মেইন ম্যেনু

গজারিয়ায় ইউপি মেম্বার ও তার ভাইকে গুলি করে হত্যা, আহত ২৫

নাসরিন আক্তার, মুন্সীগঞ্জ থেকে : মুন্সীগঞ্জের গজারিয়ায় ইউপি নির্বাচনের জের ও আধিপত্য বিস্তার নিয়ে হামলায় গুলিবিদ্ধ হয়ে নবনির্বাচিত সাধারণ সদস্য (মেম্বার) ও তার ছোট ভাইয়ের মৃত্যুর সংবাদ পাওয়া গেছে। এ ঘটনায় ৪ মহিলাসহ আরও গুলিবিদ্ধ হয়েছেন ১০ জন। সবমিলিয়ে আহত হয়েছেন ২৫ জন। তাদেরকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। নিহতরা হলেন, গজারিয়া উপজেলার হোসেন্দি ইউনিয়নের ৮ নং ওয়ার্ড মেম্বার গোলাপ হোসেন (৪৮) ও তার ছোট ভাই আইয়ুব আলী (৩০)।

বৃহস্পতিবার বিকালে উপজেলার টানবলাকি (চরবলাকি) এলাকায় নবনির্বাচিত চেয়ারম্যান মাহবুবুল হক মজনু গ্রুপের সমর্থকরা এ ঘটনা ঘটায়। গুলিবিদ্ধদের প্রথমে সোনারগাঁ হাসপাতালে ও পরে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়। রাত ৮ টার দিকে মেম্বার ও তার ছোট ভাইকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল কর্তপক্ষ মৃত ঘোষণা করেন। নিহত ও গুলিবিদ্ধরা হোসেন্দি ইউনিয়নের পরাজিত চেয়ারম্যান ও সাবেক চেয়ারম্যান ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ সভাপতি আব্দুল মতিন মন্টুর সমর্থক। ওদিকে, ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন গুলিবিদ্ধদের মধ্যে রয়েছেন ইউসুফ মৃধা (৫০), তার স্ত্রী রেহেনা বেগম (৪৫), ফুল চান (৬০), রুবেল (৩০), কামাল হোসেন (৪০), নবী হোসেন (৩৫), জহিরুল হক (৩৫) ও ইমরান হোসেন (৩২)।

হোসেন্দি ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান মনিরুল হক মিঠু ও যুবদল নেতা তপন চৌধুরীসহ স্থানীয়রা জানান, পঞ্চমধাপের নির্বাচন ঘিরে ও এলাকার আধিপত্য নিয়ে হোসেন্দি ইউনিয়নের নবনির্বাচিত চেয়ারম্যান যুবলীগ নেতা মাহবুবুল হক মজনু গ্রুপের আমিরুল হক ও তার ছেলে যুবলীগ নেতা নাজমুল হকের সঙ্গে পরাজিত চেয়ারম্যান ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ সভাপতি আব্দুল মতিন মন্টু গ্রুপের নবনির্বাচিত মেম্বার গোলাপ হোসেন গংয়ের বিরোধ দেখা দেয়।

এ বিরোধের জের ধরে বৃহস্পতিবার বিকেল সাড়ে ৫টার দিকে নবনির্বাচিত চেয়ারম্যান মজনু গ্রুপের নাজমুল হোসেন ও শাহপরানের নেতৃত্বে শতাধিক লোক অস্ত্র ও টেটাঁ নিয়ে চরবলাকি গ্রামে অতর্কিতে হামলা চালায়। এ সময় গুলি ও টেটাঁবিদ্ধ হয় কমপক্ষে ২৫ জন। গুলিবিদ্ধ হয়ে মারা যায় মেম্বার গোলাপ হোসেন ও তার ছোট ভাই আইয়ুব আলী। এলাকায় তীব্র উত্তেজনা বিরাজ করছে।

এ ব্যাপারে গজারিয়া থানার অফিসার ইনচার্জ হেদায়েদ-উল-ইসলাম ভূঞা গুলিবিদ্ধ হয়ে দুই ভাইয়ের মৃত্যুর সংবাদ নিশ্চিত করে জানান, এলাকার পরিবেশ এখন শান্ত। অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।






মন্তব্য চালু নেই