মেইন ম্যেনু

গোলাপগঞ্জে ভারতীয় তীর খেলা প্রতিরোধে এলাকাবাসীর সভা

আজিজ খান, গোলাপগঞ্জ (সিলেট) প্রতিনিধি: গোলাপগঞ্জ উপজেলার সদর ইউনিয়নের শেরপুর গ্রামে ভারতীয় তীর খেলা (শিলংতীর) নামক জুয়া খেলা প্রতিরোধে এলাকাবাসীর সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে।শুক্রবার বিকাল ৫ টায় স্থানীয় কারখানা বাজারের মসজিদ প্রাঙ্গণে মাষ্টার শামসুদ্দিনের সভাপতিত্বে সভায় উপস্থিত ছিলেন ইউপি সদস্য ইসমাইল, বিশিষ্ঠ মুরব্বি দনাই মিয়া, তরুন সমাজ সেবক জাহাঙ্গীর আলম, নুরুল ইসলাম, এনাম উদ্দিন, সামসুল ইসলাম, আলতাফ মাহমুদ, ডাঃ আব্দুর রহিম, আব্দুল খালিক, মধু মিয়া, মাও:ইকবাল আহমদ, মাও:আজিম উদ্দিন, মাও: আলি আহমদ, স্বেচ্ছাসেবক পাঠশালার সভাপতি সাংবাদিক রুবেল আহমদ, সাধারন সম্পাদক ছাদিকুর রহমান, অর্থ সম্পাদক মামুনুর রশীদ, আনোয়ার হোসেন খান, নজু আহমদ, আনোয়ার আহমদ প্রমূখ।

সভায় বক্তারা বলেন, শিলং তীর নামীয় এই জুয়া খেলায় সর্বশান্ত হচ্ছে স্বল্প আয়ের মানুষ। দীর্ঘদিন যাবৎ একটি জোয়ারীচক্র ভারতীয় তীর নামীয় একটি নাম্বারের টোকান বিক্রি করে লক্ষ লক্ষ টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে। যার ফলে উঠতি তরুন থেকে মাঝ বয়সী লোকের মেরুদন্ড ভেঙ্গে দিচ্ছে এই লটারী। জুয়াড়ী চক্রের সদস্যরা অত্র উপজেলার বাসীন্দা হওয়া সুবাদে ক্ষমতাধর ব্যক্তিদের সাথে যোগসাজেশ রেখে তৎপরতা চালানোর কারনে তাদের বিরুদ্ধে কেহ প্রতিবাদ করেও কোন প্রতিকার হয়নি। ঐ চক্রের কাছ থেকে তীরের টোকন কিনে লঠারীতে বিজয়ী হলে ১টাকায় ৭৫/ টাকা, ১০০/.টাকায় ৭,৫০০/ টাকা, ১০০০/.টাকায় ৭৫,০০০/ টাকা পাওয়া যাবে।

এ লোভের বেড়া জালে পড়ে ইউনিয়নের প্রায় সকল বয়সী লোকতথা সহজ-সরল মানুষ প্রতিদিন মারাত্বক ক্ষতির সম্মুখিন হচ্ছে। বক্তারা আরো বলেন, সপ্তাহের প্রতি রবিবার দিন ছাড়া প্রতিদিনই দুবার করে এ লঠারী পার্শ্ববর্তী বন্দুপ্রতিম দেশ ভারতের শিলং’এ অনুষ্ঠিত হয়ে থাকে। লঠারী ড্র’র পর এখানকার বাংলাদেশী চক্ররা মোবাইল ফোনের ও ওয়েবসাইটের মাধ্যমে ভারতের শিলং থেকে উক্ত খেলার ফলাফল জেনে নিয়ে বিজয়ীদের ঐ একে সত্তর প্রাইজ প্রধান করে থাকে।

কিন্তু র্দূভাগ্য হলেও সত্য যে শতকরা দুজন ক্রেতার ভাগ্যেও প্রাইজ পাওয়া সুভাগ্য হয়না। যার ফলে যুবক তরুনরা নিজের পিতা-মাতার সঞ্চিত টাকা পয়সা হারিয়ে রি-পুজি হচ্ছে। কারন প্রাইজ’ অপেক্ষায় সে কাজকর্ম রোজগার থেকে বিরত থাকছে।অপর দিকে ফলাফলের পর যখন পুরূস্কৃত না হয় ,তখন দিশেহারা হয়ে কেই কেউ বিভিন্ন অপরাদ মূলক কর্মকান্ডে জড়িয়ে পড়তে বাধ্যে হচ্ছে। যার কারনে এলাকায় দেখা দিচ্ছে সামাজিক অস্থিররতা বৃদ্ধি পাচ্ছে নানা অপরাধ প্রবনতা।

এমতা অবস্থায় নিরিহ শান্থীকামী সাধারন মানুষেরা শঙ্কিত হয়ে ভয় ভীতির মাধ্যেমে দিনাতিপাত করছে।সভায় উপস্থিত সকলের সর্বসম্মতি ক্রমে শিলংতীর (ভারতীয় তীর) নামীয় এই জুয়া খেলা প্রতিরোধে ৭ সদস্য বিশিষ্ট কমিটি গঠন করা হয়। ইতিমধ্যে গঠিত নতুন কমিটি ৫টি কর্মসৃচি গ্রহন করেছে। আর তা হচ্ছে- শুক্রবারে কারখানা বাজার ব্যবসায়ীদের সাথে মতবিনিময় সভা, শনিবার বিভিন্ন সামাজিক সংগঠনের সাথে মতবিনিময় সভা, রবিবার উপজেলা নির্বাহি অফিসার বরাবর স্মারক লিপি প্রদান, সোমবার প্রতিবাদ সভা, মঙ্গলবার মানববন্ধন অনুস্টিত হবে।






মন্তব্য চালু নেই