মেইন ম্যেনু

খালেদা জিয়া সুবিধামতো ওমরা করতে যাবেন

সুবিধাজনক সময়ে বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া ওমরা পালনের জন্য সৌদি আবরের উদ্দেশ্যে রওনা হবেন বলে জানিয়েছেন দলটির আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক ড. আসাদুজ্জামান রিপন।

রিপন বলেন, ‘বেগম খালেদা জিয়া রোজার পরও সৌদি আরবে যেতে পারেন। আর এটা সম্পূর্ণ তার উপর নির্ভর করবে।’

বৃহস্পতিবার দুপুরে রাজধানী নয়াপল্টনস্থ বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ কথা জানান।

বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমান ও খালেদা জিয়ার ওমরা পালনের বিষয়ে বিভিন্ন পত্রপত্রিকার প্রকাশিত সংবাদের তীব্র সমালোচনা করে রিপন বলেন, ‘এসব সংবাদের কোনো বাস্তবভিত্তি নেই। কারণ তারেক রহমান সৌদি আরবের ভিসা পেয়েছেন এবং খালেদা জিয়াকে সৌদি বাদশাহ ওমরা পালনের জন্য প্রতিবারের ন্যায় এবারও আমন্ত্রণ জানিয়েছেন। তবে তিনি কেন জাননি সেটা তার ব্যক্তিগত বিষয়, এটা রাজনৈতিক বিষয় নয়।’

এর ব্যাখ্যা দিতে গিয়ে বিএনপির এ মুখপাত্র বলেন, ‘আমি ধরে নিচ্ছি তার (খালেদা জিয়া) দলের শীর্ষ নেতারা মিথ্যা মামলায় কারাগারে আছেন ও বিভিন্ন নির্যাতনের শিকার হচ্ছেন। ফলে দলের শীর্ষ নেতাদের এই অবস্থা দেখে হয়তো তিনি ভালো নেই।’

‘জিয়াউর রহমান আমাকে দেশে আসতে বাধা প্রদান করেছিলেন’- প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার এই বক্তব্যের প্রতিক্রিয়ায় রিপন বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী যেভাবেই তথ্য পেয়ে থাকুক না কেনো, এই তথ্যর সঙ্গে বাস্তবতা ও সত্যের কোনো মিল নেই। বরং জিয়াউর রহমানের জন্যই শেখ হাসিনা বাংলাদেশে এসেছেন। কিন্তু এই কথা তারা স্বীকার করবেন না। কারণ আওয়ামী লীগের কৃতজ্ঞতাবোধ বলে কিছু নেই।’

জিয়াউর রহমান আওয়ামী লীগকে পুনঃজীবন দান করেছে মন্তব্য করে বিএনপির এ নেতা বলেন, ‘জিয়াউর রহমান ইচ্ছা করলে ডেমোক্রেটিক লীগকে আওয়ামী লীগের প্রতিপক্ষ হিসেবে দাঁড় করাতে পারতেন। যেমন আওয়ামী লীগ বর্তমানে জাতীয় পার্টিকে বিএনপির প্রতিপক্ষ হিসেবে দাঁড় করিয়েছে। কিন্তু জিয়া সেটা করেননি। কারণ তিনি প্রতিহিংসার রাজনীতিতে বিশ্বাস করতেন না।’

সংবাদ সম্মেলনে বিএনপির সহ-তথ্য ও গবেষণা বিষয়ক সম্পাদক হাবিবুর রহমান হাবিব, সহ-দপ্তর সম্পাদক আসাদুল করিম শাহীন প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

খালেদা-তারেকের সৌদি সফর স্থগিত, কী জটিলতা ওমরাহ যাত্রায়?






মন্তব্য চালু নেই