মেইন ম্যেনু

গো-রক্ষকদের থামাতে মোদির অ্যাকশন শুরু

কয়েকদিন আগেই স্বঘোষিত গো-রক্ষকদের ‘সমাজ-বিরোধী’ বলে উল্লেখ করেছিলেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। এবার এদের কর্মকাণ্ড থামাতে সব রাজ্য সরকারকে চিঠি পাঠিয়েছে দেশটির কেন্দ্রীয় সরকার। এই পদক্ষেপকে দেখা হচ্ছে. বিতর্কিত গো-রক্ষা আন্দোলনের বিরুদ্ধে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির অ্যাকশন হিসেবে।

মঙ্গলবার কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে সকল রাজ্যের মুখ্যসচিব ও পুলিশের ডিকেক্টর জেনারেল বরাবর চিঠি দিয়ে জানানো হয়েছে, যদি কোনও ব্যক্তি বা সংগঠন গো-রক্ষার নামে আইন নিজের হাতে তুলে নেয়, তা হলে তাদের বিরুদ্ধে আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা নিতে হবে। কোনও অবস্থাতেই যেন দোষী ব্যক্তিকে ছাড় দেওয়া না হয়।

ওই চিঠিতে বলা হয়েছে, ‘কিছু রাজ্যে গো-হত্যা আইনত নিষিদ্ধ। কিন্তু তার মানে এই নয় যে, ওই সব রাজ্যে কোনও ব্যক্তি বা সংগঠন গো-হত্যাকারীকে শাস্তি দিতে আইন নিজের হাতে তুলে নেবে। সম্প্রতি দেখা গেছে, কিছু মানুষ বা গোষ্ঠী গো-রক্ষার নামে ঠিক সেই কাজটাই করেছে। এটা মেনে নেওয়া যায় না। এদের বিরুদ্ধে দ্রুত আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা নিতে হবে সংশ্লিষ্ট রাজ্য সরকারকে।’

এর আগে শনিবার নয়া দিল্লির টাউন হলে জনসংযোগের জন্য আয়োজিত অনুষ্ঠানে নরেন্দ্র মোদি বলেন, ‘কিছু লোক দোকান খুলে বসেছে! এই গো-সেবক, গো রক্ষকদের দেখে আমার খুব রাগ হয়! এরা সারারাত অসামাজিক কাজকর্ম করে। আর সকাল হলেই গো-রক্ষক ও গো-সেবক হয়ে যায়।’

কেন্দ্রে মোদি সরকার আসার পর থেকেই ভারতের বিভিন্ন প্রান্তে সক্রিয় রয়েছে ওই স্বঘোষিত গো-রক্ষকরা। উত্তরপ্রদেশ, রাজস্থান, মধ্যপ্রদেশ, মহারাষ্ট্র, গুজরাটে তাদের একাংশের তাণ্ডবের শিকার হতে হয়েছে দলিত ও সংখ্যালঘু মুসলিমদের। প্রথমদিকে মুখ না খুললেও সম্প্রতি ওই গো-রক্ষকদের নির্যাতনের প্রতিবাদে দলিতরা সোচ্চার হয়ে উঠলে এ নিয়ে মুখ খোলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। আগামী বৃহস্পতিবার দলিতদের ওপর নির্যাতনের বিষয়ে পার্লামেন্টে আলোচনা হওয়ার কথা রয়েছে। এর ঠিক আগেই কেন্দ্র সরকার গো-রক্ষকদের বিরুদ্ধে দৃঢ় অবস্থানের জানান দিলো।






মন্তব্য চালু নেই