মেইন ম্যেনু

খালেদার ইফতারে আসেননি ভারতীয় হাইকমিশনার

প্রতি বছরের ন্যায় এবারও বাংলাদেশে নিযুক্ত কূটনীতিকদের সম্মানে ইফতারের আয়োজন করেছিলেন বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া। গত সোমবার আয়োজিত ওই ইফতারে প্রায় সব দেশের কূটনীতিকরা অংশ নিলেও আসেননি ভারতীয় হাইকমিশনার হর্ষ বর্ধন শ্রিংলা।

রাজধানীর হোটেল ওয়েস্টিনে এই ইফতার অনুষ্ঠিত হয়। তবে ভারতীয় হাইকমিশনারের পরিবর্তে খালেদার ইফতারে অংশ নেন বাংলাদেশে নিযুক্ত ভারতের ডেপুটি হাইকমিশনার আদর্শ সোয়াইকা।

প্রসঙ্গত, পঙ্কজ স্মরণের পর বাংলাদেশে নতুন হাইকমিশনার হিসেবে হর্ষ বর্ধন শ্রিংলা দায়িত্ব পাওয়ার পর চলতি বছরের ৭ ফেব্রুয়ারি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে সাক্ষাৎ করলেও সাবেক প্রধানমন্ত্রী ও বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার সঙ্গে এখনো সাক্ষাৎ করেননি।

বাংলাদেশের রাজনীতিতে প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে প্রতিবেশি রাষ্ট্র ভারতের প্রভাব থাকলেও সেই ভারতের সঙ্গেই দেশের বর্তমান প্রধান বিরোধী শক্তি বিএনপির বৈরী সম্পর্কের কারণে দলটি হালে পানি পাচ্ছে না বলেও ধারণা সংশ্লিষ্টদের।

এদিকে, বিএনপি চেয়াপারসনের ইফতার পার্টিতে ভারতের হাইকমিশনার না আসায় নানা গুঞ্জন শোনা যাচ্ছে। তবে কূটনীতিকদের ইফতারে ভারতীয় হাইকমিশনার না আসলেও বিষয়টিতে গুরুত্ব দেননি বিএনপি নেতারা।

বিএনপির কূটনৈতিক উইংয়ের বর্তমান প্রভাবশালী নেতা সাবিহ উদ্দিন আহমেদ বলেন, ভারতীয় হাইকমিশন থেকে ডেপুটি হাইকমিশনার আদর্শ সোয়াইকা এসেছেন।

বাংলাদেশে কূটনৈতিক কোরের ডিন মিশরের রাষ্ট্রদূত মাহমুদ ইজ্জত, প্যালেস্টেইনের শার্জ দ্য অ্যাফেয়ার্স ইউসুফ রামাদান, সৌদি আরবের শার্জ দ্য অ্যাফেয়ার্স হাসান আল হাজিনীও এই ইফতার অনুষ্ঠানে অংশ নেন।

অনুষ্ঠানস্থলে এসে খালেদা জিয়া বিভিন্ন টেবিল ঘুরে ঘুরে কূটনীতিকদের সঙ্গে কুশল বিনিময় করেন।

মাহমুদ ইজ্জত, বার্নিকাট, ব্লেইক, ফরাসি রাষ্ট্রদূত সোফি অবার, কুয়েতের রাষ্ট্রদূত আবদেল মোহাম্মদ এ এইচ হায়াত, ইউরোপীয় ইউনিয়নের রাষ্ট্রদূত পিয়েরে মায়াদন, নরওয়ের রাষ্ট্রদূত মেরেতা লুন্দেমো, কোরিয়ার রাষ্ট্রদূত অন সেং দু, ভ্যাটিকানের রাষ্ট্রদূত আর্চ বিশপ জর্জ কোচেরি ও শ্রীলঙ্কার ভারপ্রাপ্ত রাষ্ট্রদূতকে নিয়ে এক টেবিলে ইফতার করেন খালেদা।

ভিয়েতনাম, সিঙ্গাপুর, কাতার, ভুটান, তুরস্ক, মালয়েশিয়া, নেপালহস মোট ৩৮টি দেশের রাষ্ট্রদূতসহ কূটনীতিকরা এই ইফতারে অংশ নেন বলে জানিয়েছেন বিএনপি নেতারা।






মন্তব্য চালু নেই