মেইন ম্যেনু

গণতন্ত্র না থাকায় জঙ্গি হচ্ছে মানুষ

বিএনপির সর্বোচ্চ নীতি নির্ধারণী ফোরাম জাতীয় স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশারফ হোসেন বলেছেন, গণতান্ত্রিক ব্যবস্থা না থাকায় এক শ্রেণির মানুষ আজ জঙ্গি হয়ে যাচ্ছে।

তিনি বলেন, জঙ্গি উত্থানের জন্য দায়ী সরকার। নির্যাতিত মানুষের প্রতিবাদের ভাষাই সন্ত্রাসবাদে রূপ নিচ্ছে। তাই সন্ত্রাসবাদ কায়েমের জন্য এই সরকারই দায়ী। মামলা হামলা গুম খুন করে এই পরিবেশ সৃষ্টি করেছে তারা।

বুধবার জাতীয় প্রেসক্লাবে পুলিশের নির্যাতনে বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল বারীকে পিটিয়ে হত্যার প্রতিবাদে আয়োজিত আলোচনা সভায় তিনি এসব কথা বলে।

আলোচনা সভার আয়োজন করে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী মুক্তিযোদ্ধা দল।

খন্দকার মোশারফ বলেন, সারা দেশে সাঁড়াশি অভিযানের নামে ১৩ হাজার নিরাপরাধ মানুষকে গ্রেফতারের নামে নির্যাতন করা হয়েছে। সন্ত্রাসবাদের জন্য যাদেরকে গ্রেফতার করা হয়েছে কিছু দিন পরে তাদেরকে হয় খুন অথবা ক্রসফায়ারে মারা হচ্ছে। আর এ কারণেই সন্ত্রাসবাদের উত্থান বলে তিনি মন্তব্য করেন।

তিনি বলেন, জঙ্গিবাদ সৃষ্টি করেছে এই সরকার, জঙ্গিবাদকে উসকে দিচ্ছে এই সরকার। জঙ্গিবাদকে মোকাবেলা করতে ব্যর্থ হয়েছে তারা। নির্দোষদেরকে ধরে ক্রসফায়ারে দেয়ার কারণেই প্রতিশোধের স্প্রিহা থেকে এই জঙ্গিবাদের সাথে জড়িয়ে যাচ্ছে এসব জঙ্গিরা।

গুলশানের হলি আর্টিজান বেকারিতে হামলার ব্যাপারে তিনি বলেন, যে গুলশানে এত নিরাপত্তা। সেখানে কিভাবে এত অস্ত্র নিয়ে জঙ্গিরা নির্বিঘ্নে প্রবেশ করে? হামলার পর সরাসরি অ্যাটাক না করে সারা রাত পরে কেন অপারেশন করা হলো?

সরকারের সমালোচনা করে বিএনপির এ নেতা বলেন, এদেশের মানুষের কথা বলার অধিকার হরণ করা হয়েছিল ৭৫’র পূর্বে। আজকে সাংবিধানিকভাবে বাকশাল না থাকলেও অলিখিতভাবে বাকশাল চলছে। মাহমুদুর রহমান সত্য কথা বলার কারণে তাকে নির্যাতন করা হচ্ছে। আজকে রক্ষী বাহিনীর হাতে মানুষ মারা যাচ্ছে না। তবে একই কায়দায় র্যাব পুলিশের হাতে মানুষ মারা যাচ্ছে।

তিনি বলেন, সরকার ক্ষমতায় টিকে থাকতেই ফ্যাসিবাদী কায়দায় দেশ পরিচালনা করছে। এই সরকারের অধীনে আজ কেউ নিরাপদ নয়। এমনকি বিদেশিরাও নিরাপদ নয়। গণতন্ত্র না থাকায় আজকের এই অবস্থা বলে তিনি মন্তব্য করেন।

দেশের মানুষ আজ কেউ নিরাপদ নয় উল্লেখ করে মোশারফ বলেন, মুক্তিযোদ্ধারা যেমন নিরাপদ নয়, তেমনি কোন পেশার মানুষই নিরাপদ নয়। রাস্তা-ঘাট, এমনকি বেড রুমেও এখন মানুষ নিরাপদ নয়। শিক্ষক, সাহিত্যিক, পুলিশ সুপারের স্ত্রীও নিরাপদ নয়। বেশির ভাগ মানুষই সরকারের র্যাব পুলিশের হাতে নিহত হচ্ছে। আর এর একমাত্র কারণ হচ্ছে গণতন্ত্রের অনুপস্থিতি।

জাতীয়তাবাদী মুক্তিযোদ্ধা দলের সভাপতি ইসতিয়াক আজিজ উল্ফাতের সভাপতিত্বে আরও বক্তব্য রাখেন, গণস্বাস্থ্যের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি ড. জাফরুল্লাহ চৌধুরী, কল্যাণ পার্টির চেয়ারম্যান মেজর জেনারেল (অব.) সৈয়দ মোহাম্মদ ইব্রাহীম প্রমুখ।






মন্তব্য চালু নেই