মেইন ম্যেনু

খালেদার বক্তব্যকে ‘রাবিশ’ বললেন ড. মিজান

বিএনপির চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার বক্তব্যকে ‘রাবিশ’ বলে মন্তব্য করেছেন মানবাধিকার কমিশনের চেয়ারম্যান ড. মিজানুর রহমান। মুক্তিযুদ্ধে শহীদের সংখ্যা নিয়ে বেগম খালেদা জিয়ার বক্তব্য প্রসঙ্গে এমন মন্তব্য করেন তিনি। বেগম খালেদা জিয়ার এমন দুঃসাহস হয় কিভাবে তারও প্রশ্ন রাখেন তিনি।

বৃহস্পতিবার (২৫ ফেব্রুয়ারি) চিটাগং ইন্ডিপেন্ডেন্ট ইউনিভার্সিটির আইন অনুষদের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ মন্তব্য করেন তিনি।

ড. মিজান বলেন, ‘আপনার কথা বলার স্বাধীনতা আছে বলে আপনি বাংলাদেশে ৩০ লাখ শহীদ হয়েছে কিনা জানা নেই বলে বক্তব্য দেবেন? এ ধরনের বক্তব্য রাবিশ।’

তিনি বলেন, জাতির সত্য ইতিহাস নিয়ে বিতর্ক করার অধিকার কারো নেই। এটা কোনো গণতন্ত্র নয়।

সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে মিজানুর রহমান বলেন, কতগুলো বিষয় আছে ঐতিহাসিক সত্য। সেই স্বীকৃত মীমাসিংত বিষয়কে বিতর্কিত করা দূরভিসন্ধিমূলক। যে সংবিধানে ৩০ লাখ শহীদের কথা লেখা আছে সেটা নিয়ে প্রশ্ন তোলা সংবিধানকে অবজ্ঞা করার শামিল। যিনি সংবিধান রক্ষার শপথ নিয়েছিলেন তিনি সংবিধানের বিরুদ্ধে কিভাবে কথা বলেন?

মিজানুর রহমান প্রচলিত আইনি ব্যবস্থার সমালোচনা করে বলেন, আইন ধনী এবং দরিদ্রের মধ্যে তফাৎ সৃষ্টি করছে। আইন হচ্ছে ধনীবান্ধব আর দরিদ্রবিরোধী। আমরা প্রতিনিয়ত নিজেদের সঙ্গে প্রতারণা করছি।

তিনি বলেন, একজন গরিব মানুষ আদালতে গেলে, ম্যাজিস্ট্রেট সাহেব ঘণ্টার পর ঘণ্টা দাঁড় করিয়ে রাখেন আর সন্ধ্যা হয়ে গেলে বলেন আজ আর শুনানি হবে না। তারপর গরিব মানুষটিকে আবারো পরদিন আসতে হয়। অথচ যদি সাবেক রাষ্ট্রপতি এরশাদ সাহেব যান? আসুন স্যার বলে চেয়ার এগিয়ে দেন। দরিদ্র মানুষের জন্য আপনাদের কি ব্যবস্থা? তাদের বয়স হয় না। এ ধরনের আচরণ ননসেন্স আচরণ। গরিব মানুষ দুধের মত পবিত্র। সেই গরিব মানুষকে যদি আইন রক্ষা করতে না পারে তাহলে কিসের আইন, কিসের আইনজীবী, কিসের আইন শিক্ষা?

আইন অনুষদের শিক্ষার্থীদের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, মক্কেলের মাথায় বারি দিয়ে কিভাবে টাকা আদায় করবো, সেই শিক্ষা গ্রহণ করো না। সেই শিক্ষাকে ঘৃণা করি। মামলাবাজ হবার জন্য আইনজীবী হওয়ার দরকার নেই। গরিব মানুষকে সেবা আর সংগঠিত করতে পারবেন যিনি তার জন্যই এই পেশা।






মন্তব্য চালু নেই