মেইন ম্যেনু

গাজীপুরে ট্রেনের ধাক্কায় নিহত ৮

গাজীপুরে ট্রেনের ধাক্কায় সিএনজিচালিত অটোরিকশার ৮ যাত্রী নিহত হয়েছেন।

বৃহস্পতিবার দুপুরে গাজীপুর সিটি করপোরেশনের হায়দরাবাদ এলাকায় ঢাকা-ময়মনসিংহ রেল রুটে এ দুর্ঘটনা ঘটে।

নিহতদের মধ্যে একজন নারী, তিনজন শিশু এবং চারজন পুরুষ। এদের মধ্যে ৪ জনের পরিচয় পাওয়া গেছে। নিহতরা হলেন- নরসিংদী সদরের জিতরামপুর গ্রামের করিম মিয়ার ছেলে শাহ আলম (৩৬), তার স্ত্রী পিয়ারা বেগম (৩০), আল আমিন (২৭), চুন্নু মিয়া (২৮)। অটোরিকশাচালক ও তিন শিশুর পরিচয় পাওয়া যায়নি। শিশু তিনটির বয়স আনুমানিক ৮, ৫ ও ৫ বছর। ধারণা করা হচ্ছে, শিশু তিনটি শাহ আলম ও পিয়ারা বেগম দম্পতির। নিহতরা সবাই অটোরিকশার যাত্রী।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্র জানায়, দুপুর আড়াইটার দিকে হায়দরাবাদ এলাকায় অননুমোদিত রেলক্রসিং অতিক্রম করার সময় একটি সিএনজিচালিত অটোরিকশাকে ধাক্কা দেয় ঢাকা থেকে জয়দেবপুরগামী ডেমু ট্রেন। এতে অটোরিকশাটি ট্রেনের সামনের অংশে আটকে যায়। চালক ট্রেনটি থামানো চেষ্টা করলে প্রায় আধা কিলোমিটার দূরে গিয়ে ট্রেনটি থামে। এ সময় স্থানীয়রা অটোরিকশাটিকে ট্রেনের সামনে থেকে টেনে আলাদা করেন। এ আধা কিলোমিটার জুড়ে রেল লাইনের পাশে নিহতদের মরদেহ ছড়িয়ে ছিটিয়ে পড়ে থাকে এবং অটোরিকশাচালকের মরদেহ অটোরিকশায় আটকে থাকে।

খবর পেয়ে জয়দেবপুর জংশন ফাঁড়ি পুলিশ, জয়দেবপুর থানা পুলিশ ও ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা ঘটনাস্থলে গিয়ে লাশ উদ্ধার করে। পরে লাশগুলো গাজীপুরে শহীদ তাজউদ্দীন আহমদ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়।

নিহত আল আমীনের চাচা শুক্কুর আলী জানান, শাহ আলম ও পিয়ারা বেগম দম্পতি গাজীপুর সিটি করপোরেশনের খাইলকুর এলাকায় ভাড়া থেকে স্থানীয় পোশাক কারখানায় চাকরি করত। ঈদের ছুটি শেষে তারা গ্রামের বাড়ি নরসিংদী জিতরামপুর থেকে অটোরিকশাযোগে খাইলকুর আসার পথে দুর্ঘটনার শিকার হন।






মন্তব্য চালু নেই