মেইন ম্যেনু

গাছের পাতার সাহায্যে স্বর্ণের সন্ধান!

স্বর্ণের সন্ধানে বিলিয়ন বিলিয়ন ডলার খরচ করা হয়। এ জন্য জনবলেরও কমতি নেই। কিন্তু গাছের পাতার সাহায্যে স্বর্ণের সন্ধান পাওয়া যাবে এ কথা অবিশ্বাস্য মনে হলেও ঘটনা তা-ই।

গবেষকরা জানিয়েছেন, ইউক্যালিপ্টাস গাছের পাতার নমুনা দেখেই জানা যাবে ওই এলাকায় স্বর্ণ আছে কিনা। থাকলেও তা ঠিক কত নিচে!
অবাক করা গবেষণা হলেও ইউক্যালিপ্টাস গাছের মূল মাটির অত্যন্ত গভীরে প্রবেশ করে।

ফলে এ গাছের মূলের মাধ্যমে মাটির বিভিন্ন স্তর থেকে উঠে আসে বিভিন্ন খনিজ। এসব খনিজ ইউক্যালিপ্টাস গাছের পাতায় সঞ্চিত হয়। ইউক্যালিপ্টাস গাছের পাতার নমুনা পরীক্ষা করার মাধ্যমে জানা যাবে ওই এলাকায় মাটির নিচে স্বর্ণ আছে কিনা! যদি থেকেই থাকে তবে কি পরিমাণ?

গবেষক Melvyn Lintern বলেন, ইউক্যালিপ্টাস গাছের ওপর গবেষণা করে জানা গেছে, এসব গাছের শেকড় মাটির এতো গভীরে চলে যায় যেখানে বিভিন্ন স্থরে রয়েছে ভূগর্ভস্থ বিভিন্ন খনিজ। ইউক্যালিপ্টাস গাছের শেকড় ওই সব স্তর থেকে খনিজ সংগ্রহ করে নিয়ে আসে। এতে গাছের নমুনাতে ওই অঞ্চলের মাটির নিচে কি রয়েছে সে বিষয়ে তথ্য পাওয়া সম্ভব!

গবেষকরা বলছেন, ইউক্যালিপ্টাস গাছ হতে পারে খনিজ অনুসন্ধানের শক্তিশালী হাতিয়ার। এর মাধ্যমে খুব সহজেই ব্যয়বহুল যন্ত্রপাতি ব্যবহার এবং খনন না করে জানা যাবে সেখানের মাটির নিচে আসলেই কি কোনো স্বর্ণ আছে কি না!

গবেষকদের এ গবেষণা অর্থনৈতিক দিক দিয়েও বিশেষ সুবিধা নিয়ে আসছে বলেই মনে করছেন বিভিন্ন মহল। বিশ্বে মাটির নিচ থেকে স্বর্ণ উদ্ধারে খনন কাজেই ব্যয় হয় বিপুল পরিমাণ অর্থ। যদি ইউক্যালিপ্টাস গাছের পাতার নমুনার মাধ্যমে স্বর্ণ থাকার বিষয়টি জানা যায় তবে সাশ্রয় হবে বিশাল অংকের। সূত্র : দি টেক জার্নাল






মন্তব্য চালু নেই