মেইন ম্যেনু

গরু ধরলে ১০০, ছাগল ধরলে ৫০ টাকা পুরস্কার

মংলা শহরের বিভিন্ন স্থানে চলছে গাছ লাগানোর উৎসব। শহরের রাস্তাঘাট, নদীর পাড়সহ বিভিন্নস্থানে লাগানো হচ্ছে হরেকরকম গাছ। কোনো গরু ছাগল ঢুকে যাতে চারা গাছ নষ্ট করতে না পারে তার জন্য চলছে মাইকিং।

পৌর কর্তৃপক্ষের উদ্যোগে এ ঘোষণায় বলা হচ্ছে ‘এই শহর আপনার আমার সকলের। একটি বাসযোগ্য শহর তৈরি করতে শহরে গাছ লাগানোর উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। মহামূল্যবান এ গাছ যাতে কোনো গরু ছাগল নষ্ট না করতে পারে এই কারণে আপনার বাড়ির গরু ছাগল আটকিয়ে রাখুন। অন্যথায় জরিমানা গুনতে হবে।’

আরেকটি ঘোষণায় বলা হয়, ‘শহরে কোনো ছাড়া গরু ছাগল দেখলে ধরে দিতে পারলে তাকে গরুর জন্য ১০০ টাকা এবং ছাগলের জন্য ৫০ টাকা পুরস্কার দেওয়া হবে।’

মঙ্গলবার মংলা নদীর পাড়ে মেরিন ড্রাইভরোডে গাছ লাগাতে দেখা যায় স্থানীয় এমপি সদস্য তালুকদার আব্দুল খালেক ও পৌর মেয়র জুলফিকার আলীকে।

এ সময় কথা হয় পৌর মেয়র জুলফিকার আলীর সাথে। তিনি বলেন, ‘আগামী ভবিষ্যতের জন্য বাসযোগ্য পরিবেশে করা হচ্ছে। মংলা শহরকে গ্রিন সিটিতে পরিণত করা হবে। এ কারণে গত দুই সপ্তাহ ধরে শহরের রাস্তা, নদীর পাড়, পানি প্রকল্পে ইতোমধ্যে ৩ হাজার বিভিন্ন প্রজাতির গাছ লাগানো হয়েছে।’

চলতি মাসের মধ্যে পুরো শহরে ১০ হাজার গাছের চাড়া লাগানো হবে জানিয়ে মেয়র আরো বলেন, ‘আমরা কেবল শুরু করেছি। পর্যায়ক্রমে আমরা বাড়ি বাড়ি গিয়ে বিনামূল্যে গাছ দেব। এরপর যদি কারো বাড়িতে গাছ না লাগায় এ কারণে সেই বাড়ির মালিককে ১০ শতাংশ বেশি কর জরিমানা হিসেবে গুণতে হবে এমন পদক্ষেপের কথা ভাবছে মংলা পৌর কর্তৃপক্ষ।’

এদিকে মেয়রের এই গাছ প্রীতির প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে মংলা বন্দর বণিক সমিতির সভাপতি হাবিব মাস্টার বলেন, ‘যা কখনো ভাবিনি তা হচ্ছে মংলা শহরে। শহরের রাস্তার ডিভাইডারের মাঝে ফুল ও কৃষ্ণচূড়া গাছ ভাবতেই অবাক লাগে। এছাড়া এ গাছ বড় হলে মানুষের মনের প্রশান্তি যোগাবে এবং শহরের শোভা বর্ধন হবে বহুগুণ। তাই সকলেরই উচিৎ নিজের স্বার্থে মেয়রের এ উদ্যোগকে সহযোগিতা করা।’






মন্তব্য চালু নেই