মেইন ম্যেনু

‘ক্ষুদ্র গডজিলা সমুদ্রের নিচে খাবার খাচ্ছে’

গডজিলার প্রাণিটির নাম শুনেছেন কি? বিশাল দৈত্য আকৃতির একটি প্রাণি।বাস্তবে এ রকম প্রাণি না দেখা গেলেও চলচ্চিত্রে বহুবার দেখে থাকবেন। গডজিলা নিয়ে প্রথম চলচ্চিত্র নির্মাণ করা হয় ১৯৫৪ সালে জাপানে। এরপর হলিউডেও সর্বশেষ ২০১৪ সালে গডজিলার কাহিনি নিয়ে চলচ্চিত্র নির্মাণ করা হয়। জাপানের চলচ্চিত্র নির্মাণকারী প্রতিষ্ঠান তহো এখন পর্যন্ত গডজিলার কাহিনির নিয়ে ২৮টি চলচ্চিত্র নির্মাণ করেছে এবং হলিউডে নির্মাণ করা হয়েছে দুটি চলচ্চিত্র। তবে আজ গডজিলা নিয়ে নির্মিত চলচ্চিত্রের উপাখ্যান করব না। গডজিলার মতো হুবহু দেখতে এমন একটি প্রাণির কথাই আজ পাঠকদের বলব। গডজিলার মতোই দেখতে একটি প্রাণির অসাধারণ ভিডিওটি চিত্রায়ন করেছেন স্টিভ উইনওর্থ। ভিডিওটি ধারণ করা হয়েছে ইকুয়েডরের ওয়ার্ল্ড হেরিটেজ সাইট গালাপাগোসের অন্তর্গত ইসাবেলা দ্বীপের উত্তর উপকূলে।ভিডিও ফুটেজটিতে দেখা যাচ্ছে, সামুদ্রিক ইগুয়ানা(আমেরিকার বিশাল আকৃতির গেছো গিরগিটি) তন্ন তন্ন করে খাবার খুঁজছে। খাবার খাওয়ার পর সে আবার সমুদ্র ওপরে ভেসে ওঠছে। আধুনিক লিজার্ডের তুলনায় তাদের খাবার খোঁজার পদ্ধতি একটু ভিন্ন। গালাপাগোসে এমন অনেক উদ্ভিদ এবং দুর্লভ প্রাণির দেখা মিলে। এই জায়গায়টি ছিল বিবর্তনবাদী এবং ভূবিজ্ঞানী চার্লস ডারউইনের পছন্দের জায়গা। যদিও আশ্চর্যজনক এসব প্রাণির ভক্ত ছিল না ডারউইন। তার লেখা ডায়েরিতে তিনি লিখেছিলেন, সৈকতের কালো লাভা শিলাতে প্রায়ই বৃহৎ আকারে(২-৩ ফুট, ৬০-৯০ ইঞ্চি) বিরক্তিকর কদাকার লিজার্ড দেখা যায়।ভিডিওটি ‘রেডিটে’ পোস্ট করার পর ব্যাপক সাড়া পায়। কারণ ভিডিওটির শিরোনাম দেয়া হয়েছিল ‘ক্ষুদ্র গডজিলা সমুদ্রের নিচে খাবার খাচ্ছে।’






মন্তব্য চালু নেই