মেইন ম্যেনু

ক্ষুব্ধ জয়, খালেদার বাড়ির সামনে প্রতিবাদ করার আহ্বান

বিজয়ের মাসে বেগম খালেদা জিয়া এবং তার দল বিএনপি মুক্তিযুদ্ধের বিরুদ্ধে ‘প্রচারণা’ চালানোয় ক্ষুব্ধ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার তথ্য ও প্রযুক্তি বিষয়ক উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয়। একই সঙ্গে এমন ‘প্রচারণায়’ খালেদা জিয়ার বাড়ির সামনে প্রতিবাদ জানানোর জন্যও সবাইকে আহ্বান জানান তিনি।

গত রাতে ফেসবুকে পোস্ট করা এক দীর্ঘ স্ট্যাটাসে তিনি তার ক্ষোভ প্রকাশ করেন।

স্ট্যাটাসে তিনি বলেন, ‘আমি ক্ষুব্ধ যে বিজয়ের মাসে খালেদা জিয়া এবং তার দল বিএনপি আমাদের মুক্তিযুদ্ধের বিরুদ্ধে প্রচারণা চালাচ্ছে। খালেদা নৃশংস পাক আর্মি ও তাদের সহযোগী খুনি জামায়াত-ই-ইসলামী কর্তৃক আমাদের নিরীহ বেসামরিক নাগরিকদের হত্যাকাণ্ডের সংখ্যাকে পাকিস্তানিদের মতই কমিয়ে বলে আসছে। সে দাবী করছে মাত্র কয়েক শত হাজার হত্যা হয়েছে। আজ বিএনপি এমনকি সেই মৃতের সংখ্যার উপর জনমত জরিপ করতে বলছে! স্বীকৃত সত্য সব সময়ই সত্য। সেটা কখনও জরিপ দিয়ে নির্ণীত হয় না।’

তিনি আরো বলেন, ‘৩০ লক্ষ পুরুষ, নারী এবং শিশুকে ঠাণ্ডা মাথায় হত্যা করা হয়েছিলো। হিন্দুদের নির্যাতন ও দেখামাত্র গুলি করা হয়েছিলো। সমস্ত গ্রাম উজাড় করে ফেলা হয়েছিলো। এমনকি যখন তারা আত্মসমর্পণ করতে রাজী হয়েছিলো তখনও তারা আমাদের সেরা বুদ্ধিজীবীদের ধরে নিয়ে গিয়ে সবাইকে হত্যা করেছিলো। এগুলো যুদ্ধে হতাহতের কোন ঘটনা ছিলো না। এসব ছিলো গণহত্যা।’

খালেদা এখন আবারও এইসব খুনিদের রক্ষা করতে চেষ্টা করছে অভিযোগ করে জয় বলেন, ‘নৃশংসতার শিকার মানুষগুলোর মন্ত্রী বানিয়েছে সেই খুনিদেরই। সে এখন থুতু ফেলেছে ৩০ লক্ষ শহীদের কবরে এবং থুতু ফেলেছে আমাদের দেশের মুখে। এরপর আমার আর এই মহিলার প্রতি বিন্দুমাত্র শ্রদ্ধা অবশিষ্ট নেই। আমি ঘৃণা করি যে সে কোন সময় আমাদের জাতির প্রধানমন্ত্রী ছিলো। সে একজন পাকিস্তানি এজেন্ট। সে বারংবার আইএসআই এজেন্টদের সাথে মিলিত হয়েছে এবং নির্বাচনগুলোতে আইএসআই থেকে টাকা নিয়েছে। তার বাংলাদেশ থেকে বিদায় হওয়া এবং তার ভালোবাসার পাকিস্তানে গিয়ে থাকা উচিৎ।’

এমন ঘটনায় বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার বাড়ির সামনে প্রতিবাদ জানাতে আহ্বান জানিয়ে জয় বলেন, ‘বিএনপি এবং তাকে দেখান যে তার পাকি প্রভুরা এবং জামায়াতি পোষা গুণ্ডারা আমাদের ভাই এবং বোনেদের যে হত্যা করেছে সেই স্মৃতি অপপ্রচার চালিয়ে মুছে ফেলা যাবে না। আমার সাথে একত্রে দাবি জানান, খালেদা পাকিস্তানে ফিরে যা।’

প্রসঙ্গত, সম্প্রতি মুক্তিযোদ্ধাদের প্রকৃত সংখ্যা নিয়ে সংশয় প্রকাশ করেন খালেদা জিয়া। এ নিয়ে ব্যাপক আলোচন-সমালোচনা শুরু হলে বিএনপি এ নিয়ে আলোচনা সভার আয়োজন করে। সেই আলোচনাসভা থেকেও মুক্তিযোদ্ধার সংখ্যা পুনরায় জরিপ করার দাবি জানায় বিএনপি। এরপরই প্রধানমন্ত্রীপুত্র এমন আহ্বান জানালেন।






মন্তব্য চালু নেই