নিয়ে সামনে এগোনো কষ্টকর। দায়িত্ব নিয়ে নিয়ে সবসময় হারতে চাই না। তাই সিদ্ধান্ত নিয়েছি, ভুটাসের বিপক্ষেই অধিনায়ক হিসেবে আমার শেষ ম্যাচ। আমার অতীত দেখেন, আামি সবসময়ই দলের ওপর আস্থা রেখে কথা বলেছি। কিন্তু এটা যদি বারবার হতে থাকে, তাহলে তা আমার জন্য লজ্জাজনক।’

টিমমেটদের উপর দারুণ হতাশ তিনি। টানা হারের জন্য খেলোয়াড়দের কমিটমেন্টকেই দায়ি করছেন মামুনুল। হতাশ কন্ঠে তিনি বললেন,‘ আমার মানে হচ্ছে দলের প্রতি তাদের সেরকম নিষ্ঠা এবং টান নেই। আমিই সবসময় কথা বলি এবং আত্মবিশ্বাস নিয়ে কথা বলি ।কমিটমেন্ট করি। কিন্তু সেগুলো বারবার ব্যর্থ হয়। তখন আমাকে ফের ব্যর্থতা নিয়ে কথা বলতে হয়। এটা কস্ট দায়ক ও লজ্জাজনক।’

টানা ব্যর্থতার চাপ সইতে না পরার কস্ট থেকেই সরে দাঁড়িয়েছেন তিনি। মামুনুলের কথাতেই সেটা স্পষ্ট। বলেছেন, ‘সিত্য কথা কি, পরাজিত যোদ্ধার চেয়ে মরে যাওয়া যাওয়া যোদ্ধা ভালো। মরে গেলে তো কেউ আর কিছু বলবে না। কিন্তু পরাজিত হলে লোকে দেখা হলেই নানা কথা বলবে।’

অনেক দিন ধরেই বাংলাদেশ ফুটবল নিচের দিকে হাঁটছে। এরই জের ধরে এক মাসের মধ্যে দুজন বিদেশি কোচকে বরখাস্ত করে বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশন। নতুন কোচ হিসেবে নিয়োগ দেওয়া হয় উয়েফা এ ক্যাটাগরির লাইসেন্স প্রাপ্ত কোচ মারুফুল হক। শনিবার তিনি স্বেচ্ছায় পদত্যাগ করেন। কোচের পথ ধরেই অধিনায়কত্ব ছাড়লেন মাঝমাঠের খেলোয়াড় মামুনুল। ক্রান্তিকালের বাংলাদেশ ফুটবল।






মন্তব্য চালু নেই