মেইন ম্যেনু

কোন রোগে কী ভেষজ ঔষধ জেনে নিন

মানুষ আদিকাল হতে তাদের বিভিন্ন রোগের চিকিৎসায় ভেষজ উদ্ভিদ ব্যবহার করে আসছে। ভেষজ উদ্ভিদের ব্যবহার সারা বিশ্বে দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে। উদ্ভিদ হতে মানুষ ঔষধসহ প্রসাধন তৈরী করছে। বাণিজ্যিক স্বার্থে বাংলাদেশও এর ব্যতিক্রম নয়। বাংলাদেশের শতকরা ৮০ জন লোক গ্রামে বাস করে।

গ্রামে বাস করা লোকজন তাদের প্রাথমিক স্বাস্থ্য পরিচর্যায় ভেষজ উদ্ভিদ যুগযুগ ধরে ব্যবহার করে আসছে। বাংলাদেশে প্রায় ৫০০০ উদ্ভিদ প্রজাতি পাওয়া যায়।

এদের মধ্যে অনেকগুলিরই ভেষজ গুনাগুন বিদ্যমান রয়েছে। প্রকৃতপক্ষে কতগুলো উদ্ভিদের ভেষজ গুনাগুন রয়েছে তার সঠিক পরিসংখ্যান না থাকলেও প্রায় এক পঞ্চমাংশ উদ্ভিদের এই গুণাগুণ থাকতে পারে বলে ধারণা করা হয়।

ভেষজ উদ্ভিদ থেকে তৈরি করা ওষুধ প্রাচীনকাল থেকেই মানুষ ব্যবহার ব্যবহার করে আসছে। এতে রোগও যেমন সারে, তেমনই সাইড এফেক্টেরও ভয় নেই।

হাতের কাছে কম দামে পাওয়াও যায়। তাই জেনে নিন, কোন কোন ভেষজে কী কী রোগ সারে। আপনার অনেক কাজে লাগবে।

বাতের রোগ, জ্বরের জন্য- অশ্বগন্ধা পাতার মূল ও বীজ।

কাশি,অ্যাজমা ও জ্বরের জন্য- বাসক পাতা।

শ্বাসকষ্টের জন্য- হরিতকি।

হৃদরোগের জন্য- অর্জুন গাছের ছাল।

আমাশয়, ডায়েরিয়া ও অ্যানিমিয়ার জন্য- আমলকি।

চর্মরোগ, ক্রিমি ও মধুমেহের জন্য- নিমগাছের পাতা।

কোষ্ঠকাঠিন্য, ক্রিমিনাশক, জ্বরের জন্য- ঘৃতকুমারী পাতারা শাঁস।

স্মৃতিশক্তি বাড়াতে, মস্তিষ্ক বিকৃতি রুখতে- ব্রাহ্মীশাক।

জ্বর, সর্দি কাশি, চোখের রোগের জন্য- তুলসী পাতা।

সূত্র: জিনিউজ






মন্তব্য চালু নেই