মেইন ম্যেনু

গির্জার ভেতর ভূত!

অদ্ভুত ভূত নিয়ে মানুষের রহস্যের কোনো অন্ত নেই। অনেকেরই দাবি, তারা ভূত দেখেছেন। আবার অনেকেই মনে করেন, ভূত বলে আসলে কিছু নেই। তবে এবার অবসান ঘটেছে সব রহস্যের! ভূতের দেখা মিলেছে যুক্তরাজ্যের পরিত্যক্ত একটি গির্জায়!

গত বুধবার চার্চটিতে ঘুরতে গিয়েছিলেন অতিপ্রাকৃত বিষয়ের অনুসন্ধানকানী ডিয়ান জনসন ও শার্লি স্পালডিং। আর সেখান থেকে ফিরেই তাদের দাবি, সেখানে ভূত দেখেছেন তারা। শুধু তাই নয়, তুলে এনেছেন ভূতের ছবিও।

তারা জানিয়েছেন, তারা চার্চের পাশের একটি রাস্তায় দাড়িয়েছিলেন। তার বন্ধু শার্লি তার ফোনের ক্যামেরা ঠিক করছিলেন। সেই সময় তারা দেখতে পান, একটা কালো বোরকা পরা দৈত্য চার্চের মধ্যে ঘোরাফেরা করছে। যখনই তারা তাদের ক্যামেরাটি তাক করতে যান, সাথে সাথেই ভূতটি সেখান থেকে সরে যায়।

ঘটনাটি ঘটার সঙ্গে সঙ্গে জনসন ও শার্লি গির্জার ভেতরে যান। তবে সেখানে গিয়ে আর কিছুই দেখতে পাননি তারা। জনসন আর শার্লি এমন বহু জায়গায় ভূতের সন্ধানে গিয়েছিলেন। কিন্তু এই গির্জাটির মতো এমন প্রমাণ তারা আর কোথাও পাননি। ওই গির্জায় ভূতের কথা প্রচলিত বহু বছর ধরেই।

শোনা যায়, ষাটের দশকে গির্জাটিতে অনেক শয়তানি রীতি নীতি চলতো। সেখানে একটি সমাধিক্ষেত্র ছিল। সমাধিক্ষেত্রের কবরগুলো থেকে কঙ্কাল তুলে ফেলা হতো এবং সেগুলো শয়তাদের নকশায় সাজিয়ে তার প্রার্থনা করা হতো। তখন থেকেই গির্জাটিতে অস্বাভাবিক কিছু আছে বলে মনে করা হয়।






মন্তব্য চালু নেই