মেইন ম্যেনু

গৌরবের লড়াইয়ে জিতল ওমান

আইসিসির দুই সহযোগী দেশ আয়ারল্যান্ড-ওমানের লড়াই ধর্মশালার হিমশীতল আবহাওয়াতেও রোমাঞ্চ ছড়িয়ে দিয়েছিল। একদিকে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের মূল পর্বে খেলার লড়াই, অন্যদিকে দুই দলের প্রথম ম্যাচে এগিয়ে যাওয়ার লড়াই।

এবারই দুই দল প্রথম টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ খেলছে। ম্যাচের শেষ মুহূর্ত পর্যন্ত বোঝা যাচ্ছিল না কে জিতবে কে হারবে! শেষ পর্যন্ত ২ উইকেট ও ২ বল আগে জয় পায় ওমান।

আয়ারল্যান্ডের দেওয়া ১৫৫ রানের টার্গেটে ব্যাটিং করে ওমান ১৯ ওভারে ১৪১ রান তুলে নেয়। শেষ ৬ বলে জয়ের জন্যে তাদের প্রয়োজন ছিল ১৪ রান। ম্যাক্স সোরেসন প্রথম বলেই করলেন ‘নো বল’। কাঁধের উপরে বল পেয়ে খোঁচা মেরে বল বাউন্ডারির বাইরে পাঠালেন আমের আলী। দুই বল পর ফুল টসে খোঁচা মেরে বাউন্ডারি পার করালেন অজয় লালচেতা।

শেষ ৩ বলে ওমানের জিততে প্রয়োজন ৩ রান। চতুর্থ বলে উইকেটের পিছনে ক্যাচ দিয়ে আউট ক্যামিও ইনিংস খেলা আমের আলী (১৭ বলে ৩২)। কিন্তু পঞ্চম বলে আর কপালে খুলেনি আয়ারল্যান্ডের। ম্যাক্স সোরেসন নো বল উইকেট রক্ষক ধরতেও ব্যর্থ হলেন। ফলাফল ৫ রান পেয়ে জয়ী ওমান।

আন্তর্জাতিক কোনো টুর্নামেন্টে এটি ওমানের সর্বোচ্চ সাফল্য। জয়ের দিনের শুরুতে ভিত গড়ে দেয় ওপেনার জিসান মাকসুদ ও খায়ার আলী। ১৫৫ রানের টার্গেটে দুজন শুরুতে ৬৯ রান জমা করেন। জিসান (৩৮) ও খায়ার (৩৪) ফিরে যাওয়ার পর স্কোরবোর্ডে ২৪ রান যোগ করেন জাতিনদ্বার সিং। এরপর চলে আমের আলীর ব্যাটিং। মাঝে কেভিন ও’ব্রায়েন ও এন্ডি মেকব্রায়েনের ২টি করে উইকেটে ম্যাচ জমিয়ে তুলে আয়ারল্যান্ড। কিন্তু ভাগ্যদেবী সঙ্গে না থাকায় শেষ পর্যন্ত পরাজয় নিয়ে মাঠ ছাড়তে হয় আইরিশদের।

এর আগে টসে জিতে ব্যাটিং করতে নেমে গ্যারি উইলসনের ৩৮ ও উইলিয়ামস পোর্টসফিল্ড এবং পল স্টারলিংয়ের ২৯ করে রানের সুবাদে ১৫৪ রানের পুঁজি পায় আয়ারল্যান্ড। ওমানের হয়ে সর্বোচ্চ ৩টি উইকেট নেন মুনিস আনসারি।

ম্যাচসেরা নির্বাচিত হন আমের আলী।






মন্তব্য চালু নেই